স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে ৪৬০০ জন নিয়োগ

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদফতরে সিনিয়র স্টাফ নার্স (অস্থায়ী) পদে চার হাজার জন ও মিডওয়াইফ (অস্থায়ী) পদে ৬০০ জনসহ মোট চার হাজার ৬০০ জন নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন। আবেদন করতে হবে অনলাইনে। আবেদনপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ : ৩০ আগস্ট ২০১৭, সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। লিখেছেন মাহমুদা সুলতানা
পদের নাম : সিনিয়র স্টাফ নার্স (অস্থায়ী)।
পদের সংখ্যা : ৪০০০টি।
আবেদনের যোগ্যতা : যেকোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নার্সিংয়ে স্নাতক ডিগ্রি অথবা ডিপ্লোমা-ইন-নার্সিং বা ডিপ্লোমা-ইন-নার্সিং সায়েন্স অ্যান্ড মিডওয়াইফারি সার্টিফিকেটধারী হতে হবে ও বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিলের নিবন্ধন থাকতে হবে।
বয়সসীমা : ১ আগস্ট ২০১৭ তারিখে সিনিয়র স্টাফ নার্স পদে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩৬ বছর।
বেতন স্কেল : ১৬০০০-৩৮৬৪০/-ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যাবে।
পদের নাম : মিডওয়াইফ (অস্থায়ী)।
পদের সংখ্যা : ৬০০টি।
আবেদনের যোগ্যতা : প্রার্থীকে কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মিডওয়াইফারি বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি বা কোনো স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি সার্টিফিকেটধারী হতে হবে ও বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিলের নিবন্ধন থাকতে হবে।
বয়সসীমা : ১ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মিডওয়াইফ পদে বয়সসীমা ৩০ বছর। তবে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য বয়সীমা সর্বোচ্চ ৩২ বছর।
বেতন স্কেল : ১৬০০০-৩৮৬৪০/- ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যাবে।
জাতীয়তা ( উভয়পদের ক্ষেত্রে) : প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে। যেসব প্রার্থী কোনো অ-বাংলাদেশী নাগরিককে বিয়ে করলে বা বিয়ের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হলে সেসব প্রার্থীকে সরকারের অনুমতি নিয়ে আবেদন করতে হবে এবং লিখিত পরীার সময় বিপিএসসি ফরম-৩-এর সাথে তা জমা দিতে হবে।
আবেদনপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ : ৩০ আগস্ট ২০১৭, সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত।
আবেদনের নিয়ম : প্রার্থীকে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের ওয়েবসাইট (িি.িনঢ়ংপ.মড়া.নফ) বা টেলিটকের ওয়েবসাইটে (যঃঃঢ়://নঢ়ংপ.ঃবষবঃধষশ.পড়স.নফ) ঢুকে নন-ক্যাডার অপশন সিলেক্ট করে সিনিয়র স্টাফ নার্স বা মিডওয়াইফ পদের সাবমিটিং এপ্লিকেশনের রেডিও বাটন দৃশ্যমান হবে। পরে নির্ধারিত অনলাইন আবেদন ফরম বিপিএসসি ফরম-৫অ পূরণ করে অনলাইন রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম ও ফি জমা দিতে হবে।
