১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

খালেদা জিয়ার দ্রুত উন্নত চিকিৎসা দরকার : রিজভী রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে ব্যর্থ সরকার

নয়াপল্টনে গতকাল বিএনপির ব্রিফিং : নয়া দিগন্ত -

দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থÑ দাবি করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, কারাগারে যথাযথ চিকিৎসা না দিয়ে তাকে চিরতরে পঙ্গু করে দেয়ার ষড়যন্ত্র করছে সরকার। বিনা চিকিৎসায় তাকে সুপরিকল্পিতভাবে হত্যার চক্রান্ত চলছে। সব কিছু জেনেও তাকে রোগে-শোকে কষ্ট দেয়ার জন্যই তার চিকিৎসায় বাধা দেয়া হচ্ছে। সুচিকিৎসার অভাবে ৭৫ বছর বয়স্ক ও তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রীর শারীরিক অবস্থা দিন দিন অবনতি ঘটছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
রিজভী বলেন, পিজি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য সম্পর্কে সরকারের শেখানো বক্তব্য ও ব্যাখ্যা দিলেও সুচিকিৎসার কোনো পদক্ষেপই নেয়নি। গত এক সপ্তাহে কোনো চিকিৎসক তাকে দেখতে যাননি। তার হাতে যে ব্যথা ছিল তা পা পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে। সারা শরীরে প্রচণ্ড ব্যথা। ডান পায়ের গোড়ালিতে একটা ফোঁড়ার কারণে সেই যন্ত্রণা আরো তীব্রতর হয়েছে। অথচ সরকারি চিকিৎসকরা দেশনেত্রীকে চিকিৎসা দিচ্ছেন না। তার জরুরি ভিত্তিতে উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। দেশবাসী তার অসুস্থতা নিয়ে উৎকণ্ঠায় থাকলেও স্বাস্থ্যের সঠিক অবস্থা জনগণের সামনে প্রকাশ করছে না সরকার। বেগম জিয়ার রিউমেটোয়েড আরথ্রাইটিসের জন্য গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের চেয়ারম্যান এখনো কোনো মতামত দিচ্ছেন না। অথচ তিনজন চিকিৎসকের সমন্বয়ে বোর্ডের যে রিপোর্ট সেটিও প্রকাশ করা হচ্ছে না। মেডিক্যাল বোর্ডের চেয়ারম্যান তার বোর্ডের অপর তিনজন সদস্যকে নিয়ে অদ্যাবধি কোনো মিটিং করেননি। মেডিক্যাল বোর্ডের চেয়ারম্যান কী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা অন্যান্য সদস্যদেরকে জানাচ্ছেন না।
তিনি বলেন, বুধবার দেশনেত্রীর সাথে তার ভাই- বোনেরা সাক্ষাৎ করে তার গুরুতর অসুস্থতায় গভীর উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা প্রকাশ করেছেন। দেশনেত্রী হাইলি অ্যাক্টিভ ডিফরমিং, রিউমেটোয়েড আরথ্রাইটিস, অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশনসহ বিভিন্ন জটিল রোগে ভুগছেন। যথাযথ চিকিৎসা ও পরিচর্যা না হওয়ার কারণে তার হাত ও পায়ের ছোট ছোট জয়েন্টসহ বিভিন্ন জয়েন্ট ফুলে গেছে এবং তাতে তীব্র ব্যথা অনুভূত হচ্ছে। উঠতে-বসতে পারছেন না। জয়েন্টগুলো শক্ত হয়ে যাচ্ছে, যা অচিরেই স্থায়ী রূপ ধারণ করতে পারে। হাত, পায়ের আঙুল বেঁকে যাচ্ছে। নিজ হাতে কিছু খেতেও পারছেন না। এসব জটিল ও গুরুতর রোগ নিয়ে সরকারের মন্ত্রী ও নেতারা উপহাস করছেন। তারা জনপ্রিয় দেশনেত্রীর জীবনকে নিঃশেষ করে দেয়ার সব আয়োজনে ব্যস্ত রয়েছে। সে জন্য তার চিকিৎসার অধিকারটুকুও কেড়ে নেয়া হয়েছে। সরকার প্রতিহিংসার বশে বেগম খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিতেই সুচিকিৎসা প্রদানে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে। সরকারের টালবাহানায় খালেদা জিয়ার কোনো ক্ষতি হলে এর পরিণতি ভালো হবে না। এখনো সময় আছে চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র বন্ধ করুন।
রিজভী বলেন, সংসদে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘রোহিঙ্গা সমস্যা জিয়াউর রহমানের সৃষ্টি’। আসলে রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে নিজেদের দুর্বলতা ও ব্যর্থতার গ্লানি ঢাকতেই প্রধানমন্ত্রী আজগুবি কথা বলছেন। ইতিহাস ও দেশের জনগণ সাক্ষী, মিয়ানমার বারবার রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে বাংলাদেশের দিকে ঠেলে দিয়ে সমস্যা সৃষ্টি করতে চেয়েছিল। কিন্তু ’৭৮ সালে সেটি শক্ত হাতে মোকাবেলা করেছেন শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান। ’৯২ সালেও রোহিঙ্গা সঙ্কট কঠোর ও সফলভাবে মোকাবেলা করেছেন বেগম খালেদা জিয়া। অথচ জনগণের ম্যান্ডেটবিহীন বর্তমান সরকারের মনোবল এতটাই দুর্বল যে, তারা কোনো কূটনৈতিক প্রচেষ্টাই চালাতে পারছেন না। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে ব্যর্থতায় প্রমাণিত হয়েছেÑ এই সরকার বন্ধুহীন হয়ে পড়ছে। সে জন্যই প্রধানমন্ত্রী নিজের ব্যর্থতা আড়াল করতে অন্যের সফলতা নিয়ে অবান্তর কথা বলছেন। আমরা বলেছি রোহিঙ্গা সঙ্কট দলীয়ভাবে দেখার বিষয় নয়, এটা জাতীয় সঙ্কট, যা বাংলাদেশের অস্তিত্বের প্রশ্ন। ফলে জাতীয় সংলাপ ডাকুন। বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে সংলাপে বসুন। রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে তার অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগান।

 


আরো সংবাদ

মুক্তিযোদ্ধাদের চূড়ান্ত তালিকা ২৬ মার্চ যেকোনো মূল্যে ব্যাংকের আত্মসাৎকৃত টাকা আদায় করতে হবে : হাইকোর্ট টিকিট নিয়ে অনিয়মের অভিযোগে স্টেশন মাস্টারসহ ৪ জন বরখাস্ত আটাবে সম্মিলিত ফোরাম পূর্ণ প্যানেলে বিজয়ী সংগ্রাম সম্পাদক ও সাংবাদিক নেতাদের মামলা প্রত্যাহারে ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম গ্রাম পুলিশকে জাতীয় বেতন স্কেলে অন্তর্ভুক্তির নির্দেশ হাইকোর্টের ট্রাইব্যুনালে মানবপাচার মামলা নিয়ে হাইকোর্টের রুল ছেলের বাইকে বাসের ধাক্কা : মায়ের মর্মান্তিক মৃত্যু মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির ২৩ নেতার আগাম জামিন বিজয় দিবস উপলক্ষে সাহিত্য সংস্কৃতি কেন্দ্রের প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ স্টেট ইউনিভার্সিটির ফার্মা ক্যারিয়ার ফেয়ার

সকল