২২ জানুয়ারি ২০২০

বেয়াইয়ের লাগাতার ধর্ষণে ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণের ফলে এক কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ছেন। বর্তমানে ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী অভিযুক্ত পুত্র ও তার পিতার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।

ঘটনাটি ঘটেছে হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার ১নং উত্তর-পূর্ব ইউনিয়নের একটি গ্রামে।

এলাকাবাসী ও মামলাসূত্রে জানা যায়, জামালপুর গ্রামের আবু মোহাম্মদের ছেলে শাহজাহান (২৪) ও অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী সম্পর্কে তালতো ভাই-বোন। কিশোরীর পরিবারের লোকজন একটি হত্যা মামলার আসামী হিসেবে দীর্ঘদিন যাবৎ পলাতক থাকায় অভিযুক্ত শাহজাহান প্রায়ই ঐ কিশোরীর বাড়িতে তাদের খোঁজখবর নেওয়ার অজুহাতে আসা-যাওয়া করতো।

আসা যাওয়ার সুবাদে বিবাহিত ও এক সন্তানের জনক শাহজাহানের লোলুপ দৃষ্টি পড়ে ঐ কিশোরীর উপর। একপর্যায়ে কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে এবং এই ঘটনার ছবি ও ভিডিও করে রাখে।

ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে পরবর্তীতে একাধিকবার ধর্ষণের ফলে ঐ কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে পরিবারের লোকজন জেনে ফেলে।

ঘটনাটি ধর্ষকের পিতা আবু মোহাম্মদকে জানালে তিনি কিশোরীকে পুত্রবধূ হিসেবে ঘরে তোলার আশ্বাস দিয়ে কালক্ষেপণ করতে থাকেন। একপর্যায়ে সমাজপতিদের মাধ্যমে দফারফার চেষ্টা করে সফল হতে না পেরে গর্ভের সন্তান নষ্টের ও চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগে জানা যায়।

বাধ্য হয়ে নিরুপায় কিশোরী গত ১২ নভেম্বর হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। বর্তমানে মামলাটি তদন্তের জন্য বানিয়াচং থানায় প্রেরণ করা হয়েছে।

এব্যপারে অভিযুক্ত ধর্ষক শাহজাহান ও তার পরিবারের লোকজনের বক্তব্য জানার জন্য তাদের বসত বাড়ীতে উপস্থিত হয়েও কাউকে পাওয়া যায়নি। শাহজাহানের মোবাইল ফোনেও একাধিকবার যোগাযোগ করেও মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

বানিয়াচং থানার ওসি (তদন্ত) প্রজিত কুমার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এলাকার সমাজপতিরা আপোসরফার জন্য তদবির করেছেন আমি তাদেরকে নিষেধ করে দিয়েছি। আসামীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত আছে।


আরো সংবাদ