ছবি ও স্বাক্ষর আপলোড করা : বিপিএসসি ফরম-৫অ পূরণ শেষ হলে অঢ়ঢ়ষরপধঃরড়হ চৎবারবি দেখা যাবে। চৎবারবি -এর নির্ধারিত স্থানে প্রার্থীকে ৩০০ ী ৩০০ পিক্সেলের ছবি ও ৩০০ ী ৮০ পিক্সেল সাইজের স্বার স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে। ছবি ও স্বারের ফাইল সাইজ ১০০ কিলোবাইটের বেশি হওয়া যাবে না। ছবি ও স্বার লঢ়বম ফরম্যাটে আপলোড করতে হবে। আবেদন ফরম পূরণ শেষে সাবমিট করার আগে ভুলভ্রান্তি আছে কি না ভালো করে দেখে নেবেন।
পরীক্ষার ফি জমা দেয়া : প্রার্থী কর্তৃক অনলাইনে বিপিএসসি ফরম-৫অ পূরণ করে ও নির্দেশনা মোতাবেক ছবি ও স্বার আপলোড করে আবেদনপত্র সাবমিশন করা শেষ হলে কম্পিউটারে অঢ়ঢ়ষরপধঃরড়হ চৎবারবি দেখা যাবে। নির্ভুলভাবে আবেদনপত্র সাবমিট করা শেষ হলে প্রার্থী ইউজার আইডিসহ ছবি ও স্বাক্ষরযুক্ত একটি অঢ়ঢ়ষরপধহঃ’ং ঈড়ঢ়ু পাবেন। ওই অঢ়ঢ়ষরপধহঃ’ং ঈড়ঢ়ু প্রার্থীকে প্রিন্ট কপি বা ডাউনলোড করে সংরণ করতে হবে। অঢ়ঢ়ষরপধহঃ’ং ঈড়ঢ়ু তে একটি ইউজার আইডি নম্বর দেয়া থাকবে ও এই ইউজার আইডি ব্যবহার করে টেলিটক প্রিপেইড মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রার্থী পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে এসএমএস করে পরীার ফি বাবদ ৫০০ টাকা জমা দেবেন। পরীার ফি পরিশোধের জন্য টেলিটক প্রিপেইড নম্বরের মেসেজ অপশনে গিয়ে ইচঝঈ<ংঢ়ধপব> টংবৎ ওউ লিখে পাঠাতে হবে ১৬২২২ নম্বরে। পরে ফিরতি মেসেজে নির্দেশনা অনুসারে তথ্য দেয়ার পর পরীার ফি পরিশোধ হয়ে যাবে।
প্রবেশপত্র সংগ্রহ : প্রার্থী এই ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে ছবি ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর সংবলিত প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন।
বিপিএসসি ফরম-৩ পূরণ : এমসিকিউ টাইপের লিখিত পরীায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের কর্মকমিশনের ওয়েবসাইট িি.িনঢ়ংপ.মড়া.নফ থেকে বিপিএসসি ফরম-৩ ডাউনলোড করে তা পূরণ করে মৌখিক পরীা দেয়ার আগে জমা দিতে হবে।
শিাগত যোগ্যতার সনদ : শিাগত যোগ্যতার সব সনদ, মার্কশিটের সত্যায়িত ফটোকপি জমা দিতে হবে। তবে সাাৎকারের সময় মূল সনদ জমা দিতে হবে। বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিল থেকে পাওয়া রেজিস্ট্রেশন সনদের সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে। ‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেল ডিগ্রিধারীদের জন্য জন্মতারিখ সংবলিত কাগজপত্র জমা দিতে হবে। বিদেশী ডিগ্রিধারী হলে ইকুইভ্যালেন্স সনদ জমা দিতে হবে। চাকরিরত অবস্থায় থাকলে ছাড়পত্রের সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে। কোটার বেলায় সংশ্লিষ্ট সনদের সত্যায়িত কপি দিতে হবে। স্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তিত হলে চেয়ারম্যানের স্বারিত সনদ জমা দিতে হবে। বিপিএসসি ফরম-৫-এ যেভাবে পূরণ করা হয়েছে বিপিএসসি ফরম ৩-এ ঠিক সেভাবে পূরণ করতে হবে।
