আশুলিয়ায় ৫ নারী পোশাক শ্রমিককে ধর্ষণের ঘটনায় পিএম হারুন গ্রেফতার

আশুলিয়া (ঢাকা) সংবাদদাতা

রাজধানী লাগোয়া শিল্পাঞ্চল আশুলিয়ায় পাঁচ নারী শ্রমিককে ধর্ষণের ঘটনায় প্রোডাকশন ম্যানেজার (পিএম) হারুন অর রশিদকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার রাতে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে পিএম হারুনের নিজ বাড়ি নোয়াখালী জেলার কবিরহাট সংলগ্ন মিরেরহাট মালিপাড়ায় বড় ভাই ফারুকের বাড়ি থেকে আশুলিয়া থানা পুলিশের উপপরিদর্শক মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল তাকে গ্রেফতার করে। হারুন ওই এলাকার মকবুল হোসেনের ছেলে।

পিএম হারুন আশুলিয়ার নরসিংহপুর এলাকার অন্বেষা স্টাইল ইউনিট-২ (ঘটনার পর কারখানাটির নাম পরিবর্তন করে বর্তমান নাম আশুলিয়া ফ্যাশন) কারখানার পিএমের অফিস কক্ষে দীর্ঘ দিন যাবৎ পোশাক কারখানাটিতে চাকরিরত সুন্দরী অবিবাহিত নারীদের ডেকে নিয়ে হনুফা নামে এক নারীর সহায়তায় পাঁচ নারীকে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করত। এমনকি ওই সব ধর্ষিতা নারী চাকরিচ্যুত হওয়ার ভয় দেখিয়ে বিষয়টি কাউকে যাতে তারা না বলেন সেজন্য হুমকি দিতো। ২৮ জুলাই কারখানাটির অতিরিক্ত কর্মঘণ্টা চলা শেষে বেলা ১টায় ছুটি হয়। ওই দিন কারখানার নারী শ্রমিক হনুফার সহায়তায় কারখানার অবিবাহিত এক সুইং অপারেটরকে তার কক্ষে ডেকে পাঠান। এরপর ওই শ্রমিককে ধর্ষণ করে লম্পট হারুন। এ ঘটনায় পরের দিন শনিবার ধর্ষিতা ওই নারী তার সহকর্মী নারী শ্রমিকদের বিষয়টি জানান। তাদের সহায়তায় ধর্ষিতা আরো ৪ নারী শ্রমিক এ বিষয়ে আশুলিয়ার খেজুর বাগান এলাকার অন্বেষা স্টাইল কারখানার প্রধান কার্যালয়ে অভিযোগ দেন। ঘটনা প্রমাণিত হলে পিএম হারুনকে প্রধান কার্যালয়ে তলব করা হয়। ধর্ষিতাদের অভিযোগের ভিত্তিতে হারুনকে এবং ধর্ষিতাদের আট দিনের ছুটি প্রদান করা হয়। সেই থেকে ধর্ষক হারুন আশুলিয়া থেকে পালিয়ে নোয়াখালী অবস্থান নেয় এবং তার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর বন্ধ রেখে বিকল্প নম্বরে স্বজনদের সাথে কথা বলত। হারুন আশুলিয়া থানা সংলগ্ন এসএ পরিবহনের পেছনে একটি বাড়িতে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে ভাড়া থাকত।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.