লঙ্কান বোলারের অদ্ভূত বোলিং অ্যাকশন
লঙ্কান বোলারের অদ্ভূত বোলিং অ্যাকশন

অদ্ভূত বোলিং অ্যাকশন! (ভিডিও)

নয়া দিগন্ত অনলাইন

একটু ভিন ধরনের বোলিং অ্যাকশন হলে সেই বোলার বিপক্ষ শিবিরের আলোচনার বিষয়বস্তু হয়ে ওঠে। সাধারণত, স্পিনারদের ক্ষেত্রে এ ধরনের ব্যতিক্রমী বোলিং অ্যাকশন দেখা যায়।

চলমান অনুর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপের একটি ম্যাচে শ্রীলঙ্কার ১৮ বছরের স্পিনার কেভিন কোঠথিগোড়ার বোলিং অ্যাকশন সবার নজর কেড়েছে। অনেকটা দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক চায়নাম্যান পল অ্যাডামসের মতো।

ডান হাতি লেগ স্পিনার কেভিন উঠে এসেছেন রিচমন্ড কলেজ থেকে। শ্রীলঙ্কা এ দলের সাবেক ওপেনার ধামিকা সুদর্শনের কোচিংয়ে বেড়ে উঠেছেন কেভিন। আর এই রিচমন্ড কলেজ থেকে অনেক টেস্ট খেলোয়াড় উঠে এসেছেন।

আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কার ম্যাচে কেভিন খেলেছিলেন। তিনি ওই ম্যাচে ১টি উইকেটও নেন।

দেখুন ভিডিওতে-

 

একাই প্রতিপক্ষকে গুটিয়ে দিলেন রাহী

ঘরোয়া ক্রিকেটে বেশ কিছুদিন থেকেই নামটা বেশ উচ্চারিত হচ্ছে! আবু জায়েদ রাহী। যে ক’জন পেস বোলার বের হয়ে আসছেন, তাদের মধ্যে তিনিও একজন। নিজেকেও গুছিয়ে ফেলছেন তিনি একটু একটু করে। রোববার নিজের ক্লাসের আরো একবার প্রমাণ দিলেন। মিরপুরে চিটাগাং ভাইকিংসের ইনিংস এক অর্থে গুটিয়ে দেন এ ডানহাতি মিডিয়াম ফাস্ট বোলার। ১৭০ করে খুলনার ম্যাচ বাঁচানোর গ্যারান্টি ছিল না। চিটাগাংয়ের যথেষ্ট শক্ত ব্যাটিং লাইন। এরপরও সে ব্যাটিং লাইন ১৫২ রানে আটকে দেয়া সম্ভবপর হয়েছে রাহীর দুর্দান্ত বোলিংয়েই।

প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ৫৬ ম্যাচে ১৭১ উইকেট নেয়া বোলার চিটাগাংয়ের চার ব্যাটিং স্তম্ভকে সাজঘরে পাঠিয়েছেন। নিউজিল্যান্ডের ড্যাশিং ব্যাটসম্যান লুক রঞ্চি, সৌম্য সরকার, শ্রীলঙ্কার দিলশান মুনাওয়েরা ও পাকিস্তানের তারকা ব্যাটসম্যান মিসবাহউল হক। এর আগেও যাদের ব্যাটে ভর করে চিটাগাং সফল্য পেয়েছিল তাদেরকে তোপের মুখে পড়তে হয়েছে রাহীর বোলিংয়ে। সূচনাতেই দুই ওপেনার রঞ্চি ও সৌম্যকে বিদায় করেন তার করা প্রথম ওভারে। দলের রান ছিল তখন ২। এরপর দিলশান মুনাওয়েরকে যখন আউট করেছেন তখন ভাইকিংসের রান ২১/৩। দলীয় ৯৭ রানে নিয়েছিলেন তিনি মিসবাহউল হকের উইকেট। এরপর যে রানটা করেছে ভাইকিংস সেটা আসলে পরাজয়ের ব্যাবধান কমানোর জন্যই।

ম্যাচ শেষে টাইটানসের এ ক্রিকেটার বলেন, আসলে আমি আমার লাইন ও লেন্থটা ঠিক রেখে বোলিং করেছি। আমি খুবই খুশি যে দলের জয়ে অবদান রাখার জন্য। ম্যাচের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আসলে বিপিএলের মতো শর্টার ভার্সনের ম্যাচে পাওয়ারপ্লেতে বোলিং করা খুবই টাফ। তা ছাড়া উইকেটও বেশ স্লো। ফলে আমি স্লোয়ারের দিকেই বেশি নজর দিয়েছি। ২৪ বছর বয়সের এ ক্রিকেটার নিজের পারফরম্যান্সে আরো একটি কারণে খুশি। কারণ এমন প্লাটফর্মে সাফল্য পাওয়ার অর্থ সোস্যাল মিডিয়ায় বেশ আলোড়ন ওঠা। এটা তিনি বেশ এনজয় করেন বলেই জানিয়েছেন।

তিনি বলেন,‘আমি চেষ্টা করব যে পারফরম্যান্সটা করেছি সেটা পরের ম্যাচগুলোতেও ধরে রাখার জন্য। এ ম্যাচে ৩৫ রানের বিনিময়ে নিয়েছেন চার উইকেট। আগের ম্যাচে দল জিতলেও তার পারফরম্যান্স অতটা কাজে লাগেনি। সিলেটে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ৪০ রান দিয়ে কোনো উইকেট পাননি। ঢাকার বিপক্ষে যে ম্যাচে তার দল বড় ব্যবধানে হেরেছিল, সে ম্যাচে তিনি অবশ্য দুই উইকেট নিয়েছিলেন। রাহী কাল বলেন, এ ম্যাচের পারফরম্যান্স আমাদের আত্মবিশ্বাস আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। আমরা পরের ম্যাচগুলোতে আরো ভালো করতে চাই।

রাহীর বোলিংয়ের প্রশংসা করেন তার অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদও। তিনি বলেছেন, আসলে মিরপুরের উইকেটে প্রথম ব্যাটিং করাটাই ভালো। উইকেটের ধরনটা আগ থেকে অনুমান করা মুশকিল। আমরা ম্যাচের প্রেসার বেশ ভালোমতোই হ্যান্ডেল করেছি। তবে আমি ধন্যবাদ দিতে চাই রাহীকে। সে খুবই ভালো বোলিং করেছে, এবং প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে যে বোলিংটা প্রয়োজন সেটাই তিনি করতে পেরেছেন। চিটাগাংয়ের অধিনায়ক মিসবাহউল হক অবশ্য তার দলের বোলারদের দোষারোপ করেছেন।

তিনি বলেন, বোলাররা শেষের কিছু ওভারে একটু বেশি রানই দিয়ে ফেলেছেন। তার খেসারত গুণতে হয়েছে। তা ছাড়া যে টার্গেট আমাদের ছিল সেটাও কাভার করা সম্ভব ছিল, কিন্তু ব্যাটসম্যানরা পারেননি দায়িত্ব নিয়ে খেলতে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.