১৯ অক্টোবর ২০১৯

আগামী ৪ দিন ভারি বর্ষণ ও বন্যা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা

ইউরোপীয় ইউনিয়নের স্যাটেলাইটে বাংলাদেশের আকাশ - ছবি: সংগৃহীত

রংপুর, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের জেলাগুলোতে আগামী চার দিন ভারি বৃষ্টিপাত ও যমুনা নদীর তীরবর্তী জেলাগুলোতে বন্যার সমূহ সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে।

আজ শুক্রবার রাত থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত চার দিন গঙ্গা, পদ্মা ও ব্রহ্মপুত্র নদের অববাহিকায় অস্বাভাবিক রকমের ভারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের আবহাওয়া পূর্বাভাস মডেল ইসিএমডব্লিউএফ।

কানাডা থেকে আবহাওয়া বিষয়ে পিএইচডি গবেষক মো: মোস্তফা কামাল জানিয়েছেন, ব্রহ্মপুত্র নদের অববাহিকার সকল বৃষ্টির পানি তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদের মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। ইতোমধ্যে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে অতিক্রম করছে। আগামী চার দিন অব্যাহত বর্ষণের সকল পানি বাংলাদেশে প্রবেশ করা শুরু করলে যমুনা নদীর দুই তীরের জেলাগুলোতে বন্যার পানিতে প্লাবিত হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের আবহাওয়া পূর্বাভাস মডেল অনুসারে, আজকে মধ্যরাতের পর থেকে রংপুর বিভাগের জেলাগুলো ও সিলেট জেলায় ভারি বৃষ্টিপাত হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। শনিবার ভোরে চট্টগ্রাম বিভাগের জেলাগুলোতে ভারি বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। আজ শুক্রবার মধ্যরাত থেকে আগামী রোববার দুপুর পর্যন্ত চট্টগ্রাম বিভাগের জেলাগুলোতে সারাদিন বৃষ্টিপাত হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। শনিবার দুপুরে বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলাগুলোতে ভারি বৃষ্টিপাত হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে।

বাংলাদশে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যার পূর্বাভাস ও সর্তকীকরণ কেন্দ্র আগামী ২৪ ঘন্টার পূর্বাভাসে জানিয়েছে, দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চল এবং এর সংলগ্ন ভারতের সিকিম, আসাম ও মেঘালয় প্রদেশসমুহের বিস্তৃত এলাকায় আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘন্টায় মাঝারী থেকে ভারি এবং কোথাও কোথাও অতিভারি বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল সংলগ্ন ভারতের বিহার ও নেপালে ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী ২৪ ঘন্টায় বাহাদুরাবাদ পয়েন্ট, চিলমারী ও গাইবান্ধার ফুলছড়ি পয়েন্ট, ধরলা নদীর কুড়িগ্রাম পয়েন্ট এবং তিস্তা নদীর কাউনিয়া পয়েন্ট বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে।

আাগামী ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রাম, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের সুরমা, কুশিয়ারা, কংস, সোমেশ্বরী, ফেনী, হালদা, মাতামুহুরী ও সাঙ্গুসহ প্রধান নদীসমুহের পানি দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে। আগামী ২৪ ঘন্টায় নেত্রকোনা, সুনামগঞ্জ, সিলেট, চট্টগ্রাম, বান্দরবান ও লালমনিরহাট জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে।


আরো সংবাদ