১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

উইকেট নিয়ে চিন্তিত বাশার স্বর্ণই জিততে চান

হাবিবুল বাশার সুমন - ছবি : সংগৃহীত

বুধবার মালদ্বীপের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে সাউথ এশিয়ান গেমসের ক্রিকেট মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ জাতীয় দল। কিন্তু মাঠের লড়াইয়ের আগে উইকেট নিয়ে চিন্তিত টিম ম্যানেজার এবং নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন। ‘রাতে এখানে অনেক ঠান্ডা। তবে দিনের বেলায় মনে হয় না খেলার সময় কোনো সমস্যা হবে। ঠান্ডা কিংবা উচ্চতা নিয়ে নয়, আমাদের বড় দুশ্চিন্তা উইকেট নিয়ে। এরকম ঠান্ডার সঙ্গে আমরা অনেক খেলেছি বা খেলছি। আসলে উইকেটটা কেমন হয়, এটা নিয়েই আমাদের ভাবনা।’

গত রোববার দুপুরে কাঠমান্ডু পৌছানোর পর বিশ্রামেই ছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। হোটেলে জিম এবং সুইমিং করেছিলেন সৌম্য-নাজমুলরা। গতকাল প্রথমবারের মতো ত্রিভূবন ইউনিভার্সিটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট গ্রাউন্ডে অনুশীলন করেন ক্রিকেটাররা। সোমবার টিম হোটেলে উইকেট নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকা সুমন আরো বলেন, ‘যেহেতু এটা টি-টোয়েন্টি খেলা, আর টানা কয়েকটি ম্যাচ খেলতে হবে। ভাল উইকেট পাব কিনা সেটা নিয়েই একটু চিন্তিত। যখন উইকেট ভাল থাকে না তখন বড়-ছোট দলের মধ্যে পার্থ্যকটা কমে যায়। একই ভেনুতে টানা ১০ দিন খেলা। আর টানা খেলার কারণে উইকেট ভাল থাকবে না। ফুটবলে মাঠ একটু এলোমেলো হলেও খেলা যায়, কিন্তু ক্রিকেটে সমস্যা।’

গেমসের ক্রিকেটে ২০১০ সালে স্বর্ন জিতেছিল বাংলাদেশ।  এবারের আসরে ভারত-পাকিস্তান নেই বলে পদক ধরে রাখাটা সহজ বলেই মনে করছেন অনেকে। তবে সুমনের মতে, ‘ভারত পাকিস্তান নেই বলে যে স্বর্ন জেতা সহজ তা ঠিক নয়। আসলে ক্রিকেটে সহজ বলতে কিছু নেই।  শ্রীলঙ্কা ভাল দল নিয়ে আসছে। নেপালে তাদের ঘরের মাঠে খেলবে। কাজেই আমরা কাউকে সহজভাবে নিচ্ছি না। এটা ঠিক ভারত-পাকিস্তান থাকলে খেলাটা আরও আকর্ষনীয় হতো। ২০১০ সালে জিতেছি, এবার তার পূনরাবৃত্তি করতে চাই।’

মালদ্বীপের বিপক্ষে ম্যাচের পর একদিন বিরতি। এরপর টানা তিনদিন-ভুটান, নেপাল এবং শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচ। টানা ম্যাচ খেললে ক্রিকেটারদের ইনজুরিতে পড়ার শংকাও আছে। ফুটবলের সূচি নিয়ে অংশগ্রহনকারী দলগুলো আপত্তি তুলেছে। ক্রিকেটের সূচি নিয়ে কোনো অভিযোগ করছেন না হাবিবুল, ‘টানা ম্যাচ খেলা নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। কারণ আমাদের বিপিএলে টানা ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা আছে।  তবে খেলার মাঝে একদিন গ্যাপ থাকা ভালো।’

ইমার্জিং এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কাকে হারানোর অভিজ্ঞতা আছে। সেটা চিন্তা করলে এস এ গেমসে লংকানরা কোনো বড় বাঁধা হওয়ার কথা নয়। তবে বাশারের চোখে, ‘সেটা ছিল পঞ্চাশ ওভারের ম্যাচ, এটা বিশ ওভারের। টি-টোয়েন্টি খেলা আর ফাইনালের চাপ তো আছেই। প্রত্যাশার চাপসহ সবকিছু ওভারকাম  করেই স্বর্ন জিতে দেশে ফিরতে চাই। স্পিনাররাই পার্থক্য গড়ে দিতে পারে। প্রতিদিনি একই উইকেটে খেলা হলে বল উইকেটে স্লো হয়, টার্ন করে। আমার মনে হয় স্পিনাররা সুবিধা পাবে। মেহেদি ইমার্জিং কাপে ভাল বল করেছে। ইনজুরির কারণে বিপ্লবের জায়গায় এসেছে মিনহাজুল আবেদিন আফ্রিদি। লেগ স্পিনার তানভীর আছে।’

 


আরো সংবাদ