শিগগিরই আত্মপ্রকাশ ‘ফুটবলার’ বোল্টের

ক্রীড়া প্রতিবেদক

স্প্রিন্টের ট্র্যাকে অদ্বিতীয় উসাই বোল্ট। সর্বকালের শ্রেষ্ঠ স্প্রিন্টার খ্যাতিও দখলে গেছে জ্যামাইকান সুপারস্টারের। বিগত ১ দশক অলিম্পিক ও বৈশ্বিক আসরের স্প্রিন্টের ট্র্যাকে বিম্ময়কর বোল্টের একক আধিপত্য হৃদয় ছুঁয়েছে নিন্দুকদেরও!
ফুটবলের প্রতি নিগূঢ় ভালোবাসার প্রকাশে স্প্রিন্টার ক্যারিয়ারে বহুবার শিরোনাম দখলে নেন জ্যামাইকান তারকা বোল্ট। ট্র্যাক ছেড়ে ফুটবলার হিসেবে দ্বিতীয় ক্যারিয়ার সূচনার প্রত্যয়ও ব্যক্ত করেন স্প্রিন্টের গতিদানব। সম্প্রতি ফিফাকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে ফুটবলের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসার বিষয়টিই সামনে এনেছেন বোল্ট। ঘোষণা দেন ফুটবলার বোল্টের আত্মপ্রকাশের টাইমলাইন। কথা বলেন চলতি বছরের ফিফার শ্রেষ্ঠ ফুটবলার রেসে নিজস্ব ফেবারিটসহ বহু বিষয়ে। বোল্টের দেয়া সাক্ষাৎকারের চৌম্বুক অংশ নিয়েই এ প্রতিবেদন :
ফিফা : ১৯৯৮ সালে প্রথম বিশ্বকাপে অংশ নেয় জ্যামাইকা। ফরাসি বিশ্বকাপের বিশেষ কোনো ঘটনা আপনাকে নাড়া দেয়?
বোল্ট : তখন আমার বয়স ১১ বছর। তবে আমি কখনো ভুলতে পারব না জ্যামাইকার ১৯৯৮ সালের বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ নিশ্চিত হওয়ার দিনটির কথা। প্রধানমন্ত্রী সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেন। মূল আসরে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে জ্যামাইকার প্রথম গোলদাতার নামও জানি। রবি আর্ল। জাপানের বিপক্ষে আমাদের জয়োৎসবে নেতৃত্ব দেন থিওডর হোয়াটমোর।
ফিফা : ট্র্যাক থেকে অবসর নিয়েছেন। ফুটবলার হিসেবে প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করছেন?
বোল্ট : হ্যাঁ, আমি ফুটবলার হতে চাই। বেশ ক’টি ক্লাবের সাথে আলোচনা হয়েছে। গত আগস্টের হ্যামেস্ট্রিং ইনজুরি বিলম্বিত করেছে স্বপ্ন পূরণের মিশনের সূচনা। দীর্ঘ দিন অনুশীলনের বাইরে। তবে আসছে বছরে ফুটবলার বোল্টের আত্মপ্রকাশ একপ্রকার নিশ্চিত!
ফিফা : ২০১৭ সালের ফিফা বেস্ট প্লেয়ার অ্যাওয়ার্ডের শীর্ষ তিন-এ ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, লায়নেল মেসি ও নেইমার। আপনি কাকে বেছে নেবেন?
বোল্ট : আমি বেছে নেবো ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে। তবে তারা তিনজনই বিম্ময়কর ফুটবলার। কিন্তু ২০১৬-১৭ মওসুম দারুণ কেটেছে পর্তুগালের অধিনায়কের। গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন রিয়াল মাদ্রিদের ডাবল জয়ে। টানা পঞ্চমবারের মতো সর্বোচ্চ গোলদাতার কৃতিত্ব রচনায় সমাপ্ত করেন চ্যাম্পিয়ন্স লিগের আসর।
ফিফা : ক্রীড়ার যেকোনো শাখায় শ্রেষ্ঠ হতে চায় তরুণ-তরুণীর জন্য আপনার উপদেশ?
বোল্ট : উপযুক্ত ব্যক্তিদের সাহচর্যে থাকতে হবে। কঠোর পরিশ্রম অপরিহার্য। আত্মবিশ্বাসী হতে হবে। সাফল্য রাতারাতি আসবে না। তবে সব কিছুই ‘সম্ভব’!

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.