রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে রোডম্যাপ দেয়ার আহবান ওআইসি মহাসচিবের

কূটনৈতিক প্রতিবেদক

রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের বাংলাদেশ থেকে ফিরিয়ে নিতে রোডম্যাপ দেয়ার জন্য মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ইসলামি সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) মহাসচিব ইউসেফ বিন আহমাদ আল-অথাইমিন।

তিনি একইসাথে রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের কক্সবাজার থেকে নোয়াখালীর ঠেঙ্গার চরে সরিয়ে নেয়ার বাংলাদেশ সরকারের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন।

এসব শরণার্থীদের মিয়ানমারের নাগরিকত্ব দেয়ার ওপর মহাসচিব গুরুত্বারোপ করেছেন।

আজ বৃহস্পতিবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সাথে সাক্ষাত শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি একথা বলেন।

ওআইসি মহাসচিব চারদিনের সফরে বুধবার মধ্যরাতে ঢাকা এসে পৌঁছান।

আজ তিনি রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন।

রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের অবস্থা সরেজমিন পর্যবেক্ষণ ও স্থানীয় প্রশাসন এবং আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর সাথে আলোচনার জন্য ইউসেফ বিন আহমাদ আগামীকাল কক্সবাজার যাবেন।

মহাসচিব বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যা শুধু বাংলাদেশের সমস্যা না, এটি গোটা মুসলিম বিশ্বের সমস্যা। তাই শুধু মানবিক সাহায্য নয়, তাদের রাজনৈতিক সমস্যা সমাধানের জন্যও আমাদের কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দিতে হবে। কারণ তাদের দেশ মিয়ানমার। আমরা এটি সমর্থন করি।

ওআইসির মহাসচিব বলেন, বাংলাদেশসহ প্রতিবেশী দেশগুলো মিয়ানমার সরকারের সাথে আলোচনায় বসতে প্রস্তুত। সামনের দিনগুলোতে কিভাবে অগ্রসর হওয়া যায় সে লক্ষ্যে মিয়ানমার সরকারের একটি রোডম্যাপ দেয়া উচিত।

রোহিঙ্গাসহ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের অবস্থা পর্যবেক্ষণে মিয়ানমারে একাধিক প্রতিনিধিদল পাঠানোর জন্য জাতিসঙ্ঘকে ধন্যবাদ জানিয়ে ইউসেফ বিন আহমাদ বলেন, বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের জন্য পৃথক দ্বীপের ব্যবস্থা করার সিদ্ধান্তকে আমরা স্বাগত জানাই। এটি একটি ভালো উদ্যোগ। এ দ্বীপে সব ধরনের নাগরিক সুবিধা থাকবে। এই প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করার জন্য আমি সব আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থাকে আহ্বান জানাচ্ছি।

এক প্রশ্নের জবাবে মহাসচিব বলেন, এখন বাংলাদেশেও সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটছে। সন্ত্রাস দমনে ওআইসি বাংলাদেশের পাশে আছে।

গত নভেম্বরে ওআইসি মহাসচিবের দায়িত্ব নেয়ার পর ইউসেফ বিন আহমাদের এটিই প্রথম বাংলাদেশ সফর।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.