সোনারগাঁওয়ে নদী ও কৃষিজমি ভরাটের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল, সড়ক অবরোধ

সোনারগাঁও (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে মেঘনা নদীর তীরবর্তী বৈদ্যেরবাজার এলাকায় মারীখালী নদী ও কৃষিজমি ভরাটের প্রতিবাদে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল, সড়ক অবরোধ ও স্মারকলিপি দিয়েছে ৮টি গ্রামের নারী-পুরুষ।

আজ সোমবার দুপুরে সোনারগাঁও প্রেস ক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। সোনারগাঁও উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের বৈদ্যেরবাজার, সাতভাইয়াপাড়া, রামগঞ্জ, চান্দেরকীর্তিসহ ৮ গ্রামের সহ¯্রাধিক সাধারণ মানুষ এতে অংশ নেন। এ সময় মোগরাপাড়া চৌরাস্তা-বারদী সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করে তারা। এতে প্রায় আধা ঘন্টা ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। এসময় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

পরে ভুক্তভোগীরা সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে স্মারকলিপি দেয়। স্মারকলিপি দিতে উপজেলা কার্যালয়ে প্রবেশের পর যান চলাচল শুরু হয়।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী যুবলীগ নেতা রুবাইয়াত হোসেন শান্ত, সোনারগাঁও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুলতান আহমেদ মোল্লা বাদশা, সোনারগাঁও স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মাসুদ রানা মানিক, বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সম্পাদক ফারুক হোসেন, মানবাধিকার কর্মী জাহানারা বেগম, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির নেতা আব্দুস সালাম বাবুল, সোনারগাঁও মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক উর্মি আক্তার, সোনারগাঁও নদী রক্ষা কমিটির সদস্য ফরিদ হোসেন, ভুক্তভোগী হাজী আজিজুল্লাহ, গোলাম মর্তুজা লিংকন, মজিবুর রহমান প্রমুখ।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, বৈদ্যেরবাজার মাছঘাট এলাকায় গত এক সপ্তাহ ধরে কয়েকটি ড্রেজারের মাধ্যমে ঐতিহ্যবাহী মারীখালি নদের মুখ দখল করে ‘হেরিটেজ পলিমার অ্যান্ড সেমি টিউবস লিমিটেড’ নামের একটি শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থানীয় বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. আব্দুর রউফের মাধ্যমে বালু ভরাট করে নৌপথ বন্ধ করে দিয়েছে। ফলে এ অঞ্চলের প্রায় ২০ হাজার মানুষের জীবিকা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। এ নদী দিয়ে সুদূর কাইকারটেক হাট, উদ্ধবগঞ্জ বাজার ও মোগরাপাড়া চৌরাস্তা এলাকার ব্যবসায়ীদের নদীপথে মালামাল পরিবহন ও যাতায়াত বন্ধ হয়ে গেছে।

এছাড়াও ব্যক্তিমালিকানাধীন জমি ও কৃষিজমি ক্রয় না করেই ওই কোম্পানির লোকজন জোরপূর্বক বালু ভরাট করছে। ওই এলাকার হাজী আজিজুল্লাহর ৭টি দাগে প্রায় ১ একর ১০ শতাংশ জমির মালিকানা নিয়ে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের বিএনপি দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো: রেজাউল করিমের স্ত্রী সুরাইয়া করিম মুন্নীর সঙ্গে আদালতে একটি মামলা চলমান রয়েছে। মামলা বিচারাধীন থাকা অবস্থায় সুরাইয়া করিম মুন্নী বিরোধকৃত জমি ‘হেরিটেজ পলিমার অ্যান্ড সেমি টিউবস লিমিটেডের’ ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো: মোস্তাফা কামাল ওরফে আল মোস্তফার নিকট বিক্রি করে দেন। বর্তমানে ওই বিরোধপূর্ণ সম্পত্তিতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে।

স্থানীয় রাজনৈতিক প্রভাবশালী বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. আব্দুর রউফের নেতৃত্বে ৩০-৩৫জনের একটি সিন্ডিকেট ওই জমির পাশ্ববর্তী দোকানপাট উচ্ছেদ করে ড্রেজারের মাধ্যমে বালু ভরাটের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও ওই এলাকার নিরীহ প্রবাসী সাখাওয়াত হোসেন, মজিবুর রহমান,শাহজালাল, হাজী গোলাম মোস্তফাসহ প্রায় ১০-১২জনের জমি ক্রয় না করেই কৃষি জমিতে বালু ভরাটের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

মানববন্ধনে বক্তারা আরো বলেন, অবিলম্বে অবৈধভাবে বালু ভরাট বন্ধ না করলে বালু সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর কর্মসূচি পালন করা হবে। অবৈধভাবে বালু ভরাট বন্ধ করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

মানববন্ধন শেষে ভুক্তভোগীরা সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাধ্যমে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে স্মারকলিপি দেয়।

এ ব্যাপারে সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা শহিনুর ইসলাম জানান, এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে একটি স্মারকলিপি পেয়েছি। তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.