মানুষের পাশে থাকায় খালেদার নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা : দুদু

যশোর অফিস

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, খালেদা জিয়ার আমলে ব্যাংক ডাকাতি, শেয়ার বাজারে লুটপাট হয়নি, গণতন্ত্র বাধাগ্রস্ত হয়নি। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করেছেন তাই প্রতিশোধ হিসেবে তার নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় যশোর প্রেসক্লাবে জেলা বিএনপি আয়োজিত সাবেক কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান আফসার আহম্মদ সিদ্দিকীর স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তেব্যে তিনি এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, এ সরকার সবমিলিয়ে একটি বাজেটের অর্ধেক পরিমান টাকা চুরি হয়েছে। সেই চোররাই ক্ষমতায়। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া দেশে আসবেন। সাহস থাকলে সুষ্ঠু নির্বাচন দেন দেখবেন প্রার্থী খুঁজে পাবেন না।
দুদু বলেন, প্রধান বিচারপতি সংখ্যালঘু ও আওয়ামী লীগের লোক। সত্য বলায় তাকে চুলের মুঠি ধরে বের করে দেয়া হচ্ছে। এটা বিএনপি সমর্থন করে না। এ আক্রমণ সকল বিচারকে হুঁশিয়ারি দেয়ার জন্য। সরকার এ পদক্ষেপ থেকে ফিরে না আসলে দেশে আইনের শাসন বলে কিছু থাকবে না।
জেলা বিএনপি উদ্যোগে সভাপতি শামসুল হুদার সভাপতিত্বে সভায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এড. সাবেরুল হক সাবু, টিএস আইয়ুব, অমলেন্দু দাস অপু , জেলা বিএনপির সহসভাপতি গোলাম রেজা দুলু, যুগ্ম সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, জেলা বিএনপি সংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকন, সদও উপজেলা বিএনপির সভাপতি নুরুনবী, নগর বিএনপির সভাপতি সাবেক মেয়র মারুফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মুনির আহমেদ সিদ্দিকী বাচ্চুসহ বিএনপি নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। সভা পরিচালনা করেন, যশোর জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক আলহাজ আনিছুর রহমান মুকুল।
উল্লেখ্য, ভাষাসৈনিক, বিএনপির সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক সংসদ সদস্য আফসার আহমদ সিদ্দিকীর ১৯৩৫ সালের ১৫ মার্চ যশোরের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম নেন আফসার আহমদ সিদ্দিকী। তার পিতা কায়সার আহমদ সিদ্দিকী ছিলেন যশোরের ডিস্ট্রিক্ট নাজির। স্কুলছাত্র থাকাবস্থায়ই রাজনীতির সংস্পর্শে আসেন তিনি। যশোর জেলা স্কুলের ছাত্র থাকা অবস্থায় ’৫২-র ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্ব¡ দেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জনের পর ১৯৫৬ সালে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৫৮ সালে তিনি সুপ্রিম কোর্টে আইনজীবী হিসেবে যোগ দেন। তিনি মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির যশোর জেলা সভাপতিও ছিলেন। তিনি যশোর বাস শ্রমিক ইউনিয়ন গঠন ও এর প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৯ সালের গণ-অভ্যুত্থান ও ’৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন তিনি। স্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৭৩ সালে যশোর পৌরসভার প্রথম নির্বাচনে তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। জিয়াউর রহমান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি প্রতিষ্ঠা করলে তিনি এ পার্টিতে যোগ দেন। আফসার সিদ্দিকী ১৯৭৮ ও ১৯৯৫ সালে বিএনপির টিকিটে যশোরের মনিরামপুর আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির দফতর সম্পাদক এবং দায়িত্ব পালন করেন।

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.