২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বাংলাদেশ সিরিজকে বিশ্বকাপের সুযোগ হিসেবে দেখছেন হাফিজ

নিজ মাঠে বাংলাদেশের বিপক্ষে আসন্ন তিন ম্যাচ টি-২০ সিরিজে পাকিস্তান দলে জায়গা পেয়েছেন অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজ। আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের আগে বাংলাদেশ সিরিজকেই অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-২০ বিশ্বকাপের অডিশন হিসেবে দেখছেন অভিজ্ঞ এ অলরাউন্ডার।

সংক্ষিপ্ত ভার্সনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২০১৮ সালে সর্বশেষ খেলা হাফিজ বাংলাদেশের বিপক্ষে আগামী শুক্রবার লাহারে শুরু হওয়া তিন টি-২০ সিরিজের দলে পুনরায় ডাক পেয়েছেন। কিউই সিরিজে ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। তবে টি-২০ র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষে থাকা পাকিস্তান নির্বাচকরা গত বছর হাফিজকে বিবেচনা করেননি। গত এক বছর নয়টির মধ্যে আটটিতে পরাজিত হয় পাকিস্তান ।

হাফিজ বলেন, ‘আমার ব্যক্তিগত পরিকল্পনা হচ্ছে ফিটনেস ও পারফরমেন্সের ভিত্তিতে আমি পাকিস্তানের হয়ে খেলব। আমি আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপ খেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিতে চাই।’

আগামী অক্টোবরে অস্ট্রেলিয়ায় শুরু হবে টি-২০ বিশ্বকাপ। পুনরায় ডাক পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী ছিলেন ৩৯ বছর বয়সী হাফিজ এবং তার দলের তরুণ তুর্কিদের তিনি সাহায্য করতে পারতেন। তিনি বলেন, ‘সত্যি বলতে দলে জায়গা পাওয়াটা বিস্ময়ের কিছু নয়, কেননা আমি দলের জন্য সব সময়ই প্রস্তুত। দলে সিনিয়রদের তুলনায় এখন অনেক বেশি তরুণ খেলোয়াড় রয়েছে। সুতরাং তাদেও সঙ্গে অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করাটা আমাদেও জন্য দারুন এ ব্যপার হবে।’

অবৈধ বোলিং এ্যাকশনের কারণে বাংলাদেশের বিপক্ষে কেবলমাত্র ব্যাটসম্যান হিসেবেই খেলতে হবে হাফিজকে। গত আগস্টে ইংল্যান্ড সফরে তার এ্যাকশন নিয়ে প্রশ্ন ওঠার পর গত সপ্তাহে তার বোলিং নিষিদ্ধ করা হয়। পাকিস্তানের হয়ে ৮৯ ম্যাচে ৫৪ উইকেট শিকার করা এ অফ স্পিনার বোলিং করাটা মিস করবেন বলেও জানান।

হাফিজ বলেন, ‘আমি পুনরায় পরীক্ষা দিতে প্রস্তুত এবং এ জন্য অপেক্ষা করছি। আশা করছি খুব শিগগিরই এটা হবে।’

২০০৩ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হওয়ার পর পাকিস্তানের হয়ে ৫৫ টেস্ট ও ২১৮টি ওয়ানডে ম্যাচও খেলেছেন হাফিজ। সূত্র : বাসস।


আরো সংবাদ