মাস্টার ব্লাস্টার সচিন টেন্ডুলকার
মাস্টার ব্লাস্টার সচিন টেন্ডুলকার

২০ কোটির বিজ্ঞাপনে রাজি হলেন না টেন্ডুলকার

নয়া দিগন্ত অনলাইন

বিজ্ঞাপনে তারকাদের মুখ অবশ্যই বাড়তি প্রচার। তাই বলে কিন্তু যে কোনো জিনিসের প্রচারে নেমে পড়েন না তারা। ব্যক্তিত্বের সাথে বেমানান হলে যত লোভনীয় প্রস্তাবই হোক না কেন তা ফিরিয়ে দেন সেলিব্রেটিরা। অকপটে সেই কথাই জানালেন তারা-

বিগ বি-র ফিজ নেই
ফিজি ড্রিংক বা ক্যাফিনযুক্ত পানীয়ের বিজ্ঞাপন করেন না অমিতাভ বচ্চন। এর পিছনে অবশ্য একটা জোরদার কারণও দিয়েছেন তিনি। বলেছেন, ‘ফিজি পানীয় চলতি কথায় যাকে আমরা সফট ড্রিংকস বলি তা শরীরের পক্ষে মোটেও ভালো না। তাই এমন জিনিসের বিজ্ঞাপন করে তার প্রচার বাড়াতে চাই না। এই সচেতনতাটা অবশ্য আমার এসেছে একটি স্কুলের মেয়ের কাছ থেকে। একবার মেয়েটি প্রশ্ন করেছিল কেন এইসব ক্ষতিকর জিনিসের প্রচার করি। সেই থেকেই বিষয়টা আমায় ভাবায় এবং আমি এই ধরনের বিজ্ঞাপন করা বন্ধ করে দিই।’

শুধু ফিজি পানীয়ই নয়, ক্যাফেইনেও আপত্তি রয়েছে বিগ বি-র। তার বক্তব্য ক্যাফেইন শরীরের পক্ষে ভালো না। তাই এমন জিনিসেরও অতিরিক্ত প্রচার করা উচিত নয়। এছাড়াও অ্যালকোহল আর তামাকের বিজ্ঞাপন করেন না বলিউডের শাহেনশা।

সমাজসেবামূলক প্রচারে আমির
বলিউডের মিস্টার পারফেকশনিস্ট আবার যে কোনো কিছুর প্রচার করেন না। শুধুমাত্র সমাজসেবা মূলক প্রচারে তিনি আছেন। বললেন, ‘আমরা হিরো হয়েছি ভক্তদের কল্যাণে। তাই তাদের কিছু দিয়ে যেতে চাই। সমাজসেবামূলক অ্যাড ক্যাম্পেইনে একটা মেসেজ দেয়া যায়। পরবর্তী প্রজন্মকে কিছু শেখানো যায়। ফলে তেমন অ্যাডই আমার পছন্দ। আর আমার এই পছন্দের কথা সবাই জানেন। তাই বিজ্ঞাপনদাতারাও আমার কাছে অ্যাডের অফার নিয়ে আসার আগে দুবার ভাবেন।’

কমার্শিয়াল অ্যাড না করার জন্য বছরে বেশ কয়েক কোটি টাকা লোকসান হয় আমিরের। তবু তাতে কিছু যায় আসে না তার।

সচিনের ২০ কোটিতেও না
‘জীবনের একটা ধর্ম আছে। কিছু বিশ্বাস আছে। টাকার জন্য সেই বিশ্বাসটা ভেঙে দিতে পারব না।’ বললেন ক্রিকেটের মাস্টার ব্লাস্টার সচিন তেন্ডুলকার। তিনি কোনো মতেই তামাক বা হার্ড ড্রিংকস সম্পর্কিত কোম্পানির বিজ্ঞাপনে নিজের মুখ দেখান না। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে তিনি বহু লোকের আইডল। অনেকেরই হিরো। সেই ইমেজটা ধরে রাখতে চান। তাই এমন কোনো প্রচারে তিনি যেতে চান না যাতে দেশের ক্ষতি হয়। আর এর জন্য ২০ কোটি টাকার অফারও অনায়াসে ফিরিয়ে দিয়েছেন মাস্টার ব্লাস্টার।

এই রকমই এক সংস্থার অফার ছিল। বিজ্ঞাপনে শুধু সচিনকে মুখ দেখাতে হত। তাতেই ২০ কোটি। কিন্তু না, তাতেও নারাজ সচিন। জানালেন, তাকে দেখে আগামী প্রজন্ম কিছু শিখুক। তাছাড়া নিজের জীবনে যেসব জিনিস কখনও প্রয়োজন হয়নি তার প্রচার করবেন কী করে?

