টেন্ডার আহ্বানে অনিয়মের অভিযোগ

শরীয়তপুর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলীসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা

শরীয়তপুর সংবাদদাতা

নিয়মবহির্ভূতভাবে উন্নয়নমূলক কাজের দরপত্র আহ্বান করায় শরীয়তপুর জেলা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী সাজ্জাদ আহমেদসহ চারজনের বিরুদ্ধে শরীয়তপুর যুগ্ম জেলা জজ আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত ১২ নভেম্বর শরীয়তপুর যুগ্ম জেলা জজ প্রথম আদালতে মামলাটি দায়ের করেন মেসার্স আর কে কনস্ট্রাকশনের কর্ণধার মোহাম্মদ খান এ মামুন রুবেল। মামলার অন্য বিবাদিরা হলেনÑ এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী, প্রকল্প পরিচালক ও শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক। পাশাপাশি তিনি এলজিইডি কর্তৃক গত ১৯ অক্টোবরের নোটিশের ওপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চেয়েছেন। আদালত ওই টেন্ডার নোটিশের পরবর্তী কার্যক্রম কেন বন্ধ করা হবে না মর্মে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন।
মামলার বিবরণে জানা যায়, শরীয়তপুর এলজিইডি নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয় থেকে গত ১৯ অক্টোবর ১৪টি কাজের দরপত্র আহ্বান করা হয়। টেন্ডার আহ্বান উন্মক্ত দরপত্র পদ্ধতিতে অনুসরণ করা হয়। যাতে প্রতিটি কাজের জন্য তিন কোটি টাকার কম মূল্য নির্ধারণ করার কথা। কিন্তু নির্বাহী প্রকৌশলী বিধিমালা অনুযায়ী সীমিত টেন্ডার মেথড পদ্ধতি অনুসরণ না করে ওপেন টেন্ডার মেথড পদ্ধতিতে দরপত্র আহ্বান করেন। ওই পদ্ধতি উন্মক্ত ই-টেন্ডার নোটিশটি সম্পূর্ণ অবৈধ, বেআইনি ও অকার্যকর দাবি করে মেসার্স আর কে কনস্ট্রাকশনের কর্ণধার মোহাম্মদ খান এ মামুন শরীয়তপুর যুগ্ম জেলা জজ প্রথম আদালতের বিচারক রিপতি কুমার বিশ্বাসের আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। পাশাপাশি মামলার বাদি এলজিইডি কর্তৃক গত ১৯ অক্টোবরের নোটিশের ওপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চেয়ে একটি আবেদন করেছেন। বিচারক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শরীয়তপুর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মো: সাজ্জাদ আহমেদকে ওই টেন্ডার নোটিশের পরবর্তী কার্যক্রম কেন বন্ধ করা হবে না, সেই মর্মে পাঁচ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন।
মো: খান এ মামুন বলন, সর্বশেষ সংশোধন পিপিআর ২০১৬ অনুযায়ী, তিন কোটি টাকার কম প্রকল্পের প্রাক্কলিত মূল্য সীমিত দরপত্র পদ্ধতিতে আহ্বান করার কথা থাকলেও নির্বাহী প্রকৌশলী কোনো দরপত্র আহ্বানে সীমিত পদ্ধতি অনুসরণ করেননি। তাই দরপত্রে অংশগ্রহণ এবং কাজ করার অধিকার ক্ষুণœ করায় আমি উন্মুক্ত দরপত্র পদ্ধতি ব্যবহারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছি।
এ ব্যাপারে শরীয়তপুর জেলা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মো: সাজ্জাদ আহমেদ মুঠোফোনে বলেন, সরকার ওটিএম (উন্মুক্ত দরপত্র) পদ্ধতিতে দরপত্র আহ্বান করার নিয়ম করায় আমরা সে পদ্ধতিতেই দরপত্র আহ্বান করছি। যখন এলটিএম (সীমিত দরপত্র) পদ্ধতিতে দরপত্র আহ্বান করার নিয়ম করবে, তখন আমরা সেভাবেই দরপত্র আহ্বান করব। আমরা মামলার জবাব আদালতে দেবো।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.