০৭ ডিসেম্বর ২০১৯

বরগুনায় লবণ কেনার হিড়িক, গুজব ঠেকাতে প্রশাসনের মাইকিং

-

বরগুনার ৬ উপজেলা- বরগুনা সদর, আমতলী, বামনা, পাথরঘাটা, বেতাগী ও তালতলীতে লবণের দাম বৃদ্ধি নিয়ে চলছে গুজব। বাস্তবে লবণের দাম না বাড়লেও লবণ নিয়ে মানুষের মাঝে চলছে নানা আলোচনা। মঙ্গলবার দুপুর থেকে লবণের দাম বাড়ার গুজব ছড়ায় একটি মহল। আর এ গুজব ছড়িয়ে পড়ে থাকে জেলার বিভিন্ন হাট-বাজার থেকে শুরু করে গ্রামে-গঞ্জে। এ গুজবে সকল উপজেলায় ব্যবসায়ীরা লবণের নির্ধারিত দামের চেয়ে কেজি ৮০ থেকে ১৫০ টাকার বেশি দামে লবণ বিক্রি করেছেন। লবণের দাম বাড়ার খবর পেয়ে সাধারণ মানুষ আতংকিত হয়ে দোকানে দোকানে লবণ কিনতে ভিড় করছেন।

গুজব ছড়িয়ে পড়লে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বিভিন্ন হাট-বাজারে লবণ বেশি দামে বিক্রি শুরু করে। এতে সাধারণ মানুষের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। লবণের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে এমন খবরে সাধারণ মানুষ মুদি দোকানগুলোতে লবণ ক্রয়ের জন্য ভিড় জমাচ্ছেন। হঠাৎ মানুষের মুখে মুখে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সয়লাব হয়ে যায় লবণের দাম বৃদ্ধির খবর।

বরগুনা বাজারের ব্যবসায়ী হারুন অর রশিদ বলেন, আমরা ন্যায্য মূল্যে লবণ বিক্রি করছি। পাইকারী বাজারে লবণের দাম বৃদ্ধি পায়নি। গুজবের কারণে লবণ বিক্রি কয়েকগুন বৃদ্ধি পেয়েছে।

জেলা প্রসাশন সূত্র জানান, যারা গুজব ছড়ায় ও লবনের দাম বৃদ্ধি করে বিক্রি করে তাদের সতর্ক করে মাইকিং করা হয়েছে। কোনভাবে কেউ লবণ মজুদ করতে পারবে না। আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন স্থানে মোবইল কোর্ট চলমান আছে।

বরগুনা জেলা প্রশাসক মো.মোস্তাইন বিল্লাহ মঙ্গলবার সন্ধায় সংবাদ সম্মেলনে বলেন, লবন সংকট কিংবা দাম বৃদ্ধি পেয়েছ এসব গুজব সম্পুর্ণ গুজব, কেউ গুজব ছড়ালে বা বেশি দামে লবন বিক্রি করলে বা কৃত্রিম সংকট তৈরির চেষ্টা করলে জেল দেয়া হবে। এছাড়া তিনি এসব গুজব এমনই ফেইসবকেও স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

 


আরো সংবাদ