১০ ডিসেম্বর ২০১৯

মোস্তাফা-বন্যার রৌপ্যপদক

৯ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সকাল সকাল সাতদোবাতো ক্রীড়া কমপ্লেক্সে গিয়ে ঠান্ডায় যখন জুবুজুব ঠিক তখনই শীতের মাঝে স্বস্থিদায়ক গরম খবর- কারাতে ডিসিপ্লিনে মহিলা একক কাতায় ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছেন বাংলাদেশের হুমায়রা আক্তার অন্তরা। তাকে নিয়ে যখন মিডিয়া কর্মীদের ভিড় তখনই আরো স্বস্থিদায়ক খবর, হাসান খান সান পুরুষ কাতা ইভেন্টে জিতেছেন ব্রোঞ্জ। উভয়েরই সম্ভবনা ছিল স্বর্ণ জেতার। কিন্তু প্রতিযোগিতার সময় দুজনেরই পা সামান্য পিছলে গেলে পিছিয়ে পড়ে ব্রোঞ্জ জিতেন।

তবে তাদের মতো হতাশ করেননি মোস্তফা কামাল ও মাউনজেরা বন্যা। মেয়েদের অনূর্ধ্ব-৪৫ কেজি ওজন শ্রেণিতে ব্যক্তিগত কুমিতে তিনি রুপা জিতেন। আর সোনা জিতেছেন নেপালের কুসুম খাদকা। ফাইনালে বন্যা ৩-২ ব্যবধানে হেরে যান খাদকার কাছে। এর আগে ছেলেদের কারাতের ব্যক্তিগত কুমিতে অনূর্ধ্ব-৫৫ কেজিতে বাংলাদেশকে প্রথম রুপা এনে দেন মোস্তফা কামাল।

দুর্দান্ত লড়াই করেও শেষ মুহূর্তে হেরে যাওয়ায় কান্নায় ভেঙে পরেন বন্যা। এসএ গেমসে ২০১০ সালে স্বর্ণ জয়ী বন্যার বোন বিপাশা আক্তারকে জড়িয়ে ধরে অঝোরে কাঁদেন তিনি। কাঁদতে কাঁদতে বলেন, ‘খুবই খারাপ লাগছে। যদিও কাউকে বলিনি, কিন্তু আমি স্বর্ণপদকের জন্যই খেলেছি। কিভাবে লড়াই করেছি আপনারা দেখেছেন। ম্যাটে কী হয়েছে সেটাও দেখেছেন। এবার পারিনি। ইনশাল্লাহ সামনে আরো শক্তভাবে ফিরে আসব।’

চারবারের জাতীয় চ্যাম্পিয়ন বন্যা। ২০১১, ২০১৫, ২০১৭ ও ২০১৮ সালে অনূর্ধ্ব-৪৫ ও অনূর্ধ্ব-৫০ কেজিতে জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে স্বর্ণ জিতেন। এবারই প্রথম এসেছিলেন এসএ গেমসে খেলতে। নিজের অভিষেক রাঙাতে চেয়েছিলেন স্বর্ণপদক গলায় ঝুলিয়ে। সেটার খুব কাছাকাছিও গিয়েছিলেন। কিন্তু স্বাগতিকদের দাপট আর সুবিধা নেয়ার কারণে সেটা হয়নি। ফেডারেশনের সহসভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন সেন্টু, ‘আমাাদের প্রতি অবিচার করা হয়েছে। মেয়েরা কাঁদছে। কারণ তারা জানে কতটা ভালো পারফরম্যান্স করেছে। আমরা তিনশ’ ডলার দিয়ে আবেদন করার চিন্তা ভাবনা করছি।’

কারাতে ইভেন্টে গতকাল পদক এসেছে মোট ৮টি। রৌপ্য দুটি এবং ব্রোাঞ্জ ছয়টি। রৌপ্য জেতেন মোস্তফা ও বন্যা। ব্রোঞ্জ জেতেন সান, অন্তরা, রমজান, আতিকুর, ফাহমিদা ও দলীয় ভাবে দুটি।

দ্বিতীয় দিনে বাংলাদেশের অর্জন

ডিসিপ্লিন          স্বর্ণ   রৌপ্য  ব্রোঞ্জ

তায়কোয়ানদো    ১       ০      ৬   

কারাতে             ০       ২      ৭


আরো সংবাদ