বিশ্বজুড়ে আত্মহত্যার পথ দেখাচ্ছে ‘ব্লু হোয়েল গেম'
বিশ্বজুড়ে আত্মহত্যার পথ দেখাচ্ছে ‘ব্লু হোয়েল গেম'

ব্লু হোয়েল ঠেকাতে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা

নয়া দিগন্ত অনলাইন

ব্লু হোয়েল গেম ঘিরে তৈরি হওয়া সংকটের সঙ্গে মোকাবিলার জন্যে এবার ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারকে একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি তৈরি করার নির্দেশ দিয়েছে দেশটির শীর্ষ আদালত। আজ শুক্রবার এ আদেশ দেয়া হয়।

একটি জনস্বার্থ মামলার শুনানির সময়ে সুপ্রিম কোর্ট জানায়, ব্লু হোয়েলের মতো যে সব ভার্চুয়াল গেম মানুষের জীবন সংকটে ফেলছে সে সব খেলা বন্ধ করার জন্যে কী কী পদক্ষেপ করা যেতে পারে তা সুনির্দিষ্ট করতে অবিলম্বে একটি প্যানেল তৈরি করা প্রয়োজনীয় হয়ে উঠেছে। এছাড়া দেশের প্রতিটি হাইকোর্টকেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যাতে এ সংক্রান্ত আর কোনো আবেদন তারা গ্রহণ না করে।

দিল্লির এক আইনজীবী স্নেহা কালিতা শীর্ষ আদালতে এই জনস্বার্থ মামলাটি দায়ের করেছিলেন। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন একটি বেঞ্চ আগামী ২৭ অক্টোবরের মধ্যে কেন্দ্রকে এই বিষয়ে রিপোর্ট জমা দিতে বলেছে। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

পরীক্ষার খাতায় ব্লু হোয়েল গেম নিয়ে ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার কথা লিখল কিশোর
দশম শ্রেণির ছাত্রটি সংষ্কৃত পরীক্ষার খাতায় লিখেছে কীভাবে সে ব্লু হোয়েল গেমের ৪৯তম ধাপে পৌঁছেছে। এবং শেষতম ধাপ অর্থাৎ ৫০তম ধাপ যেখানে আত্মহত্যা করার কথা বলা হয়েছে, সেই ধাপে পৌঁছে ভয় পেয়ে গিয়েছে।

ছাত্রের পরীক্ষার উত্তরপত্র শিক্ষিকার হাতে পৌঁছলে তিনি সঙ্গে সঙ্গে স্কুল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানান। স্থানীয় প্রশাসনকেও জানানো হয়। এই মুহূর্তে ছাত্রটির কাউন্সেলিং চলছে।

ভারতের মধ্যপ্রদেশের স্থানীয় খিলচিপুরের সাব ডিভিশনাল ম্যাজিস্ট্রেট প্রবীণ প্রজাপতি জানিয়েছেন, দশম শ্রেণির স্কুল পরীক্ষার সময় উৎকৃষ্ট বিদ্যালয়ের ছাত্র সংষ্কৃত পরীক্ষার খাতায় ব্লু হোয়েল গেমের ৪৯তম ধাপ পর্যন্ত লিখে আসে। পাশাপাশি এটাও জানায় যে, শেষধাপ অর্থাৎ আত্মহত্যা করার জন্য তাকে চাপ দেওয়া হচ্ছে। হুমকি দেওয়া হয়েছে, সে আত্মহত্যা না করলে বাবা-মাকে খুন করা হবে।

উত্তরপত্র শিক্ষিকার হাতে পৌঁছনোর পরই তিনি সকলকে জানালে শিক্ষক, স্থানীয়রা মিলে একটি দল তৈরি করে ছাত্রটির সঙ্গে দেখা করে কাউন্সেলিং করছে। মনের ভয় কাটানোর চেষ্টা করছে। পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, ছাত্রটি নিজের হাত কাটাসহ একাধিক ছবি আপলোড করে ফেলেছিল। শেষ ধাপে পৌঁছে শেষ অবধি সম্বিত ফেরে। আপাতত তার কাউন্সেলিং চলছে। সূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.