অর্থবছরের শুরুতে ইতিবাচক বার্তা

আবু সাহাফ মাহমুদ

রফতানিতে ইতিবাচক বার্তা দিয়ে শুরু হয়েছে নতুন অর্থবছর ২০১৭-২০১৮। অর্থবছরে প্রথম দুই মাসে রফতানি বেড়েছে আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১৩ দশমিক ৮৪ শতাংশ। জুলাই ও আগস্ট মাসে রফতানি আয় দাঁড়িয়েছে ৬৬২ কোটি ৮৬ লাখ ডলার। আগের অর্থবছরের একই সময়ে যা ছিল ৫৮২ হাজার কোটি ২৯ লাখ ডলার। গত দুই মাসের রফতানির লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬১৪ কোটি ডলার। এ সময়ে রফতানি আয় বেড়েছে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৭ দশমিক ৯৬ শতাংশ। এ সময়ে তৈরী পোশাক রফতানিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৪ দশমিক ৫ শতাংশ। রোববার রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) কর্তৃক প্রকাশিত সবশেষ প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এসব তথ্য।
রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যানুযায়ী, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে পণ্য রফতানিতে আয় হয়েছিল তিন হাজার ৪৬৫ কোটি ৫৯ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার। চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছরে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে তিন হাজার ৭৫০ কোটি ডলার। অর্থবছরে প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) রফতানি আয় দাঁড়িয়েছে ৬৬২ কোটি ৮৬ লাখ ডলার। আগের অর্থবছরের একই সময়ে যা ছিল ৫৮২ হাজার কোটি ২৯ লাখ ডলার। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে জুলাই-আগস্ট মাসে ৫৫২ কোটি ৪২ লাখ মার্কিন ডলারের পোশাক রফতানি করেছে বাংলাদেশ। তার আগের অর্থবছরের একই সময়ে রফতানি হয়েছিল ৪৮৪ কোটি ৩৮ লাখ ডলারের।
প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে রফতানি লক্ষ্যমাত্রা পূরণ ও প্রবৃদ্ধি অর্জনে রেকর্ড হয়েছে মাছ রফতানিতে। আট কোটি ৭০ লাখ ডলারের রফতানি লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে এই সময়ে আয় এসেছে ১২ কোটি ৪৯ লাখ ডলার। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অর্জন ৪২ দশমিক ৬৯ শতাংশ বেশি। গত বছরের একই সময়ে এ খাতে আট কোটি ৯০৫ লাখ ডলার আয় আসে। সে হিসেবে প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে ৩৯ দশমিক ৬৪ শতাংশ। এ ছাড়া জুলাই-আগস্ট মাসে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রফতানিতে আগে অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৯ দশমিক ৪৫ শতাংশ। আয় হয়েছে ২৪ কোটি ৮১ লাখ ডলার, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৯ দশমিক ৮৩ শতাংশ কম।
পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত দুই মাসে ২৬৫ কোটি ৫৪ লাখ ডলারের ওভেন পোশাক ও ২৮৬ কোটি ৮৮ লাখ ডলারের নিট পোশাক রফতানি হয়েছে। আগের অর্থবছরের তুলনায় নিট পোশাকে ১৬ দশমিক ২ শতাংশ ও ওভেন পোশাকে ১১ দশমিক ৯৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। পাশাপাশি নিট ও ওভেন পোশাক রফতানিতে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় প্রবৃদ্ধি এসেছে যথাক্রমে ১৬ দশমিক ৪ ও ৭ দশমিক ৬৯ শতাংশ।
অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে প্লাস্টিক পণ্যে প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে ৫ দশমিক ৭৪ শতাংশ। এই সময়ে আয় এসেছে এক কোটি ৬৭ লাখ ডলার, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩০ দশমিক ৮৮ শতাংশ কম। গত দুই মাসে পাট ও পাটজাত পণ্যে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্র অর্জিত না হলেও আগের অর্থবছরের তুলনায় প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে ১০ দশমিক ৩৪ শতাংশ।

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.