গাবতলীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে জমিতে বেড়া

গাবতলী (বগুড়া) উপজেলা সংবাদদাতা

বগুড়ার গাবতলী বাগবাড়ীতে অসহায় মুঞ্জুরুল আদালতে চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা রায় পাওয়ার পরেও অবৈধভাবে টিনের বেড়া দিয়ে রেখেছে প্রতিপক্ষরা।
জানা যায়, গাবতলীর নশিপুর ইউনিয়নের বাগবাড়ী গ্রামের মৃত করম আলীর পুত্র মুঞ্জুরুল ইসলামের সঙ্গে নশিপুর ইউনিয়ন পরিষদের বাজারস্থ ৭শতক জমি নিয়ে আদালতে মামলা চলে আসছিল।

জেলা বগুড়ার গাবতলী সহকারী জজ আদালতে ১০৮/০৭ মামলাটি দীর্ঘদিন চলার পর বিজ্ঞ আদালত উভয় পক্ষের শুনানী ও জবাব এবং প্রতিবেদন দাখিল শেষে গত ১০আগষ্ট উক্ত জমির বাদী মুঞ্জুরুল ইসলাম তালুকদারের পক্ষে রায় (চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা) প্রদান করেন। এরপর বাদী মুঞ্জুরুল ইসলাম তাঁর জমি পুনরায় ভোগ দখল’সহ তত্ত্বাবধানে নিতে চাইলে প্রভাবশালী বিবাদীপক্ষ নশিপুর ইউপির চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মিন্টু সুকৌশলে অবৈধভাবে জমিতে টিনের বেড়া দিয়ে রেখেছে। বাদী মুঞ্জু জমির (চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা) রায় পেলেও তাঁর তত্ত্বাবধানে ও জমিতে নির্মান কাজ করতে না পাওয়ায় তিনি পরিবার পরিজন নিয়ে চরম হতাশা’সহ প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। নশিপুর ইউপির চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মিন্টু জানান, বাদীপক্ষ উক্ত ৭শতক জমির (চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা) রায় পাওয়ার পরেও আবারো তিনি ডিগ্রীজারি আরো একটি মামলা দায়ের করেছেন। গাবতলী মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খায়রুল বাসার জানান, জমির (চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা) রায় বিষয়ে শুনার পর উভয়পক্ষকে আদালতের আদেশের জন্য অপেক্ষায় থাকতে বলেছি। মুঞ্জুরুল ইসলাম তালুকদার জানান, আমি ৭শতক জমির চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা রায় পেলেও বিবাদীপক্ষ আমাকে নানাভাবে হয়রানী করছে। ফলে আমি আবারো আদালতের আশ্রয় নিয়েছি। এমনকি নশিপুর ইউপির চেয়ারম্যান আমাকে নানাভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়ে আসছে। এছাড়াও বিবাদীপক্ষ ক্ষমতার অপব্যবহার করে আমার জমি জবরদখল নেওয়ার চেষ্টা করছে। বিষয়টি সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্ট কৃর্তপক্ষ’সহ বিজ্ঞ আদালতের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন তিনি।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.