‘বৃদ্ধের সিনেমা’য় ইমন-সারিকা

অভি মঈনুদ্দীন

গত বছরের ঈদের চেয়ে এবারের দুটি ঈদে সারিকাকে খুব বেশি নাটক টেলিফিল্মে অভিনয়ে দেখা যায়নি। এবারের ঈদে সারিকা মাত্র তিনটি নাটকে অভিনয় করেছেন। আসছে কোরবানীর ঈদ উপলক্ষে সর্বশেষ যে নাটকটিতে তিনি অভিনয় করেছেন সেটি হচ্ছে দয়াল সাহার রচনায় ও সাখাওয়াত মানিকের নির্দেশনায় ‘বৃদ্ধের সিনেমা’। গতকাল নাটকটির শুটিং শেষ হয়েছে রাজধানীর উত্তরায় একটি শুটিং হাউজে। এতে ইমনের সঙ্গে আবারো জুটি হয়েছেন চিত্রনায়ক ইমন। এবারের ঈদে ইমন সারিকা জুটির এটিই একমাত্র নাটক।

নাটকের গল্প প্রসঙ্গে নাট্যরচয়িতা দয়াল সাহা জানান বাবর একজন স্ক্রিপ্ট রাইটার। সাধারণত বাবর রিক্সওয়ালা, বুয়া কিংবা এই ধরনের সাধারণ মানুষদের নিয়ে তিনি স্ক্রিপ্ট লিখেন। যে কারণে প্রযোজকরা তার লেখা গল্প নিয়ে নাটক নির্মাণে খুব বেশি আগ্রহী হন না। এক সময় বাবর স্বপ্ন দেখে একটি সিনেমা নির্মাণের। সিনেমা হলের সামনে গিয়ে সিনেমার পোস্টারে বাবর হাত বুলায়। একসময় ফুলি নামের একজন পতিতা এসে তাকে নিয়ে সিনেমা দেখতে চায়। যে কারণে পারিশ্রমিকও চায় সে বাবরের কাছে। এই পারিশ্রমিক নিয়েই পতিতার জীবন কাটে দিনের পর দিন এভাবেই। একসময় বাবরের কাছে পতিতা ফুলিকে বেশ রহস্যময়ী মনে হয়। এই পতিতাই একসময় বাবরে সিনেমা নির্মাণের স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে আসে। পতিতা ফুলি চরিত্রে অভিনয় করেছেন সারিকা।

এতে অভিনয় প্রসঙ্গে ইমন বলেন,‘ গল্পটি এককথায় দুর্দান্ত। যেহেতু আমি সিনেমারই মানুষ, তাই গল্পটা আমার মনে গেঁথে গেছে। অভিনয় করতে গিয়ে আমিে আবেগাপ্লুত হয়েছি অনেকবার। ধন্যবাদ সাখাওয়াত মানিককে এমন একটি কাজ করার সুযোগ দেবার জন্য।’

সারিকা বলেন,‘ আমার চরিত্রটি বেশ চ্যালেঞ্জিং। যে কারণে কাজ করতে অনেক কষ্ট হয়েছে। ইমনের সঙ্গে আমার কাজের বোঝাপড়া বেশ চমৎকার। কাজটি নিয়ে আমি খুব আশাবাদী।’ আসছে ঈদে ‘বৃদ্ধের সিনেমা’ একটি স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচার হবে। এদিকে এবারের ঈদে হানিফ সংকেত ও তুহিনের নির্দেশনায় আরো দুটি নাটকে অভিনয় করেছেন সারিকা। অভিনয়ে কম উপস্থিতির কারণ হিসেবে সারিকা বলেন,‘ মেয়েকে এখন একটু বেশি সময় দিতে হচ্ছে। তাই অভিনয়ে সময় দেয়াটা টানা দেয়া যাচ্ছে না। সবার আগেতো আমার সন্তান। তারপরতো অভিনয় কিংবা বিজ্ঞাপনের কাজ।’

এদিকে এবারের ঈদে নাটকে অভিনয়ের পাশাপাশি সৈয়দ আপন আহসানের নির্দেশনায় নাদিয়া খানের সঙ্গে জুটিবদ্ধ হয়ে একটি বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে কাজ করেছেন।

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.