বগুড়ায় কিশোরী ধর্ষণ ও মা-মেয়ে নির্যাতন

এ মাসেই আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল হতে পারে : আসামিদের শাস্তি দাবি যুবলীগের

বগুড়া অফিস

বগুড়ায় শ্রমিক লীগ নেতা তুফান সরকার কর্তৃক কিশোরী ধর্ষণ ও পরে তার বাহিনীর হাতে মা-মেয়ে নির্যাতনের ঘটনায় সদর থানায় ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন আইনে দায়েরকৃত দু’টি মামলার তদন্তকাজ শেষপর্যায়ে বলে জানা গেছে। চলতি মাসেই আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) আবুল কালাম আজাদ। তিনি বলেছেন, এ ঘটনায় ধর্ষিত কিশোরীর নির্যাতিত মা বাদি হয়ে বগুড়া সদর থানায় তুফান সরকারকে প্রধান আসামি করে ১১ জনের বিরুদ্ধে দু’টি মামলা করেন। তদন্ত কর্মকর্তা জানান, মামলার আলামত, আসামিদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী, ধর্ষিতার মেডিক্যাল রিপোর্টসহ অন্যন্য তথ্যপ্রমাণাদি হাতে পৌঁছেছে। তাই শিগগিরই তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা যাবে বলে আশা করছি। এ দুই মামলার আসামিদের মধ্যে রয়েছে, তুফানের স্ত্রী আশা, বড়বোন পৌর কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকি, তুফানের ক্যাডার বাহিনীর সদস্য মুন্না, জিতু, শ^শুর রুনু, শাশুড়ি রুমি, আতিক, রুপম, শিমুল। তারা সবাই বর্তমানে বগুড়া কারা হেফাজতে রয়েছে। এ ছাড়া ভিকটিম কিশোরী রাজশাহী সরকারি সেফহোম ও তার মা রাজশাহী ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে নিরাপত্তা হেফাজতে রয়েছেন।
যুবলীগের সংবাদ সম্মেলন : দেশব্যাপী নিন্দিত এ ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেছে বগুড়া জেলা যুবলীগ। শনিবার বগুড়া প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে জেলা যুবলীগ সভাপতি শুভাশীষ পোদ্দার লিটন বলেন, বগুড়ায় বাণিজ্যমেলার নামে কাদের পৃষ্ঠপোষকতায় ও আয়োজনে মাসের পর মাস জুয়া, হাউজি চলে তা বগুড়াবাসীর অজানা নয়। তারাই এর সুবিধাভোগী। যুবলীগ এর বিরুদ্ধে রাজপথে সোচ্চার রয়েছে। তুফান সরকারকে প্রশয় দেয়ার অভিযোগে শহর যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদকের পদ থেকে তুফানের বড় ভাই মতিন সরকারকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.