নাটোর প্রিয়জন-এর উদ্যোগে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ
নাটোর প্রিয়জন-এর উদ্যোগে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

ওবায়দুল্লাহ আল মামুন

নয়া দিগন্ত নাটোর প্রিয়জন-এর উদ্যোগে নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলায় বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। গত শনিবার উপজেলার মহিষডাঙ্গা-গৌরীপুর উচ্চবিদ্যালয় আশ্রয়শিবির ও বাঁশিলা বিলযোয়ানী গ্রামের বন্যার্ত মানুষের মধ্যে খাবার প্যাকেট, চাল, আলু, চিঁড়া, মুড়ি, ওষুধ ও ভোজ্যতেলসহ বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণ করা হয়।
যেভাবে শুরু : নাটোরের একজন বিশিষ্ট বীমাব্যক্তিত্ব প্রিয়জন উপদেষ্টা আলহাজ শহিদুল ইসলাম বন্যার্তদের জন্য প্রথমে সহায়তার পরামর্শ দিয়ে নিজে এ ফান্ডে পাঁচ হাজার টাকা জমা দেন। এতে উদ্বুদ্ধ হয়ে নাটোর প্রিয়জন-এর সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক আবদুস সালাম ও প্রিয়জন সমাবেশ নাটোরের উপদেষ্টা নয়া দিগন্তের নাটোর জেলা প্রতিনিধি মো: শহীদুল হক সরকার ত্রাণ বিতরণের কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করেন।
তারপর একে একে এগিয়ে আসেন অনেকে। তাদের মধ্যে প্রকৌশলী আজিজুল হক, ব্যাংকার কামাল হোসেন, মুদ্রণশিল্পী আবদুল হান্নান, নাটোর সিটি কলেজের অধ্যক্ষ থেকে শুরু করে কলেজের প্রায় সব শিক্ষক-কর্মচারী এই ত্রাণ তহবিলে অর্থসহায়তা করেন। নিজ এলাকা হওয়ায় নলডাঙ্গা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও নাটোর সিটি কলেজের প্রভাষক জিয়াউল হক জিয়া ত্রাণ বিতরণে সহায়তার জন্য নৌকার ব্যবস্থা করে দেয়ার পাশাপাশি ত্রাণ বিতরণের পর প্রিয়জনদের দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করেন।
এ ছাড়া তিনি নিজে উপস্থিত থেকে প্রিয়জনদের সার্বিক সহযোগিতা করেন।
ত্রাণ বিতরণ : শনিবার সকাল ১০টায় নাটোর থেকে প্রিয়জন উপদেষ্টা নয়া দিগন্তের জেলা প্রতিনিধি মো: শহীদুল হক সরকার ও সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালামের নেতৃত্বে প্রিয়জনেরা মোটরসাইকেল ও কয়েকটি অটোরিকশায় ত্রাণের বস্তা বোঝাই করে নিয়ে নলডাঙ্গার মিনি কক্সবাজার খ্যাত হালতি বিলের পাটুল ঘাটে উপস্থিত হন। সেখানে আগে থেকে ভাড়া করা নৌকায় চড়ে শুরু হয় হালতি বিল পাড়ি দিয়ে নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার সীমান্তবর্তী নলডাঙ্গার খাজুরা ইউনিয়নের মহিষডাঙ্গার উদ্দেশে যাত্রা। প্রায় দেড় ঘণ্টা ইঞ্জিনচালিত বড় নৌকায় চেপে টিপটিপ বৃষ্টির মধ্যে মহিষডাঙ্গা গিয়ে নৌকা থেকে নেমে স্থানীয় মসজিদে জোহরের নামাজ আদায় করা হয়। পরে সেখান থেকে মহিষডাঙ্গা-গৌরীপুর উচ্চবিদ্যালয় আশ্রয়শিবিরে গিয়ে বন্যার্তদের ত্রাণ বিতরণ করেন প্রিয়জন সদস্যরা। এ সময় ত্রাণের বস্তা নামাতে গিয়ে আত্রাই নদীতে গভীর পানিতে পড়ে যান প্রিয়জন সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম, আর তাকে বাঁচাতে গিয়ে নদীতে পড়েন উপদেষ্টা শহীদুল হক সরকার নিজেও। এতে তাদের মোবাইল ও ক্যামেরা নষ্ট হয়ে যাওয়াসহ কাপড়চোপড় ভিজে যায়। পরে ভেজা কাপড়েই তারা প্রিয়জনদের নিয়ে সেখান থেকে বাঁশিলা বিলযোয়ানী গ্রামে রওনা হন। সেখানে আগে থেকে অপেক্ষা করা বন্যাদুগর্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেন তারা। এ সময় প্রিয়জন শরীফুল ইসলাম, আব্দুল হান্নান মানিক, ফজলুর রহমান, মোক্তারুল ইসলাম, এরশাদ আলী, জাহিদ হাসান ও নয়া দিগন্তের জেলা প্রতিনিধি শহীদুল হক সরকারের বড় ছেলে মাহমুদুল হক মাহী উপস্থিত ছিলেন। এ সময় ত্রাণ হাতে পেয়ে গৌরীপুর গ্রামের লতিজান বেগম (৭০) ও জাহানারা খাতুন (৬২) আবেগজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘বাড়িঘর সব ভাইঙ্গি পড়িছে। থাকার জায়গা নাই, রান্না-খাওয়া বন্ধ। আমাদের এই বিপদের দিনে যারা চাল-ডাল নিয়ে পাশে দাঁড়াইছে, আল্লাহ যেন তাগের ভালো করে। যে পত্রিকা আর যারা এগুলান কিনে দিছে, আল্লাহ তাদের রহম কইরবে। তাগেরে ভালো রাইখো খোদা।’ কথাগুলো বলার সময় তাদের চোখেমুখে যে উচ্ছ্বাস, সে উচ্ছ্বাসের ছটা বুকে নিয়ে বিকেলের আবহমান বাংলার রূপময় পরিবেশে আবার প্রিয়জনেরা নৌকায় চেপে বসেন নাড়ির টানেÑ বাড়ির পানে।

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.