নীলাদ্রী লেক, ইনসেটে নিহত ওয়াহিদ পলিন।
নীলাদ্রী লেক, ইনসেটে নিহত ওয়াহিদ পলিন।

তাহিরপুর নীলাদ্রী লেকে নিখোঁজ পর্যটকের লাশ

তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) সংবাদদাতা

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা সীমান্তের ডিসি নীলাদ্রী লেকে নিখোঁজ পর্যটক ওয়াহিদ পলিনের (২৮) লাশ তিনদিন পর ভেসে উঠেছে।

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৮টায় লেকের মাঝখানে ভাসমান অবস্থায় তার লাশ দেখতে পায় স্থানীয় লোকজন। খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। বাবা গোলাম মোস্তোফা সন্তানের লাশ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন। বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে লাশ দেখতে ছুটে আসে হাজার হাজার জনতা।

টাংগুয়ার হাওরের দায়িত্বে থাকা সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিট্রেট শাকিল আহমেদ জানান, নিখোঁজের পর থেকে গত দু’দিন পুলিশ, বিজিবি ও ডুবুরীদল প্রাণপন চেষ্টা চালিয়েও ডুবে যাওয়া পলিনের সন্ধান পায়নি। যেস্থানে পলিন ডুবে গেছেন সেই স্থান থেকে ৩০ গজ দূরে তার লাশ ভেসে উঠে সোমবার সকালে। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মৃত ওয়াহিদ পলিন (২৮) কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার সাংলাজুর গ্রামের মোস্তোফা কামালের ছেলে।

তিনি ঢাকায় বসুন্ধারা গ্রুপে চাকরি করতেন এবং থাকতেন মিরপুর ১৪ এর ডেসকো কোয়ার্টারে।

শুক্রবার সকালে সুনামগঞ্জ থেকে তাহিরপুর উপজেলার উদ্দেশে রওয়ানা হয়ে ট্যাকের নীলাদ্রী, বারেকটিলা, টাংগুয়ার হাওরসহ বিভিন্ন পর্যটন স্পট ঘুরে রাতে ট্যাকেরঘাটে অবস্থান করেন পলিন ও তার পাঁচ বন্ধু। শনিবার বেলা ২টার দিকে তারা সবাই মিলে নীলাদ্রী লেকে গোসল করতে নামেন। সাঁতার না জানায় পলিন লেকের কাছেই গোসল করেন। তবুও অসাবধানতাবশত তিনি গভীর পানিতে তলিয়ে যান।

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.