ছেলের হাতে মা, স্ত্রীর কোপে স্বামী ও স্বামীর হাতে স্ত্রীসহ ৫ জন খুন

চার লাশ উদ্ধার
নয়া দিগন্ত ডেস্ক

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ছেলের হাতে মা, বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় স্ত্রীর হাতে স্বামী, বগুড়ায় স্বামীর হাতে স্ত্রী, নাটোরে এক চালক ও রাজবাড়ীতে এক কৃষক খুন হয়েছেন। এ ছাড়া বিভিন্ন স্থানে চার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
পিরোজপুর সংবাদদাতা জানান, মঠবাড়িয়ায় ছেলের হাতে মা খুন হয়েছেন। ছেলে আবদুর রহিম খান (৩০) মাটি কাটা কোদাল দিয়ে কুপিয়ে মা সাজেদা বেগমকে (৫৮) হত্যা করে লাশ বাড়ির সামনে পুকুরে ফেলে পালিয়ে যায়। নিহত সাজেদা বেগম উপজেলার বড়মাছুয়া ইউনিয়নের ভোলমারা গ্রামের কৃষক আবদুল জব্বার খানের স্ত্রী। তিনি পাঁচ সন্তানের জননী। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী জব্বার খান বাদি হয়ে গত মঙ্গলবার ছেলেকে একমাত্র আসামি করে থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ ঘাতক আবদুর রহিমকে গ্রেফতার করেছে। এ দিকে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মঙ্গলবার সকালে জেলা মর্গে পাঠানো হয়েছে।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ঈদে মেঝ ছেলে আল-আমীন মায়ের খরচের জন্য কিছু টাকা পাঠায়। ওই টাকা থেকে এক হাজার টাকা বড় ছেলে আবদুর রহিম মায়ের কাছে দাবি করেন। মা টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানান। সেই থেকে রহিম মায়ের ওপর ক্ষিপ্ত ছিল। গত সোমবার দুপুরে মা সাজেদা বেগম বাড়ির কাছে সবজি ক্ষেতে ছাগলের জন্য ঘাস কাটতে যান। এ সময় মা-ছেলের মধ্যে আবার টাকা নিয়ে বাগি¦তণ্ডা হয়। একপর্যায়ে হাতে থাকা মাটি কাটার কোদাল দিয়ে মাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করে লাশ পুকুরে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে সে ফোন করে মাকে হত্যার কথা তার বড় বোন আমেনা বেগমকে জানায়। খবর পেয়ে সোমবার রাতে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে।
মঠবাড়িয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাজহারুল আমিন জানান, নিহতের মুখমণ্ডল ও ডান হাতে কোপের চিহ্ন রয়েছে। ঘাতককে গ্রেফতার করা হয়েছে।
বগুড়া অফিস ও দুপচাঁচিয়া সংবাদদাতা জানান, বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার কোঁচপুকুরিয়া গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে শহীদুল ইসলাম (৪২) তার স্ত্রী খাদিজা খাতুনের (৩৫) বটির আঘাতে নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় নিহতের মা বাদি হয়ে দুপচাঁচিয়া থানায় মামলা করেছেন।
থানা সূত্রে জানা যায়, ঘটনার দিন দুপুরে পারিবারিক কলহের জেরে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বাগি¦তণ্ডার একপর্যায়ে স্ত্রী খাদিজা খাতুন তার হাতে থাকা বটি দিয়ে স্বামী শহীদুলকে আঘাত করলে শহীদুল গুরুতর আহত হন। বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই দিন সন্ধ্যায় মারা যান। পুলিশ ওই রাতেই স্বামী হত্যাকারী খাদিজা খাতুনকে গ্রেফতার করে।
বগুড়া অফিস জানায়, বগুড়ায় স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যার পর স্বামী আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে পুলিশ ঘাতক স্বামীকে আহতাবস্থায় আটক করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করেছে। গতকাল সকালের দিকে বগুড়া শহরের চক ফরিদ প্রামাণিক পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ নববধূ ফাতেমা খাতুনের (২২) লাশ উদ্ধার করে। একই সময় আহত স্বামী সুজন প্রামাণিককে (২৮) উদ্ধার করে শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করে পুলিশ।
নাটোর সংবাদদাতা জানান, নাটোরের বাগাতিপাড়ায় চালক মোয়াজ্জেম হোসেনকে (৪০) হত্যা করে তার অটো চার্জার ভ্যানটি ছিনিয়ে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় ছিনতাইকারীরা তার গায়ের শার্ট দিয়ে দড়ি বানিয়ে তাকে শ্বাস রোধ করে হত্যা করে এবং পরনের লুঙ্গি ছিঁড়ে তার হাত ও পা বেঁধে রাখে। নিহতের শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
