২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

সূচকের বড় উত্থানে লেনদেন ৫০০ কোটি টাকা পার

মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো প্রভিশন রাখতে পারবে ২০২২ পর্যন্ত
-

আবারো বড় উত্থানের ধারায় ফিরেছে দেশের পুঁজিবাজার। আগের দিনের ধারাবাহিকতায় গতকালও বড় উত্থান হয়েছে দেশের দুই পুঁজিবাজারে। এ দিন উভয় শেয়ারবাজারের সব সূচক বেড়েছে। একই সঙ্গে বেড়েছে টাকার পরিমাণে লেনদেন এবং বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর। এর মধ্য দিয়ে চলতি সপ্তাহে পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে চার দিনই উত্থানে পার করেছে পুঁজিবাজার। গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রধান সূচক বেড়েছে ৭৪ পয়েন্ট। আর চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) প্রধান সূচক বেড়েছে ২৩৭ পয়েন্ট। গতকাল ডিএসইতে দেড় মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে। এ দিন লেনদেন ৫০০ কোটি টাকার ঘর পার করেছে।
বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, শেয়ারবাজারের ভয়াবহ পতনের মধ্যে গত ১৬ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করা এবং বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) পক্ষে দীর্ঘ ও স্বল্পমেয়াদি বিভিন্ন পদক্ষেপ ঘোষণার পর এ ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা ফিরে আসে।
১৬ জানুয়ারি থেকে গত সোমবার পর্যন্ত টানা তিন কার্যদিবস ডিএসই ও সিএসইতে সূচকের বড় উত্থান হয়। এরপর মঙ্গলবার দুই বাজারেই সূচকের কিছুটা পতন হয়। সেই সঙ্গে কমে লেনদেনের পরিমাণ। তবে বুধবার আবার ঊর্ধ্বমুখী ধারায় ফেরে শেয়ারবাজার। গতকাল লেনদেনের শুরুতে শেয়ারবাজারে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতার আভাস পাওয়া যায়। লেনদেন শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার প্রবণতা অব্যাহত থাকে। ফলে সব কটি মূল্য সূচকের বড় উত্থান হয়।
দিনভর ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া ২৮০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। বিপরীতে কমেছে ৪৪টির। অপরিবর্তিত রয়েছে ৩২টির দাম। বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার ফলে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ৭৩ পয়েন্ট বেড়ে চার হাজার ৫১৩ পয়েন্টে উঠে এসেছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ সূচক ২৩ পয়েন্ট বেড়ে এক হাজার ৫৪৩ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আর ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক ১৬ পয়েন্ট বেড়ে এক হাজার ৩৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।
এ দিকে সূচকের সঙ্গে বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার পাশাপাশি ডিএসইতে বেয়েছে লেনদেনের পরিমাণ। গত ১ ডিসেম্বরের পর ডিএসইতে আবারও ৫০০ কোটি টাকার ওপরে লেনদেন হয়েছে। দিনভর ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৫১৪ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ৪৩৮ কোটি ৪২ লাখ টাকা। সে হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ৭৫ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সব থেকে বেশি লেনদেন হয় লাফার্জাহোলসিমের শেয়ার। কোম্পানিটির ৩১ কোটি ২২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১৯ কোটি ২৬ লাখ টাকার। ১৪ কোটি তিন লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে খুলনা পাওয়ার। এ ছাড়া লেনদেনের শীর্ষ ১০ কোম্পানির মধ্যে রয়েছেÑ বীকন ফার্মাসিউটিক্যাল, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলস, এসএস স্টিল, পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্স, এসকে ট্রিমস, ন্যাশনাল টিউবস এবং কর্ণফুলী ইন্স্যুরেন্স।
অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এ দিন ২৩৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩ হাজার ৭৭১ পয়েন্টে। এ দিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৬৫টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ারদর বেড়েছে ২০৮টির, কমেছে ৩১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৬টির। গতকাল সিএসইতে ১৬ কোটি ৮১ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।
প্রভিশন সংরক্ষণ : মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোকে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ থেকে অনাদায়ী ক্ষতির বিপরীতে প্রভিশন সংরক্ষণে আরো দুই বছর সময় দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে নিয়ন্ত্রণ সংস্থাটি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ নিয়ে সপ্তমবারের মতো মার্চেন্ট ব্যাংকের প্রভিশন সংরক্ষণের সময় বাড়ানো হলো। বিএসইসির চেয়ারম্যান খায়রুল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ৭১৫তম কমিশন সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
মার্চেন্ট ব্যাংকের নিজস্ব ও গ্রাহকের পোর্টফোলিওতে পুনঃমূল্যায়নজনিত অনাদায়ী ক্ষতির বিপরীতে প্রভিশন সংরক্ষণের এ সুযোগ চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর শেষ হওয়ার কথা ছিল। নতুন সময় বাড়ানোয় এ সময়সীমা নির্ধারিত হলো ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।
মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোকে অনাদায়ী ক্ষতির বিপরীতে প্রভিশন রাখার সুযোগ প্রথমে দেয়া হয় ২০১৩ সালে। সে সময় বিএসইসি থেকে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বলা হয়, মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো এখন পুনঃমূল্যায়নজনিত ক্ষতির ক্ষেত্রে নিয়মানুযায়ী ১০০ ভাগের পরিবর্তে ২০ শতাংশ হারে প্রভিশন রাখতে পারবে। তবে তা ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বর থেকে ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সমান পাঁচটি ত্রৈমাসিক অংশে রাখতে হবে। এ সুযোগ পরে আরো কয়েক ধাপে বাড়ানো হয়।

 


আরো সংবাদ