চাকরিজীবীরা শতভাগ পেনশন সমর্পণের সুযোগ
চাকরিজীবীরা শতভাগ পেনশন সমর্পণের সুযোগ

চাকরিজীবীরা শতভাগ পেনশন সমর্পণের সুযোগ

সৈয়দ সামসুজ্জামান নীপু

সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য অবসর-উত্তর ছুটি বাতিল ও শতকরা শতভাগ পেনশন সমর্পণ সুবিধাসংক্রান্ত বিষয়ে নতুন এক মতামত দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এতে অবসর-উত্তর ছুটি বাতিল করে শতকরা শতভাগ পেনশন-সুবিধা দেয়ার বিষয়ে এক ডেডলাইন নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, চলতি বছরের ৩০ জুনের আগে যেসব সরকারি চাকরিজীবীর আংশিক বা সম্পূর্ণ অবসর-উত্তর ছুটি বাতিল করে শতকরা শতভাগ পেনশন সমর্পণ বা হস্তান্তরের আদেশ জারি করা হয়েছে কেবল তারাই এই সুবিধা প্রাপ্য হবেন।

একই সাথে অভোগকৃত বা বাতিলকৃত পিএলআর-এর জন্য কোনো বেতন ভাতাদি পাবেন না সরকারি চাকরিজীবীরা। হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ের জিজ্ঞাসার জবাবে এই মতামত দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

অর্থ বিভাগ সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, অর্থ মন্ত্রণালয়ের পক্ষে বলা হয়েছে, যে কর্তৃপক্ষ পিএলআর (অবসর-উত্তর ছুটি) মঞ্জুর করেছে সে কর্তৃপক্ষ তা বাতিল করতে পারে। তবে পিএলআর ভোগরত যে কর্মচারীগণের ক্ষেত্রে ৩০-০৬-২০১৭ তারিখের আগে আংশিক বা সম্পূর্ণ পিএলআর বাতিল করে শতভাগ পেনশন সমর্পণের আদেশ জারি করা হয়েছে কেবল তাদের ক্ষেত্রে ১০০ ভাগ পেনশন সমর্পণের সুবিধা প্রযোজ্য হবে। 

অর্থ মন্ত্রণালয়ের মতামতে আরো বলা হয়েছে, একজন কর্মচারী কেবল ভোগকৃত পিএলআর-এর জন্য বেতনভাতাদি প্রাপ্য হবেন। অভোগকৃত বা বাতিলকৃত পিএলআর-এর জন্য কোনো বেতনভাতাদি প্রাপ্য হবেন না। 

একই সাথে পিআরএল ভোগকালীন কোনো কর্মচারীর বার্ষিক বর্ধিত বেতনের (ইনক্রিমেন্ট) তারিখ থাকলে তিনি পেনশন নির্ধারণের জন্য ওই সুবিধা প্রাপ্য হবেন। বার্ষিক বর্ধিত বেতনের তারিখের আগেই যদি পিএলআর বাতিল অথবা সমর্পণের কারণে কর্মচারীর পিএলআর শেষ হয়ে যায় তা হলে তিনি ওই ইনক্রিমেন্ট প্রাপ্য হবেন না। 


এ বিষয়ে জানতে চাইলে অর্থ বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, পিএরআর আংশিক বাতিল ও ১০০ ভাগ পেনশন সমর্পণ সংক্রান্ত বিষয়ে কিছু সমস্যা দেখা দেয়ায় হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কার্যালয় থেকে আমাদের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়েছিল। আমরা এ বিষয়ে তিনটি মতামত দিয়েছি। এখন এই মতামতের ভিত্তিতে হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে সরকারি চাকরিজীবীদের পিএলআর আংশিক বাতিল ও পেনশন সমর্পণের বিষয়ে তাদের করণীয় নির্ধারণ করবে।

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.