রৌমারীতে চলছে ইলিশ নিধন
রৌমারীতে চলছে ইলিশ নিধন

রৌমারীতে চলছে ইলিশ নিধন

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতা

ইলিশের প্রজনন মৌসুমে ইলিশ ধরা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ থাকলেও কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ব্রক্ষ্মপুত্রে বিভিন্ন জায়গায় চলছে ইলিশ নিধন। রৌমারী মৎস্য অধিদপ্তরের কোনো তৎপরতা না থাকায় জেলেরা নদীতে জাল ফেলে মা ইলিশ নিধন করে যাচ্ছে।

১ অক্টোবর থেকে আগামী ২২ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ মাছের ডিম ছাড়ার প্রজনন সময়। তাই সারা দেশে এ ২২ দিন মা ইলিশ ধরা, বিক্রি ও মজুদ ও পরিবহন করা নিষিদ্ধ করেছে সরকার। তবে থেমে নেই অসাধু জেলেরা। গোপনে তারা ব্রক্ষ্মপুত্র নদ থেকে ইলিশ মাছ ধরছে। এসব মাছ বাজার দরের চেয়ে অনেক কম মূল্যে জেলেরা বিক্রি করছে আড়ৎদার ও পাইকারসহ সাধারণ ক্রেতাদের কাছে। এসব মাছ কিনে নিয়ে আড়ৎদাররা বিভিন্ন বাড়ি এবং হোটেলগুলোতে হিমায়িত করে রাখছেন।

কুড়িগ্রামের রৌমারী ও উলিপুরের আংশিক নদ থেকে শুরু করেছে এবং চলছে ইলিশ নিধন।সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, মা ইলিশ ধরছে জেলেরা। কিন্তু ব্যতিক্রমভাবে তাঁরা (জেলেরা) কৌশল করে ইলিশ নিধন করছে। দেখা গেছে- উপজেলার ফুলুয়ার চর ঘাট, কাশিয়ার চর ঘাট, বলতমারা ঘাট, ঘুগুমারী ঘাট, খাউরিয়ার চর ঘাটসহ বিভিন্ন স্থানে মা ইলিশ নিধন করছে।

সূত্রে জানা গেছে, জেলেরা রাত দিন মা ইলিশ ধরছে। পরে নদীর ধারে কিংবা গ্রামগঞ্জে কেউ বা নৌকার উপর থেকে বিভিন্ন স্থান এসে প্রভাবশালী ব্যক্তিরা মা ইলিশ কিনছে। অথচ ১ অক্টোবর থেকে  ১০ অক্টোবর এসব স্থানে কোনো অভিযান চালায়নি মৎস্য কর্মকর্তা। অথচ সরকারের দেয়া মা ইলিশ ধরা বা বেচা-কেনা সম্পন্নভাবে নিষিদ্ধ করা হয়ে থাকে। কিন্তু কোনো কিছুকে তোয়াক্কা না কিছু অসাধু জেলেরা মা ইলিশ নদ থেকে দেদারছে ধরছে। প্রকাশ্য ইলিশ মাছ বিভিন্ন বাজারেও বিক্রি করছে।

সরেজিমন হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার রৌমারী সদর বাজার, দাঁতভাঙ্গা বাজার, বড়াইকান্দি বাজার, লাউবাড়ী বাজারসহ বিভিন্ন হাট-বাজারে মা ইলিশ বিক্রয় করছে।

এক মাছ ব্যবসায়ী বলেন, ইলিশ মাছ ধরা জেলেরা আহরোন করে আমাদের মত অনেক ব্যবসায়ী আছে তাঁরা নিয়মিত জেলেদের আহরোনকৃত মা ইলিশ মাছ ক্রয় করে বিভিন্ন বাজারে বিক্রি করে দেয়। এতে মা ইলিশ জেলেদের ১০০ থেকে ১৫০ টাকা দরে ক্রয় করে নেয়া হয়। তা বাজারে কিংবা গ্রামে-গঞ্জে বিক্রি করা হয় ৩০০ থেকে ৪০০ টাকায়।

এ বিষয় উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোর্শেদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, অফিসের বিশেষ কাজে আমি এখন রংপুরে আছি। অফিসে গিয়ে দেখা যাবে। এ প্রসঙ্গে রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপঙ্খর রায় জানান, মা ইলিশ ধরা বা বেচাকেনা নিষিদ্ধ। তাই আমি মৎস্য কর্মকর্তা নিকট ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.