১৫ অক্টোবর ২০১৯

গলাচিপায় মাইকিং করে ইলিশ মাছ বিক্রি

-

গত মঙ্গলবার মাইকিং করে মধ্য রাত পর্যন্ত গলাচিপায় বিভিন্ন স্থানে ইলিশ মাছ বিক্রি করা হয়েছে। গলাচিপা পৌরসভার থানার সামনে, বদনাতলী ও পানপট্টির লঞ্চঘাট এলাকায় হাজার হাজার উৎসুক জনতার ভিড় দেখা গেছে। নিষেধাজ্ঞার আগের দিন পর্যন্ত জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ মাছ ধরা পড়ে। বাজারগুলোতে ইলিশ মাছে সয়লাব। গত মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে ৩০ অক্টোবর রাত ১২টা পর্যন্ত মোট ২২ দিন বিভিন্ন অববাহিকায় মাছ ধরা নিষিদ্ধ করেছে মৎস্য বিভাগ। জাতীয় মাছ ইলিশের ভরা প্রজননে ডিমওয়ালা মাছ সংরক্ষণে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করে। একই সাথে ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরণ, বিক্রয় ও মজুদ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।
মোটরসাইকেলচালক আলামিন ও রাহাতসহ অনেকে জানান, গত মঙ্গলবার গলাচিপা উপজেলায় হাজী আ: ওহেদ মাইকিং করে অল্প দামে মাছ কেনার জন্য পানপট্টি লঞ্চঘাটে আহ্বান করেন। হাজার মানুুষ মাছ কিনতে সেখানে ভিড় জমান। ফলে সকালের চেয়ে সন্ধ্যায় অস্বাভাবিক দামে মাছ বিক্রি হয়। পানপট্টিতে হাজী আ: ওহেদ, দুলাল, শামীমসহ অনেকে ডাকের মাধ্যমে চড়া দামে মাছ বিক্রি করেছেন। এতে অনেকে ১০-১৫ কিলোমিটার দূরে পানপট্টিতে গিয়ে নিজের সাধ্যমতো দামে মাছ কিনতে না পেরে খালি হাতে ফিরে এসে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। সেখানে মানুষের তুলনায় মাছ ছিল কম। মাইকিং করায় অনেক লোকের সমাগম হওয়ায় প্রতারণার শিকার হয়েছেন বলে অনেকেই জানান।
হাজী আ: ওহেদ জানান, গলাচিপা থানার ক্যাশিয়ার রফিককে মৌখিকভাবে জানিয়ে বিভিন্ন স্থানে মাইকিং করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ আখতার মোর্শেদ জানায়, প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া মাইকিং করে লোক জমায়েত করা খুব অন্যায় এবং হাজী আ: ওহেদ কেন মানুষের সাথে প্রতারণা করল বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।


আরো সংবাদ