নিয়োগ পদ্ধতি : সরকারের প্রচলিত নিয়ম মেনে নিয়োগ দেয়া হবে। লিখিত ও মৌখিক পরীায় উত্তীর্ণরাই নিয়োগ পাবে। বিপিএসসি ফরম ৫-এ পূরণ করার সময় পরীার কেন্দ্রের নাম ‘ঢাকা’ উল্লেখ করতে হবে। লিখিত পরীা ঢাকায় হবে।
লিখিত পরীার প্রস্তুতি : উভয় পদের প্রার্থীদের এমসিকিউ পদ্ধতির ১০০ নম্বরের লিখিত পরীায় অংশগ্রহণ করতে হবে। লিখিত পরীায় উত্তীর্ণদের মৌখিক পরীা দিতে হবে। মৌখিক পরীায় নম্বর থাকবে ১০০। লিখিত পরীায় বাংলা, ইংরেজি, সাধারণজ্ঞান, গণিত, দৈনন্দিন বিজ্ঞান ও টেকনিক্যাল বিষয়ে প্রশ্ন আসতে পারে। উভয় পদে লিখিত পরীায় উত্তীর্ণদের ১০০ নম্বরের মৌখিক পরীায় অংশ নিতে হবে। মৌখিক পরীায় পাস নম্বর ৪০।
পরীার প্রশ্নের মানবণ্টন : এমসিকিউ (লিখিত) পদ্ধতির ১০০ নম্বরের লিখিত পরীায় ১০০টি প্রশ্ন থাকবে। প্রতিটি সঠিক উত্তরের জন্য প্রার্থীরা পাবে ১ নম্বর। ভুল উত্তরের জন্য কোনো নম্বর কাটা যাবে না। বাংলায় ১৫, ইংরেজিতে ১৫, সাধারণজ্ঞান, গণিত ও দৈনন্দিন বিজ্ঞানে ২০ এবং সংশ্লিষ্ট পদের বিষয়ভিত্তিক নার্সিং (টেকনিক্যাল) ও মিডওয়াইফ (টেকনিক্যাল) প্রশ্নে ৫০ নম্বর থাকবে । পরীার সময় এক ঘণ্টা।
বিষয়ভিত্তিক প্রস্তুতি : লিখিত পরীায় বাংলা ব্যাকরণ অংশ থেকে সন্ধিবিচ্ছেদ, সমাস, প্রত্যয়, কারক বিভক্তি, ভুল সংশোধন ও শুদ্ধকরণ, এককথায় প্রকাশ, নত্ব-বিধান, ষত্ব-বিধান, সমার্থক ও বিপরীতার্থক শব্দ, বাগধারা; সাহিত্য অংশে বিভিন্ন গল্প, কবিতা বা বইয়ের লেখকের নাম ও জীবনী থেকে বেশি প্রশ্ন আসে। ইংরেজিতে ঝবহঃবহপব, ঘধৎৎধঃরড়হ, ঠড়রপব ঈযধহমব, ঈড়ৎৎবপঃ ঋৎড়স ড়ভ ঠবৎনং, ঝঁভভরী-চৎবভরী, ঞৎধহংষধঃরড়হ, চৎড়হঁহপরধঃরড়হ, ঝুহড়হুস-অহঃড়হুস, ঞৎধহংভড়ৎসধঃরড়হ ড়ভ ঝবহঃবহপব, অঢ়ঢ়ৎড়ঢ়ৎরধঃব ডড়ৎফ, অঢ়ঢ়ৎড়ঢ়ৎরধঃব চৎবঢ়ড়ংরঃরড়হ, ওফরড়সং ধহফ চযৎধংবং থেকে সাধারণত প্রশ্ন আসে।
গণিতে সাধারণত শতকরা, সুদকষা, ঐকিক নিয়ম, অনুপাত, সমানুপাত, লসাগু-গসাগু, লাভ-তি, ভগ্নাংশ, উৎপাদক, সূচক, লগারিদম, বীজগণিতীয় সূত্র থেকে প্রশ্ন আসতে পারে। জ্যামিতি অংশ থেকে ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ, বৃত্ত, রেখা, কোণ, ত্রেফল ইত্যাদি বিষয়ে প্রশ্ন আসতে পারে। সাধারণজ্ঞান থেকে প্রশ্ন থাকে বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি থেকে। বাংলাদেশ বিষয়ে ভূ-প্রকৃতি, জলবায়ু, ইতিহাস ও সভ্যতা, সংস্কৃতি ও ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, বাংলাদেশ রাষ্ট্রব্যবস্থা ও সাম্প্রতিক বিষয় এবং আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি থেকে ঘটনা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, পরিবেশ, রোগব্যাধি ও চিকিৎসাবিজ্ঞান থেকে প্রশ্ন থাকতে পারে। পদসংশ্লিষ্ট কিছু প্রশ্ন থাকে। যেমনÑ সিনিয়র স্টাফ নার্স পদের জন্য নার্সিং টেকনিক্যাল বিষয় নিয়ে প্রশ্ন আসতে পারে। আবার মিডওয়াইফ পদের জন্য সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে টেকনিক্যাল প্রশ্ন আসতে পারে।
যোগাযোগ : বিস্তারিত তথ্যের জন্য িি.িনঢ়ংপ.মড়া.নফ ওয়েবসাইট দেখতে পারেন। ফোন : ৫৫০০৬৬৫৭ ও ৫৫০০৬৮৩৪ নম্বরে।

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.