প্রশ্নের মুখে মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরোধ সক্ষমতা

রয়টার্স

মার্কিন সেনাবাহিনী বরাবরই দাবি করে আসছে, ইরান কিংবা উত্তর কোরিয়া তাদের দেশের ওপর ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালালে তা শনাক্ত করে ধ্বংস করে দেয়ার ক্ষমতা রয়েছে তাদের। তবে বিশ্লেষকেরা বলছেন, পরীক্ষামূলক ওই ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরোধী ব্যবস্থা সফল হলেও বাস্তব যুদ্ধক্ষেত্রে যে তা একই রকম কার্যকর না-ও হতে পারে।

কোটি কোটি মার্কিন ডলারের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সম্ভাব্য ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ঠেকাতে সফল হবেই, প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা তা মানতে নারাজ। ওয়াশিংটন-পিয়ংইয়ং উত্তেজনা যখন তুঙ্গে তখন উচ্চারণ করা হলো এ হুঁশিয়ারি। এর আগে পেন্টাগন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার সফল পরীক্ষা চালানোর দাবি করেছে। এসব পরীক্ষার সময় যুদ্ধের প্রকৃত পরিস্থিতি ফুটিয়ে তোলা হয়নি বলে প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন। অথচ মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে ১৮ বছর ধরে গবেষণা এবং এ ব্যবস্থা তৈরিতে চার হাজার কোটি ডলার ব্যয় করা হয়েছে।

মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা সংস্থা বা এমডিএ গত মে মাসে ১৮ দফা পরীক্ষা চালিয়ে ১০ বার সফল হয়েছে। আমেরিকাকে আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র থেকে রক্ষার জন্য ব্যবহৃত হয় গ্রাউন্ড-বেজড মিডকোর্স ডিফেন্স বা জিএমডি নামের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। জিএমডির জন্য চালানো এ পরীক্ষা সঠিকভাবে করা হয়নি বলে দাবি করা হয়েছে। এ পরীক্ষায় উত্তর কোরিয়ার হুমকির বিষয়টি সঠিকভাবে প্রতিফলিত হয়নি। পরীক্ষায় ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে ফাঁকি দেয়ার যেসব পদ্ধতি গ্রহণ করা হয় তা সঠিকভাবে প্রয়োগ করা হয়নি।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.