বাগাতিপাড়া থানার ওসি মনিরুল ইসলাম লাশ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বিষয়টি গভীরভাবে খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতা জানান, মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের মাধবপুর চা বাগানের শ্রমিক বলরাম নুনিয়ার (৫০) ছেলে পান ব্যবসায়ী সুমন নুনিয়া (২৪) বোনের বাড়ি যাচ্ছেন বলে গত শুক্রবার বাড়ি থেকে বের হয়েছিলেন। এরপর থেকে নিখোঁজ হলেও তিন দিন পর গত সোমবার ১১ সেপ্টেম্বর দুপুরে মিরতিংগা চা বাগানের নালায় মস্তকবিহীন অবস্থায় নিখোঁজ ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করা হয়। হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে পুলিশ মঙ্গলবার দুই ব্যক্তিকে আটক করেছে। পরে আটকদের স্বীকারোক্তি মুতাবেক ধানি জমি থেকে কাটা মাথা উদ্ধার করেছে পুলিশ।
কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মো: নজরুল ইসলাম লাশের পরিচয় বের হওয়া আর হত্যার সাথে জড়িত বাবা-ছেলেকে আটক ও তাদের স্বীকারোক্তির সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি আরো বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে নারী ঘটিত ঘটনায় এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে।
লামা সংবাদদাতা জানান, বান্দরবানের লামা উপজেলায় পাহাড়ের পাদদেশ থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তির অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গত মঙ্গলবার রাত ১১টায় উপজেলার আজিজনগর ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ি ইসলামপুর এলাকা থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। লাশের গায়ে সাদা ফুল শার্ট ও পরনে লুঙ্গি রয়েছে। বয়স আনুমানিক ৪২ বছর হবে।
আলফাডাঙ্গা (ফরিদপুর) সংবাদদাতা জানান, ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গার মধুমতি নদী থেকে আনুমানিক (৩০) বছরের এক অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। জানা যায়, গতকাল ১৩ সেপ্টেম্বর দুপুর সাড়ে ১২টায় উপজেলার টগর বন্দ ইউনিয়নের টিটা খেয়াঘাট এলাকার নদীর ওপার মধুমতি নদীতে লাশ ভাসতে দেখে এলাকাবাসী থানায় খবর দেন। খবর পেয়ে আলফাডাঙ্গা থানার ওসি (তদন্ত) ফয়সাল আহমেদ সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত লাশ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদরে পাঠিয়েছে পুলিশ।
দোহার (ঢাকা) সংবাদদাতা জানান, ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার যন্ত্রাইল এলাকা থেকে মো: জাহাঙ্গীর আলম (৩০) নামে এক যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে নবাবগঞ্জ থানা পুলিশ। সে উপজেলার বাগমারা বাজারের একটি জুতার দোকানে কর্মরত ছিল বলে জানা গেছে। ওই যুবক বলমন্তচর এলাকায় ভাড়া বাড়িতে বসবাস করত। তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার চান্দিনায় বলে জানা গেছে।
রাজবাড়ী সংবাদদাতা জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়নের দক্ষিণ কুমরিরাজ গ্রামে মোতালেব সরদার (৫৫) নামে এক কৃষককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। মোতালেব ওই গ্রামের মৃত সামাদ সরদারের ছেলে। কালুখালী থানার ওসি নুরে আলম ফকির জানান, ওই ঘটনায় আবু সায়েমকে প্রধান আসামি করে একটি হত্যা মামলা করা হয়েছে। কিন্তু গতকাল পর্যন্ত কোনো ঘাতককে আটক করা যায়নি।
কালুখালী থানা সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবার দুপুরে পাশের দক্ষিণনগর বাতান গ্রামের আলী আকরাম মোল্লার ছেলে বিল্লাল মোল্লা তার বাইসাইকেল নিয়ে বাজারে যাচ্ছিলেন। সে সময় তিনি দক্ষিণ কুমরিরাজ গ্রামের জামিরুল সরদারের ছেলে মিজান সরদারকে ধাক্কা দেয়।
ওই বিষয় নিয়ে দুইজনের মধ্যে কথাকাটাকাটির ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে বিল্লাল তার গ্রামের তবিবর মাস্টারের ছেলে সন্ত্রাসী আবু সায়েমকে এ ঘটনা জানায়। এরপর তারা সঙ্ঘবদ্ধ হয়ে মিজান সরদারের বাড়িতে হামলা চালায়। সে সময় তারা মিজান ও জামিরুলকে বাড়িতে না পেয়ে জামিরুলের চাচা বৃদ্ধ মোতালেব সরদারকে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে। তাকে প্রথমে পাংশা, পরে ফরিদপুর হয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধনী অবস্থায় গত মঙ্গলবার রাতে তিনি মারা যান।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.