২১ অক্টোবর ২০১৯

সরকার নৌবাহিনীর যুগোপযোগী প্রশিক্ষণ চায় : রাষ্ট্রপতি

সরকার নৌবাহিনীর যুগোপযোগী প্রশিক্ষণ চায় : রাষ্ট্রপতি - ছবি : সংগৃহীত

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেছেন, দেশের সমুদ্রসীমা রক্ষায় সরকার নৌবাহিনীর যুগোপযোগী প্রশক্ষণ ও দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তোলার ওপর জোর দিচ্ছে।

বুধবার খুলনার খালিশপুরে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর অন্যতম প্রধান ঘাঁটি বানৌজা তিতুমীরকে ন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

হামিদ বলেন, ‘বর্তমান সরকারের সামগ্রিক উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় নৌবহরে সাবমেরিন সংযোজনের মাধ্যমে বাংলাদেশ নৌবাহিনী আজ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে ত্রিমাত্রিক নৌবাহিনী হিসেবে সুপ্রতিষ্ঠিত হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘নৌবাহিনীর সম্প্রসারণের ধারাবাহিকতায় ইতোমধ্যে ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব নৌঘাঁটি কমিশন লাভ করেছে। পাশাপাশি, সমুদ্রে নজরদারী ও টহল জোরদার করতে আরও দু'টি মেরিটাইম পেট্রোল এয়ারক্রাফট ক্রয় করা হয়েছে। অবকাঠামোগত উন্নয়নের লক্ষ্যে পটুয়াখালীতে এভিয়েশান সুবিধাসম্বলিত নৌবাহিনীর সর্ববৃহৎ নৌঘাঁটি শের-ই-বাংলা নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলেছে।’

রাষ্ট্রপতি বলেন, যুগোপযোগী প্রশিক্ষণ ও দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তোলার ক্ষেত্রেও সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। ‘আমি আশাবাদী আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের নৌসদস্যগণ মহান দেশপ্রেমে উজ্জীবিত হয়ে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবেন।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের রয়েছে ৭১০ কিলোমিটার বিস্তৃত উপকূল এলাকা যেখানে প্রায় তিন কোটি মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জীবিকার জন্য সমুদ্রের উপর নির্ভরশীল। সমুদ্র পথেই দেশের বৈদেশিক বাণিজ্যের ৯০ ভাগের বেশি পরিচালিত হয়ে থাকে।

‘তাই জাতীয় স্বার্থে সমুদ্র এলাকার সার্বভৌমত্ব ও সার্বিক নিরাপত্তার পাশাপাশি সুনীল অর্থনীতির সুফল নিশ্চিত বাংলাদেশ নৌবাহিনী আরো দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাবে -দেশবাসী তা প্রত্যাশ করে,’ যোগ করেন তিনি।


আরো সংবাদ