বাংলায় ফ্রি ভয়েস টাইপিং অ্যাপ্লিকেশন

কম্পিউটারে বাংলা ফন্টে লিখতে গিয়ে অসুবিধায় পড়েন কম বেশি সবাই। বাংলা শব্দকে লেখার মাধ্যমে তুলে ধরা যায় এমন কোনো পদ্ধতির কথা আগে হয়তো শুনেননি। ভারতের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্নিশ্বর চক্রবর্তীর সাইটে িি.িধমহরপযধশৎধ.ড়ৎম/াড়রপবৎবপড়মহরঃরড়হ/রহফবী.ঢ়যঢ় ঠুকলেই যাবতীয় উত্তর পেয়ে যাবেন একেবারে বিনামূল্যে। বাংলায় ভয়েস টাইপিং অ্যাপ্লিকেশনের উদ্ভাবক ভারতের পশ্চিমবঙ্গের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্নিশ্বর চক্রবর্তী কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে গণিতে স্নাতক হয়ে যাদবপুরে কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশনে মাস্টার ডিগ্রি করেছেন। এরপর সেখানেই দুই বছরের রিসার্চের কাজে যুক্ত থেকেছেন।
ইউনিকোড ফ্রন্ট ডেভেলপ করার সঙ্গে পুরনো বাংলা লেখনির টেক্সট কনভার্টারও উদ্ভাবন করেছেন তিনি। বাংলা কথোপকথনকে কিভাবে সরাসরি লেখনীতে পরিবর্তন করা যায় সেই কাজও শেষ। ইংরেজি কথোপকথন থেকে টেক্সট কনভার্সনের পদ্ধতিই অনুসরণ করেছেন বলে জানিয়েছেন অগ্নিশ্বর। তার এই কাজের তিন মাস আগে গুগল জিবোর্ড একইরকমের অ্যাপ্লিকেশনের উদ্ভাবন করেছে। কিন্তু তার এই উদ্ভাবন সাধারণের ব্যবহারের জন্য। যদিও কোনো ব্যবসায়িক উদ্দেশ্য নেই অগ্নিশ্বরের। এমন কি তার এই উদ্ভাবনের জন্য কোনো পেটেন্ট নেয়ারও ইচ্ছে নেই তার। কয়েক মাস পরে সব সোর্স কোডও তিনি প্রকাশ করে দেবেন বলে জানিয়েছেন। এই মুহূর্তে শুধু ডেস্কটপে অগ্নিশ্বর চক্রবর্তীর অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করা যাচ্ছে। ফোনে এই অ্যাপ্লিকেশনের ব্যবহারের জন্য এসএসআই সার্টিফিকেট তাকে কিনতে হবে। এই মুহূর্তে সেটা তার পে সম্ভব নয় বলেই জানিয়েছেন তিনি। নিজের সীমিত বাজেটের মধ্যে সবার ব্যবহারের জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন অগ্নিশ্বর।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.