২৬ মার্চ ২০১৯

মিলে মিশে প্রচারণা চালাবেন দুই নায়িকা

ভারতে পুরোদমে শুরু হয়ে গেছে নির্বাচনী আবহ। বিভিন্ন দল তাদের প্রার্থী ঘোষণা করতে শুরু করেছে। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি একেবারে শুরুর দিকেই দলের প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করে দিয়েছে। তাতে টালিগঞ্জ থেকে টেনে নিয়েছেন চারজনকে। আগের দুই অভিনেতা-অভিনেত্রীর পাশে এবার নাম ঘোষণা করেছেন মিমি চক্রবর্তী-নুসরাত জাহানেরও।

দুইজনেরই প্রত্যাশা ছিল। তারপরও নাম ঘোষণায় চমকে উঠেছেন তারা। অবশ্য ইতোমধ্যেই তারা এ ব্যাপারে জবাব দিতে শুরু করেছেন। বলেছেন, ক্যারিয়ারের সাথে রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ায় খুব একটা সমস্যার আশঙ্কা করছেন না তারা। অন্যদের মতো তারাও মানিয়ে নিতে পারবেন।

তবে যেহেতু তারা একই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করেন, তাই একই দল থেকে হওয়া সত্ত্বেও তাদের মধ্যেই একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতা কাজ করবে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন থাকছেই। তবে এ আশঙ্কা উড়িয়েই দেন মিমি। তিনি বলেন, প্রচারের ব্যাপারে ইতিমধ্যেই নুসরাতের সঙ্গে প্ল্যান সেরে ফেলেছেন মিমি।

প্রথমবারের মতো প্রার্থী হয়ে খুবই এক্সাইটেড মিমি। তিনি বলেন, সংসদ সদস্যদের সঙ্গে আলাপ হল। খুব এক্সাইটেড আমি। কারণ এটা অন্য একটা জগত! অনেক চ্যালেঞ্জ। সবাই জানে আমি চ্যালেঞ্জ নিতে ভালবাসি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যেসব সমালোচনা হচ্ছে, সে ব্যাপারে মিমি বলেন, মানুষকে ভালবেসে তাদের উপকারে এলে মানুষ নিশ্চয়ই আমার পাশে থাকবেন। এটা আমার দৃঢ় বিশ্বাস। আমি তো কাজ পাগল মানুষ। দলের নির্দেশে কাজ করব।

দেবকে তিনি তার অনুপ্রেরণা উল্লেখ করে বলেন, নির্বাচনে জয়ী হলে কী হবে এ ব্যাপারে আমার কোনো ধারণা নেই। আমি তা নিয়ে চিন্তাও করিনি।

দুই নায়িকা এবারের নির্বাচনে, কী হতে পারে অবস্থাটা? এ ব্যাপারে মিমি বলেন, নুসরাতের সাথে এ ব্যাপারে প্ল্যান সেরে ফেলেছি। নুসরাতের এলাকায় তার হয়ে আমি প্রচার করব আর আমার এলাকায় ও আমার সঙ্গে থাকবে। ফলে কাজটা করতে মজাই হবে।

 

আরো পড়ুন : মমতার প্রার্থী ঘোষণায় দ্বিগুণ চমক
নয়া দিগন্ত অনলাইন,  ১৩ মার্চ ২০১৯, ১১:০৭

সামনেই লোকসভা নির্বাচন। একে কেন্দ্র করে পশ্চিমবঙ্গের বিয়াল্লিশটি আসনে প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেছেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা ব্যানার্জি। গতবারের প্রার্থী তালিকায় যেমন টালিউডের তারকা অভিনেতা দেবকে এনে চমক দিয়েছিলেন এবারও তার ব্যতিক্রম করেননি। বরং অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী ও নুসরাত জাহানের নাম ঘোষণা করে বলা যাচ্ছে দ্বিগুণ চমকই দিয়েছেন তিনি। আগেরবারের দেব ও শতাব্দী রায় রয়েছেন যথারীতি।

মমতা ব্যানার্জি বারবারই বলেছেন, এ বারের লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গ থেকে বিয়াল্লিশটি আসনে জয়লাভ করাই তার লক্ষ্য। যদিও বিজেপির প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখে কতটা সফল হন মমতা তা দেখতে অপেক্ষা করতেই হচ্ছে ২৩ মে পর্যন্ত। ওই দিনই জানা যাবে পুরো ভারত মাসদেড়েকজুড়ে অনুষ্ঠিত হওয়া নির্বাচনের ফলাফল।

নুসরাত নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারেন, এমন কথা প্রায় এক বছর ধরেই শোনা যাচ্ছিল। তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের খুবই প্রিয় পাত্রী। তার ঘনিষ্ঠ বৃত্তে অবশ্য মিমিও রয়েছেন। তবে সরাসরি লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থী হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণায় অবাক হয়েছেন অনেকেই। মিমি-নুসরাতের ব্যাপারটি জানতেন কি না তা প্রশ্ন করা হলে দেব হাসতে হাসতে জবাব দেন, ‘আমি নিজের খবরটাই জানতাম না, ওদেরটা জানব কী ভাবে?’

নাম ঘোষণায় মিমি-নুসরাতের প্রতিক্রিয়া
লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে নাম ওঠার ব্যাপারে মিমি বলেন? এটা অপ্রত্যাশিত! তবে দিদি যখন আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন, চেষ্টা করব সেটা পালনের। আমি এখন থেকেই তৈরি।

কিন্তু ক্যারিয়ারের কী হবে? এ প্রশ্নের জবাবে মিমি বলেন, সারা জীবন মাল্টিটাস্কিং করে এসেছি। দুটো দিক সামলাতে অসুবিধে হবে না।
অন্যদিকে নুসরাত ফোনে বলেন, শুনে আমিও গিয়েছি। মানিয়ে নিতে সময় লাগবে। তবে মানুষের পাশে থাকতে চাই, মানুষের জন্য কাজ করতে চাই।

এদিকে এ দুজনকে যারা চেনেন, তারা মূল্যায়ন করেন এভাবে, জনসংযোগ, ব্যবহার ও পেশাদারিত্বের প্রশ্নে মিমি অনেক বেশি নম্বর পাবেন। অন্যদিকে নুসরাতও খুব অল্প সময়ে কাউকে আপন করে নিতে পারেন।


আরো সংবাদ