ইমরুল কায়েস (ফাইল ছবি)
ইমরুল কায়েস (ফাইল ছবি)

ব্যাটেই জবাব দিচ্ছেন ইমরুল

নয়া দিগন্ত অনলাইন

তার বিরুদ্ধে কত সমালোচনা! টি-টোয়েন্টিতে ‘চলে না’, ‘দলের বোঝা’, সোশাল মিডিয়ায় ক্রিকেট সমর্থকদের এমন সমালোচনা হরহামেশাই দেখা যায়। বিপিএলের প্রথম ম্যাচে মাত্র ১২ রান করে আউট হওয়ার পর সেটি আরো বাড়িয়ে দিয়েছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের অনেক দর্শক। অবশ্য ইমরুল কায়েসের রেকর্ডও এসবের জন্য কিছুটা দায়ী। জাতীয় দলের হয়ে ওয়ানডে ও টেস্টে ভালো করলেও সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে তার রেকর্ড ভালো নয়। কিন্তু সব সমালোচনার জবাব যেন ব্যাট হাতেই দিতে চাইছেন জাতীয় দলের ওপেনার ইমরুল কায়েস।


বিপিএলে টানা তিন ম্যাচে তার ব্যাট থেকে এসেছে ম্যাচ উইনিং ইনিংস। সব চেয়ে বড় কথা পরপর তিন ম্যাচেই দলের প্রয়োজনের মূহর্তে জ্বলে উঠেছেন ইমরুল। চিটাগংয়ের বিরুদ্ধে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে তিন নম্বরে নেমে ম্যাচ শেষ করে ফিরেছেন তিনি। দ্বিতীয় উইকেটে জশ বাটলার ও তৃতীয় উইকেটে মারলন স্যামুয়লেসের সাথে তার দুটি মূল্যবান জুটিই ম্যাচ থেকে ছিটকে দিয়েছেন চিটাগং ভাইকিংসকে। ৮ উইকেটে সহজ জয় পেয়েছে দল কুমিল্লা। ৩১ বলে ৩৩ রানে অপরাজিত ছিলেন ইমরুল।
পরের ম্যাচে প্রতিপক্ষ ছিলো রাজশাহী কিংস। এই ম্যাচেও দ্বিতীয় উইকেট জশ বাটলারের সাথে ৯৭ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে ইমরুল ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছেড়েছেন। ৪১ বলে ৪৪ রানে অপরাজিত ইনিংসে ছিলো ৪টি চার ও একটি ছক্কার মার।


আর মঙ্গলবার ঢাকার মাঠে চিটাগং কিংসের সাথে ফিরতি ম্যাচে ১৪৪ রান তাড়া করতে নেমে ৩৬ বলে ৪৫ রানের ইনিংস খেলে ইমরুল যখন আউট হয়েছেন, দলের জয় অনেকটাই নিশ্চিত তখন। দুর্দান্ত সেই ইনিংসে ছিলো ৩টি ছক্কা ও ২টি চার। মাত্র ৭ রানে আইকন খেলোয়াড় তামিম আউট হওয়ার পরও ইমরুল এতটুকু বুঝতে দেননি তার অভাব।
টুর্নামেন্টে চার ম্যাচ শেষ তার রান ১২, ৩৩*, ৪৪* ও ৪৫। যেকোন বিচারে দারুণ পারফরম্যান্স বলতেই হবে।  ৬৭ গড়ে মোট রান ১৩৪।

কুমিল্লার টানা তিন
প্রথম ম্যাচে হারের পর কথা দিয়েছিলো ঘুরে দাড়াবে, কথা রেখেছে মোহাম্মদ নবীর কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। মঙ্গলবার চিটাগং ভাইকিংসকে হারিয়ে এই নিয়ে টানা তিন ম্যাচে জিতলো দলটি। যথারীতি এবারো জয়ের নায়ক কুমিল্লার টপ অর্ডার। এদিন মিসবাহ উল হকের দলকে তারা হারিয়েছে ৬ উইকেটে, বাকি ছিলো তখনো ১১টি বল।
এদিন দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে চিটাগংয়ের দেয়া ১৪০ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে শুরুতেই ফিরে যান কুমিল্লার আইকন খেলোয়াড় তামিম ইকবাল। দলীয় ৭ রানে আর ব্যক্তিগত ৪ রানে লঙ্কান অলরাউন্ডার মুনাবিরার বলে আউট হয়েছেন আজই প্রথম খেলতে নামা তামিম। এরপর দলীয় ৩৯ রানের আরেকটি উইকেট হারালেও তৃতীয় উইকেটে ইমরুল কায়েস আর জশ বাটলারের ৯৫ জুটি তাদের চালকের আসনে বসায়। ৩৬ বলে ৪৫ রান করে ইমরুল ফিরে যান, বাটলার ফিরে যান ৩১ বলে ৪৪ রান করে। তবে ততক্ষণে ম্যাচ তাদের পকেটে। বাকি কাজটুকু সেরেছেন মারলন স্যামুয়েলস।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.