২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

দুমকিতে সরকারি খাল থেকে বালু উত্তোলন : ভূমিধসের আশঙ্কা

-

পটুয়াখালীর দুমকিতে অবৈধভাবে সরকারি রেকর্ডিও খাল থেকে স্যালো পাম্পের মেশিনে ভূগর্ভস্থ বালু উত্তোলনে মারাত্মক পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। অথচ কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে নীরব ভূমিকা পালন করছে প্রশাসন।
উপজেলার লেবুখালী ইউনিয়নের আঠারগাছিয়া নেছারিয়া মাদরাসা সংলগ্ন গোদার খালে স্যালো পাম্পের ঠাটা মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। ওই খালের বিভিন্ন পয়েন্টে অন্তত ৩০-৪০ মিটার গভীরতায় বোরিং করে বালু উঠিয়ে বিভিন্ন লোকের কাছে বিক্রি করে বাড়ির আঙ্গিনা, পুকুর, ডোবা, নিচু জমি ভরাট করা হচ্ছে। লেবুখালী ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লিটন সিকদারের নেতৃত্বে একটি প্রভাবশালী চক্র ভূগর্ভস্থ বালু উত্তোলনের এ অবৈধ ব্যবসা চালাচ্ছে বলে জানা যায়। এতে ভবিষ্যতে প্রতিটি বোরিং পয়েন্টের ১৫০ থেকে ৩০০ বর্গফুট এলাকাজুড়ে দেবে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। প্রকাশ্য দিবালোকে পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্টকারী এমন অবৈধ বালু উত্তোলন করা হলেও প্রশাসন রয়েছে নির্বিকার। অভিযোগ উঠেছে, অবৈধ বালু উত্তোলনকারী চক্রের কাছ থেকে টু-পাইস বখড়া নিয়ে পুলিশ রহস্যজনক নীরবতা পালন করছে।
ভূ-গর্ভস্থ বালু উত্তোলন প্রসঙ্গে দুমকি থানার ওসি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, অভিযোগ পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। জনস্বার্থ রক্ষার্থে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার শঙ্কর কুমার বিশ্বাস বলেন, লোক মুখে অভিযোগটি শুনেছি। কেউ লিখিত কোনো অভিযোগ দেননি। গ্রামবাসীর পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরো সংবাদ