বিরাটের ফিটনেস টার্ন অ্যারাউন্ড
সম্প্রতি বিরাট কোহলি ফিটনেস টার্ন অ্যারাউন্ড শুরু করেছেন। এখন সেটাই তার লাইফ স্টাইল হয়ে গেছে। ফলে প্রচারের ব্যাপারেও তিনি এখন ভীষণ সচেতন। এমন কিছু প্রচার করেন না যার সাথে শরীরচর্চার বিরোধ আছে। এর আগে কিন্তু বিজ্ঞাপন করার ক্ষেত্রে অত সাত পাঁচ ভাবতেন না বিরাট। কিন্তু জনপ্রিয়তার সাথে সাথে একটা দায়িত্ববোধ এসেছে তার চরিত্রে।

বললেন, ‘আমি এখন অনেকের হিরো। যেমন তেমন কাজ তাই আমার পক্ষে বেমানান। আগে অনেক কিছুই করেছি। তখন নিজেরও একটা প্রচারের প্রয়োজন ছিল। কিন্তু এখন আর সে প্রয়োজন নেই। ফলে এখন যা করব ভেবে চিন্তে।’

কঙ্গনার নো ফেয়ারনেস
ফেয়ারনেস ক্রিমের বিজ্ঞাপনে ভীষণ আপত্তি কঙ্গনা রানাওয়াতের। তিনি বলেন, এতে মেয়েদের ছোট করা হয়। তাদের চারিত্রিক দৃঢ়তা যেন ম্লান হয়ে যায়। তাই ফেয়ারনেস ক্রিমের বিজ্ঞাপনের অফার পেয়েও তা ফিরিয়ে দিয়েছেন অভিনেত্রী। ভাববেন না সেই বিজ্ঞাপন মামুলি। বরং টাকার অঙ্কটা শুনলে চোখ কপালে উঠবে। দুই কোটি টাকার অফার পেয়েছিলেন কঙ্গনা। তাও ফেয়ারনেস ক্রিম বলে সেই সুযোগ হাতছাড়া করেছেন।

কঙ্গনার জবাব, ‘টাকার জন্য নিজস্বতা বাদ দিতে পারব না।’

তাহলে যে তারই কিছু কো-স্টার এমন বিজ্ঞাপন করেন। তার বেলা? কঙ্গনার সোজাসাপ্টা উত্তর, ‘দেখলেও লজ্জা করে। টাকার জন্য লোকে এত নিচেও নামতে পারে!’

অক্ষয়ের স্বাস্থ্যই সম্পদ
অক্ষয় কুমারও চিরকালই ফিটনেস ফ্যানাটিক। ‘পারফর্মিং আর্টের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যই সম্পদ’, বললেন বলিউডের মিস্টার খিলাড়ি। অতএব স্বাস্থ্যের পক্ষে খারাপ এমন জিনিসের প্রচারের তিনি ঘোর বিরোধী। মদ বা তামাক তিনি নিজেও পছন্দ করেন না। অতএব এমন কোনো বিজ্ঞাপন তিনি করবেন না।

কিন্তু অভিনয়? সেখানে তো বিভিন্ন চরিত্রে দেখা যায় তাকে। ‘পেশাটা একটু আলাদা। তবে তার মধ্যেও আমি এমন ছবি করি না যাতে কোনো মেসেজ থাকে না।’ হেসে বললেন অক্ষয়কুমার।

চরিত্র সচেতন তাপসী
পিংক গার্ল তাপসী পান্নু আবার চরিত্র সচেতন। অর্থাৎ যা করেন ভীষণ ভেবেচিন্তে করেন। সেই কাজটা তার চরিত্রের সাথে মানাচ্ছে কি না তা আগে ভাবেন। তারপর কোনো কিছুতে হাত দেন। সিনেমা থেকে বিজ্ঞাপন সব ক্ষেত্রেই তাপসীর একই কথা। চরিত্রের পক্ষে বেমানান এমন কিছু মরে গেলেও করবেন না। তাই তো তাপসী অ্যালকোহল বা তামাকে না করে দিয়েছেন। বলেছেন ওসব জিনিসে তার বিশ্বাসই নেই।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.