অচিরেই ভারতে বৈধতা পাচ্ছে ড্রোন

আহমেদ ইফতেখার

ভারতে বৈধতা পেতে যাচ্ছে ড্রোন। সম্প্রতি এর জন্য খসড়া আইন চালু করেছে ভারত সরকার। এই আইনের আওতায় সাধারণ মানুষের ড্রোন ব্যবহার ছাড়াও বাণিজ্যিকভাবে ড্রোন দিয়ে ফটোগ্রাফি, বাড়িতে পণ্য সরবরাহ এবং যাত্রী পরিবহন করা যাবে। এজন্য সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করেই খসড়া আইন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির সিভিল অ্যাভিয়েশন মন্ত্রী আশোক গাজাপাথি রাজু। 

আপাতত মন্তব্য ও পরামর্শ পেতে এক মাসের জন্য জনগণের মধ্যে এটি চালু করা হচ্ছে। ডিসম্বরের ৩১ তারিখের মধ্যে ড্রোন ব্যবহারের নীতিমালা চূড়ান্ত করা হবে। খসড়া নীতি অনুযায়ী সর্বোচ্চ ওজন বহনের ওপর ভিত্তি করে ড্রোনগুলোকে পাঁচটি শ্রেণীতে ভাগ করা হয়েছে। ২৫০ গ্রাম পর্যন্ত ন্যানো, ২৫১ গ্রাম থেকে দুই কেজি পর্যন্ত মাইক্রো, দুই থেকে ২৫ কেজি পর্যন্ত মিনি, ২৫ থেকে ১৫০ কেজি পর্যন্ত ক্ষুদ্র এবং ১৫০ কেজির ওপর বৃহৎ ড্রোন। ন্যানো শ্রেণী এবং যেগুলো সরকারি নিরাপত্তা সংস্থা ব্যবহার করে থাকে সেগুলো ছাড়া অন্যান্য বাণিজ্যিক শ্রেণীর ড্রোন নিবন্ধন করবে ডিজিসিএ, তাদেরকে একটি ‘ইউনিক আইডেনটিফিকেশন নাম্বার’ দেয়া হবে। মিনি এবং তার ওপরের শ্রেণীর ড্রোনের ক্ষেত্রে আনম্যানড এয়ারক্রাফট অপারেটর পারমিট দরকার হবে। আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২ কেজি পর্যন্ত ড্রোন মডেলগুলো সর্বোচ্চ ২০০ ফুট পর্যন্ত উচ্চতায় উড়ানো যাবে, এতে কোনো অনুমোদন বা শণাক্তকারী নাম্বার দরকার হবে না।

ড্রোনগুলো যারা রিমোট দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করবেন তাদেরকে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ নিতে হবে। তবে ন্যানো ও মাইক্রো শ্রেণীর ক্ষেত্রে এটি প্রয়োজন নেই। খসড়া আইনে নো ফ্লাই জোনে ড্রোন উড়ানোর ক্ষেত্রেও নিষেধাজ্ঞা রাখা হয়েছে। ফলে এয়ারপোর্টের পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে আন্তর্জাতিক সীমন্তের ৫০ কিলোমিটার, বন্দর এলাকার ৫০০ মিটার এবং দিল্লির ভিজেই চৌকের পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে ড্রোন উড়ানো যাবে না। এ ছাড়া ঘনবসতি পূর্ণ এলাকায় অনুমোদন ছাড়া ড্রোন উড়ানো যাবে না। 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.