১৭ নভেম্বর ২০১৯

ইলিশ প্রজনন মৌসুম পাল্টেলেও, পাল্টায়নি নিষেধাজ্ঞার সময়

ইলিশ প্রজনন মৌসুম পাল্টেলেও, পাল্টায়নি নিষেধাজ্ঞার সময় - ছবি : সংগৃহীত

২২ দিন মা ইলিশ মাছ শিকারের উপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সরকার। ইলিশ প্রজনন মৌসুম ৯ অক্টোবর থেকে ৩১অক্টোবর পর্যন্ত জেলেদের মা ইলিশ শিকারের উপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। গতমাসে সাগরে প্রচুর মা ইলিশ ধরা পড়ছে। এসব ইলিশ ডিম ছাড়ার জন্য উপকূলের নদ-নদীতেও আসছে। আর বর্তমানে যে ইলিশ জেলেদের জালে ধরা পড়ছে তা একপ্রকার জাটকা। প্রজনন ডিন বিশেষজ্ঞ ও অভিজ্ঞ জেলেদের অভিমত প্রজনন মৌসুম পাল্টে গেছেন। কিন্তু সরকারে নিষেধাজ্ঞার সময় এখনও পাল্টায়নি।

বিষেশজ্ঞদের মতে প্রজনন ঋতু নির্ধারণের ক্ষেত্রে স্ত্রী মাছের জিএসআই পরিমাপ পদ্ধতি। জিএসআই হলো মাছের ডিমের ওজন ও দেহের ওজনের অনুপাতের শতকরা হার। সাধারণত প্রজনন ঋতুতে ডিমের আকার বড় হতে থাকে বলে জিএসআই বাড়তে থাকে এবং ভরা প্রজনন মৌসুমে গিয়ে তা সর্বোচ্চ হয়। প্রজনন ঋতুতে পূর্ণিমা ও অমাবস্যার সময়ে বিগত পাঁচ বছরের জিএসআইর পরিমাপ থেকে দেখা গেছে, বাংলাদেশে ইলিশ সাধারণত সেপ্টেম্বর মাসের মাঝামাঝি থেকে শুরু করে অক্টোবরের শেষ পর্যন্ত প্রজনন করে। সেপ্টেম্বরের শেষ ভাগে জিএসআই ১০-১১ থেকে বাড়তে বাড়তে অক্টোবরের মাঝামাঝি কিংবা শেষের দিকে এসে সর্বোচ্চ ১৫-১৭ পর্যন্ত পৌঁছায় এবং নভেম্বরে এসে তা হঠাৎ করে কমে যায়। ১৫-১৭ জিএসআই ইলিশের ভরা প্রজনন মৌসুম নির্দেশ করে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ বছর প্রজনন মৌসুম শুরু হবে অক্টোবরের প্রথম দিকে। এজন্য শিকারে নিষেধাজ্ঞা হওয়া উচিত ছিলো সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি থেকে শুরু করে।

সরকারিভাবে চান্দ্র মাসের ভিত্তিতে প্রধান প্রজনন মৌসুম ধরে এ বছর আশ্বিন মাসের প্রথম চাঁদের পূর্ণিমার দিন এবং এর আগে চার ও পরের ১৭ দিনসহ মোট ২২ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ থাকবে। সেই হিসেবে ইলিশের প্রজনন মৌসুম ৯ অক্টোবর শুরু।

অনেক অভিজ্ঞ জেলেদের মতে ইলিশ প্রজনন মৌসুম মুলত শুরু হয়েছে সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে শুরু করে অক্টোম্বর মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত। এই সময়ে মা ইলিশ ডিম ছাড়ার জন্য উপকুলের নদ-নদীতে আসে। কিন্তু পুরো সেপ্টেম্বর জুড়ে সাগড়ে মা ইলিশ ধরা পরেছে। ওই ইলিশ গুলোই ডিম ছাড়ার জন্য স্বাধু পানির নদ-নদীতে প্রবেশ করার উপযুক্ত সময় ছিল সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহে। কিন্তু সরকার প্রজনন মৌসুমের মাঝামাঝি সময়ে এসে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

বড়–ন দাস, সোনাদাস, আলম তালুকদার ও আবদুল হক মৃধা বলেন, গত ১৫ দিন থেকে নদীতে প্রচুর মা ইলিশ ধরা পরেছে। গতএক সপ্তাহ ধরে নদীতে জাটকা ইলিশ ধরা পরেছে। বর্তমানে প্রজনন মৌসুম হলেও প্রজননক্ষম তেমন বড় ইলিশ জেলেদের জালে ধরা পরছে না। তারা আরো বলেন, ধারনা করা হচ্ছে সেপ্টেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে প্রজননের উপযুক্ত সময় ছিল।

বরগুনা জেলা মৎস্য অফিসার মো: আবুল কালাম আজাদ নয়াদিগন্তকে বলেন, ইলিশ সারা বছরই ডিম ছাড়ে। কিন্তু সবচেয়ে বেশী ডিম ছাড়ে আশ্বিনের বড় পুর্ণিমা ও আমাবশ্যায়। তাই উপযুক্ত সময়েই নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন সরকার।

এবিষয়ে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ ও প্রজনন বিভাগের বিষেশজ্ঞ ড. আবুল কাসেম চৌধুরী নয়াদিগন্তকে বলেন, আশ্বিন মাসের বড় পুর্ণিমায় মা ইলিশ সবচেয়ে বেশী ও পরিপক্ক ডিম ছাড়ে। ওই বড় পূর্ণিমার দিন পরেছে ১৩ অক্টোবর। আবার একই মাসের আমবশ্যায় বেশী ও পরিপক্ক ডিম ছাড়ে। ওই আমবশ্যার দিন পরেছে ২৮ অক্টোবর। বড় পুর্ণিমা ও আমবশ্যার তারিখ ঠিক রেখে সরকার ৯ অক্টোবর থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত মা ইলিশ ডিম ছাড়ার সময় নির্ধারণ করেছে। সেই হিসেবে ২২ দিন মাছ ধরা নিষিদ্ধ।


আরো সংবাদ