২৯ জানুয়ারি ২০২০

টাকার বিনিময়ে গাড়ি পার্কিং সুবিধা মিলবে

-

ঢাকায় টাকার বিনিময়ে গাড়ি পার্কিং করতে ৬৪টি স্থান অনুমোদন করেছে ঢাকা যানবাহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ (ডিটিসিএ)। ঢাকা মহানগর পুলিশের সুপারিশের ভিত্তিতে এসব স্থানের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নগরভবনে গত রোববার ডিটিসিএ’র বোর্ডসভায় পার্কিংয়ের স্থানের অনুমোদন দেয়া হয়। এ ছাড়া ঢাকার যানজট কমিয়ে আনার লক্ষ্যে নানা সিদ্ধান্ত নেয়া হয় সভায়।
ডিটিসিএ সূত্র বলছে, চিহ্নিত করা ৬৪টি স্থান ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ দুই সিটি করপোরেশনেই পড়েছে। ঢাকার সড়কগুলো সিটি করপোরেশনের অধীনে, কিন্তু ট্রাফিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পুলিশের। যেখানে-সেখানে গাড়ি পার্কিংয়ের কারণে সড়কে যানজট হচ্ছে বলে বিশেষজ্ঞদের মতো। গত নভেম্বরে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) সড়কে গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য ৬৮টি স্থান চিহ্নিত করে। আলোচনার পর এর মধ্য থেকে ৬৪টি স্থানের অনুমোদন দেয়া হয়। দুই সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা পরে টোলের হার নির্ধারণ করবেন। বর্তমানে নিউমার্কেট, মতিঝিলের সিটি সেন্টার, পলওয়েল মার্কেট এলাকায় টাকা দিয়ে সড়কে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা রয়েছে।
সভায় ডিটিসিএ বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন মেয়রের নেতৃত্বে গত জুনে একটি কমিটি গঠন করা হয়। তাদের দুই মাসের মধ্যে যানজট সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসার নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। কিন্তু ডেঙ্গু জ্বরের প্রাদুর্ভাবের কারণে কমিটি ঠিকভাবে কাজ করতে পারেনি। এখন আবার নতুন করে কার্যক্রম জোরদার করা হচ্ছে।
কবে নাগাদ ঢাকাবাসী ফল দেখতে পাবে, এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকার সমস্যা দীর্ঘ দিনের। রাতারাতি এর পরিবর্তন হবে না। এ জন্য সময় বেঁধে দেয়া ঠিক হবে না। তবে দ্রুত পরিস্থিতির উন্নতি হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।
সভায় ঢাকার যানজট নিরসনে আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালগুলো পর্যায়ক্রমে শহরের বাইরে নিয়ে যাওয়ার জন্য স্থান নির্ধারণ এবং প্রয়োজনীয় কার্যক্রম শুরুর সিদ্ধান্ত হয়। ঢাকার গাবতলী, সায়েদাবাদ ও মহাখালীতে তিনটি বড় টার্মিনাল রয়েছে। এগুলো শহরের বাইরে নিয়ে গেলেও যাতে ভেতরের সাথে নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ নিশ্চিত করা যায়, সে বিষয়ে নজর দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয় সভায়।
সভায় ওবায়দুল কাদের জানান, সাভারের সাথে নারায়ণগঞ্জের নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে ৪০ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়ক নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এটি সাভারের বলিয়ারপুর থেকে শুরু হয়ে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা হয়ে লাঙ্গলবন্দ গিয়ে শেষ হবে।

 


আরো সংবাদ