কঠিন বাড়ির কঠিন জানালা! : জীবনের বাঁকে বাঁকে

কাজী সুলতানুল আরেফিন

নাহিদা তোমার মনটা ছিল পাথরের তৈরী কঠিন এক বাড়ি। আর সে বাড়ির জানালাটা ছিল আরো কঠিন ইস্পাতের গড়া। আমি সেই জানালা দিয়ে অনেক চেষ্টা করেও প্রবেশ করতে পারিনি। তোমাকে ভালোবাসার আকাশ-বাতাস দেখাতে পারিনি! তোমার কাছে আমার চাওয়া ছিল খুব সামান্য। আমি শুধু চেয়েছিলাম, তুমি আমাকে অল্প অল্প করে বুঝতে শিখবে। আমার ছোট ছোট চাওয়াগুলোকে মেনে নেবে। কিন্তু তোমার কাছে ছোট-বড় কোনো চাওয়ারই মূল্য ছিল না। তোমার মনের বাড়িজুড়ে ছিল স্বার্থপরের মতো ভাবনা। ছিল শুধু নিজের চাওয়া-পাওয়াগুলোর আশা। রাতদিন শুধু নিজের সুখের অঙ্ক কষা ছিল তোমার অভ্যাস। আমি মাঝে মাঝে ভেবে কোনো কূলকিনারা পাই না, এমন হলে তবে সম্পর্কে কেন জড়ালে? একা একা নিজের সাগরে নিজেই ভেসে যেতাম। মন বাড়িতে জায়গা দেয়ার স্বপ্ন দেখিয়ে হাত ধরে টেনে নিয়ে আবার কেন সেই সাগরে আমাকে ভাসিয়ে দিলে?
তবে নাহিদা তোমাকে একটা কথা আমি বলে রাখছি। এ দুনিয়াতে অনেক কিছু চিরতরে হারিয়ে যায় বা বিলীন হয়ে যায়। কিন্তু মনের যন্ত্রণা বা ব্যথাগুলো স্মৃতি হয়ে মনের ভেতরে আসন গেড়ে চিরতরে রয়ে যায়। স্বপ্ন আসে, স্বপ্ন যায়। রঙিন হাওয়ায় দোল খায় অনেক কিছু। কিন্তু আমার বুকের চাপা দীর্ঘশ্বাস আজীবন তোমাকে অভিশাপ দিয়ে যাবে। তোমার মনের কঠিন বাড়ি, যে বাড়িতে আমার থাকার জায়গা হলো না। তোমার মনের সেই কঠিন জানালা, যে জানালা দিয়ে আমি প্রবেশ করতে পারলাম না। সে বাড়ি আর জানালা একদিন ধসে পড়বে। এটা আমি নিশ্চিত।
পূর্ব শিলুয়া
ছাগলনাইয়া, ফেনী।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.