মেসি শুধু বোনাসই পাচ্ছেন ৮৬৭ কোটি!
মেসি শুধু বোনাসই পাচ্ছেন ৮৬৭ কোটি!

মেসি শুধু বোনাসই পাচ্ছেন ৮৬৭ কোটি!

নয়া দিগন্ত অনলাইন

আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসির বার্সেলোনার সঙ্গে চুক্তি নবায়ন করাটা সময়ের ব্যাপার বলে মনে করে কাতালান ক্লাবটির ম্যানেজমেন্ট। খুব শিগগিরই আনুষ্ঠানিকভাবে বার্সার সঙ্গে নতুন চুক্তিতে আবদ্ধ হতে যাচ্ছেন এই ফুটবল জাদুকর।

নতুন চুক্তিতে থাকছে মেসির জন্য আরো লোভনীয় অফার। নতুন চুক্তিতে মেসির সাপ্তাহিক পারিশ্রমিক হতে পারে ৫ লাখ ব্রিটিশ পাউন্ড। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ৫ কোটি ৪৫ লাখ টাকা টাকা।

তবে মেসির পারিশ্রমিকের থেকে আরো বড় বিস্ময় হচ্ছে, চুক্তি নবায়ন করলে বোনাস হিসেবে ৮ কোটি ব্রিটিশ পাউন্ড পাবেন মেসি; ফুটবলের ইতিহাসের যেটি রেকর্ড সর্বোচ্চ। বাংলাদেশী মুদ্রায় অর্থের পরিমাণ প্রায় ৮৬৭ কোটি টাকা। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে এমনই সংবাদ প্রকাশ করেছে ডেইলি মেইল। বোনাসের অর্থ যোগান দানের জন্য ঘরের মাঠ ন্যু-ক্যাম্পের ইমেজ স্বত্ত্ব বিক্রি করতে যাচ্ছে বার্সেলোনা।

বার্সেলোনা ম্যানেজমেন্ট ইতোমধ্যেই ক্রীড়া বিষয়ক ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ভন ওয়াগনারকে ন্যু-ক্যাম্পের ইমেজ স্বত্ত্ব বিক্রিতে সাহায্য করার জন্য নিয়োগ দিয়েছে। ন্যু-ক্যাম্পের ইমেজ স্বত্ত্ব বিক্রি করার মাধ্যমে বার্সেলোনা ১৮ কোটি ব্রিটিশ পাউন্ড আয় করতে পারবে বলে আশাবাদী। বিশ্ব ফুটবলের ইতিহাসের দ্বিতীয় বৃহৎ স্টেডিয়াম ন্যু-ক্যাম্প সম্প্র্রসারণের মাধ্যমে এর ধারণক্ষমতা বাড়িয়ে ১ লাখ ৫ হাজারে উন্নীত করার প্রকল্পও হাতে নিয়েছে বার্সা। ২০২১-২২ মৌসুম শেষে সম্প্রসারণের কাজ শেষ হবে।

উল্লেখ্য গত প্রায় এক দশক ধরে মেসির কাঁধে ভর করেই একে পর এক সাফল্য পাচ্ছে বার্সেলোনা। দলের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে লোভনীয় পারিশ্রমিক এবং বড় অঙ্কের বোনাস পেতেই পারেন কিং লিও।


ওজিল-সানচেজ জানুয়ারিতে আর্সেনাল ছাড়তে পারেন
জানুয়ারিতে দল বদলের জানালা উন্মুক্ত হলেই তারকা খেলোয়াড় এ্যালেক্সিস সানচেজ ও মেসুত ওজিলকে বিক্রয় করা ছাড়া কোনো উপায় নেই বলে বৃহস্পতিবার মন্তব্য করেছেন আর্সেনালের প্রধান কোচ আর্সেন ওয়েঙ্গার।

চলতি মৌসুম শেষে দু’জনেরই বর্তমান চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। তাদের সঙ্গে এখনো নতুন কোন চুক্তি সম্পাদিত হয়নি। ফলে তারা উন্মুক্তভাবেই যে কোন ক্লাবে চলে যেতে পারবে। যার অর্থ হচ্ছে দলের সবচেয়ে হাইপ্রোফাইল এই দুই তারকাকে দিয়ে অর্থ আয়ের শেষ সুযোগ হচ্ছে জানুয়ারি।

ওয়াটফোর্ডের বিপক্ষে শনিবারের ম্যাচ নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই দুই খেলোয়াড়কে বিক্রির বিষয়ে আর্সেনাল কোন সুনির্দিষ্ট সময় নির্ধারণ করেছে কিনা জানতে চাইলে জবাবে কোচ বলেন, ‘এখনো পর্যন্ত সে রকম কিছু হয়নি।’
২০১৪ সালের জুলাইয়ে বার্সেলোনা ছেড়ে আর্সেনালে যোগ দেন চিলির ২৮ বছর বয়সী আন্তর্জাতিক স্ট্রাইকার সানচেজ। একবছর পর রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে প্রিমিয়ার লীগের এই জায়ান্ট ক্লাবে যোগ দেন ২৮ বছর বয়সি ওজিল।

তাদের দলে পেয়ে আর্সেনালের সমর্থকরা উজ্জীবিত হলেও দুইজন মিলে দূর করতে পারেনি ১৪ বছর ধরে আর্সেনালের প্রিমিয়ার লীগ শিরোপার আক্ষেপ। সানচেজের সঙ্গে এরই মধ্যে শীর্ষ কয়েকটি ক্লাবের সঙ্গে আলাপ আলোচনা শুরু হয়েছে, যাদের মধ্যে ম্যানচেস্টার সিটি ও প্যারিস সেন্ট জার্মেইও (পিএসজি) রয়েছে। এদিকে চলতি সপ্তার শুরুর দিকে ওজিলের এজেন্ট এরকুট সগুট ইঙ্গিত করেছেন যে আর্সেনালের সঙ্গেই ইতিবাচক আলোচনা চলছে।

ওয়েঙ্গার বলেন, ‘হ্যাঁ এটি বুঝাপড়ার বিষয়। আমি সব সময় বলে আসছি যে গত বছর আমরা তাদের সঙ্গে চুক্তি নবায়ন করতে পারিনি মানে এর অর্থ এটি নয় যে তারা ক্লাব ছেড়ে চলে যাবেই। দুজন খেলোয়াড়ই এখানে বেশ খোশ মেজাজে আছে। পরিস্থিতি মোড় নিতে পারে ধারনা করছি।’

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.