নবম ওয়েজবোর্ডের ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে : তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর প্রদর্শিত পথ ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে নবম ওয়েজবোর্ড গঠনের শতকরা আশিভাগ কাজ তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পন্ন করেছে।

সচিবালয় প্রাঙ্গনে ক্লিনিক ভবন চত্বরে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে তথ্য অধিদফতর আয়োজিত বঙ্গবন্ধুর ওপর সপ্তাহব্যাপী ডিজিটাল জীবনচিত্র প্রদর্শনী উদ্বোধনকালে আজ রোববার তথ্যমন্ত্রী একথা বলেন।

প্রধান তথ্য অফিসার কামরুন নাহার, তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব নাসির উদ্দিন আহমেদ, চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইসতাক হোসেনসহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক গণমাধ্যম প্রতিনিধি, সরকারি কর্মচারিবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আগস্ট শুধু শোকের মাস নয়, স্বাধীনতা বিরোধীদের হীন চক্রান্তের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবার মাসও।

তিনি বলেন, ‘মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে দেশের সাংবাদিকদের বিপুল অবদান রয়েছে। সে অবদান স্মরণ রেখেই ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু সংবাদকর্মীদের সুরক্ষায় মজুরিবোর্ড গঠন করেন। তারই ধারাবাহিকতায় শেখ হাসিনার সরকার সাংবাদিকদের কল্যাণে কাজ করে চলেছে। প্রণয়ন করেছে সাংবাদিক সহায়তা নীতিমালা, সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট ও নিয়মিত ওয়েজবোর্ড প্রদানের ব্যবস্থা।’

নবম ওয়েজবোর্ড গঠনে সাংবাদিকদের দাবির সাথে তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পূর্ণ একমত উল্লেখ করে হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘তথ্য মন্ত্রণালয় সাংবাদিকদের মঙ্গল চায়। ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে আমরা অষ্টম ওয়েজবোর্ড ঘোষণা করেছিলাম। পাঁচ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই অর্থাৎ ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরের আগেই যাতে নতুন ওয়েজবোর্ড রোয়েদাদ ঘোষণা করা যায়, সেজন্য আমরা আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়েছি এবং ইতোমধ্যে ৮০ ভাগ কাজও সম্পন্ন হয়েছে। সাংবাদিক, কর্মচারি এবং মালিক এ তিনপক্ষের মধ্যে মালিক পক্ষের প্রতিনিধি মনোনয়ন দেবার জন্য আমরা বারবার তাগিদ দিয়ে আসছি। আশা করছি অচিরেই এ মনোনয়ন পাওয়া যাবে।’

এসময় মালিকপক্ষের প্রতিনিধি ছাড়া একতরফাভাবে ওয়েজবোর্ড গঠনে সাংবাদিকদের জন্য মঙ্গল বয়ে আনা কঠিন হয় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘মালিকপক্ষের প্রতিনিধি ছাড়া একতরফাভাবে ওয়েজবোর্ড গঠন যদি করতেই হয়, সেক্ষেত্রে সাংবাদিক, কর্মচারি ও তথ্য মন্ত্রণালয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা সাপেক্ষেই সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া যেতে পারে। তবে আমরা আশাবাদী মালিকপক্ষ তাদের প্রতিনিধি মনোনয়ন দেবেন।’

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.