বরগুনায় সবজির বাজারে আগুন ১৫ দিনে দাম বেড়েছে ৩ গুণ

গোলাম কিবরিয়া বরগুনা

বরগুনা জেলায় সবজির দাম তিন গুণ বেড়েছে। অতিবৃষ্টিতে তে তলিয়ে যাওয়ায় সবজির গাছ পচে গেছে। চাহিদার চেয়ে জোগান কম হওয়ায় বাজারে সবজির মারাত্মক সঙ্কট দেখা দিয়েছে। এ সুবাদে ব্যবসায়ীরা তিন গুণ দামে সবজি বিক্রি করছেন, যা ক্রেতারা কিনতে হিমশিম খাচ্ছেন।
কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, আমতলী ও তালতলী উপজেলায় এ বছরে সবজি আবাদের ল্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৭০০ হেক্টর। বছরের শুরুতে সবজির ভালো ফলন হয়েছিল। দামও ছিল ক্রেতাদের ক্রয়মতার মধ্যে। কিন্তু সাম্প্রতিক অতিবর্ষণে জলাবদ্ধতার কারণে সবজির তে পচে গেছে। তেমন ফসল পাওয়া যাচ্ছে না। বাজারে সবজির সঙ্কট এবং উত্তরাঞ্চল থেকে তেমন একটা সবজি না আসায় দাম কয়েক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। জলাবদ্ধতায় সবজি তে তলিয়ে গাছ পচে যাওয়ায় চাষিদের ব্যাপক সর্বনাশ হয়েছে।
কাউনিয়া গ্রামের কৃষক জামাল হোসেন জানান, ৩০ হাজার টাকা খরচ করে ৬৪ শতাংশ জমিতে সবজি চাষ করেছিলেন। কিন্তু বৃষ্টিতে েেতর সব গাছ পচে গেছে। তিনি আরো জানান, এ বছর তার ৩০ হাজার টাকাই লোকসান হয়েছে।
শাহজাহান শিকদার জানান, তিনি ৪০ হাজার টাকা খরচ করে এক একরে সবজি চাষ করেছিলেন। অতিবৃষ্টিতে সবজি তে তলিয়ে গেছে। সবজি গাছ পচে যাওয়ায় কোনো ফসল ওঠানো যায়নি।
শুক্রবার আমতলী বাঁধঘাট ও তালুকদার বাজার ঘুরে দেখা গেছে, কাঁচা মরিচ ৩০০, শিম ২০০, লালশাক ৭০-৮০, করলা ৬০-৭০, ঢেঁড়স ৬০-৭০, মিনা ৫০-৬০, বরবটি ৫০-৬০, মিষ্টিকুমড়া ৩৫-৪০, পটোল ৫০-৬০, চিচিঙ্গা (রেহা) ৪০-৫০ ও মুলা ৫০-৫৫ টাকা কেজি এবং এক কেজি ওজনের ছোট লাউ ৬০-৭০, দেড় কেজি ওজনের বড় লাউ ৯০-১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এসব সবজি ১৫ দিন আগেও তিন ভাগের এক ভাগ দামে বিক্রি হয়েছে।
ক্রেতা সিদ্দিকুর রহমান স্বপন বলেন, বাজারে তেমন ভালো কোনো সবজি পাইনি, যা পেয়েছি তার দাম অনেক বেশি।
শিক্ষক ফখরুল শাহ আলামিন বলেন, বাজারে সবজির সঙ্কট থাকায় দাম কয়েক গুণ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। বাজারে দেশী জাতের কাঁচা মরিচ ৩০০, শিম ২০০, করলা ৬০, ঝিঙ্গা ৫৫ টাকা কেজি দরে কিনতে হয়েছে। তিনি আরো জানান, ১৫ দিন আগেও এ সবজি তিন ভাগের এক ভাগ দামে কিনেছেন।
আমতলী কাঁচা বাজারের ক্ষুদ্র সবজি ব্যবসায়ী সেলিম খান ও সোহেল মিয়া জানান, গ্রামাঞ্চল থেকে কৃষকেরা সবজি নিয়ে আসছেন না, যা নিয়ে আসছেন তা দিয়ে চাহিদা পূরণ হয় না। তাই সবজির দাম কয়েক গুণ বেড়ে গেছে।
কাঁচামাল আড়ত সমিতির সভাপতি সাইরাজ মৃধা বলেন, উত্তরাঞ্চলে সবজির উৎপাদন কম হওয়ায় আমতলীতে ওই অঞ্চল থেকে সবজি আসছে না। ফলে বাজারে সবজির সঙ্কট দেখা দিয়েছে। চাহিদার চেয়ে জোগান কম হওয়ায় বাজারে সবজির দাম বেড়ে গেছে।
আমতলী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এস এম বদরুল আলম বলেন, সাম্প্রতিক অতিবৃষ্টিতে সবজির তে তলিয়ে গাছ পচে গেছে। এতে সবজির উৎপাদন হয়েছে খুবই কম। ফলে বাজারে সবজির সঙ্কট দেখা দিয়েছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.