কোচ উধাও তবু সহজ জয়

মোহামেডান ০ : ৩ (সলোমন, রাফায়েল, জাহেদ)শেখ জামাল
ক্রীড়া প্রতিবেদক

হেড কোচ ছাড়াই মাঠে নামল দুই দল। মোহামেডানের জন্য অবশ্য এটা নতুন কিছু নয়। ভারতীয় কোচ সৈয়দ নইমুদ্দিনকে হটিয়ে লিগের বেশির ভাগ ম্যাচই হেড কোচ ছাড়া সাদা কালো শিবির। কাল এককাতারে যোগ দিলো লে. শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবও। মূল কোচ যোসেফ আফুসির অনুপস্থিতিতেই মাঠে আসা। গতকাল সকালেই নাকি অ্যাপার্টমেন্ট থেকে উধাও হয়ে যান এ নাইজেরিয়ান কোচ। তার সাথে থাকা সহকারীকে জানিয়ে গেছেন লন্ডন চলে যাচ্ছেন তিনি। এর পর থেকে তার মোবাইল ফোনও বন্ধ। জানান শেখ জামালের টিম লিডার আশরাফ উদ্দিন আহমেদ চুন্নু। অবশ্য আফুসির অনুপস্থিতিতেও সমস্যায় পড়তে হয়নি শিরোপার রেসে থাকা দলটিকে। বরং সহজ জয়েই মোহামেডান বাধা অতিক্রম তাদের। ৩-০তে জিতে শেখ জামাল এখন পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে। ১২ খেলায় ২৭ পয়েন্ট তাদের। হেরে ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ নষ্ট করা মোহামেডানের পুঁজিতে ১৭ পয়েন্ট।
কেন হঠাৎ চলে যাওয়া আফুসির। এবার সাদামাটা দল গড়লেও এখন শেখ জামালের শক্তিশালী টিমে পরিণতি হওয়ার নেপথ্য এ কোচ। কোচিং লাইসেন্স না থাকায় এএফসি তাকে জরিমানা করেছিল। পরে শেখ জামালের টাকায় লাইসেন্স করেছিলেন। এবার বাফুফে আয়োজিত ‘এ’ লাইসেন্স কোর্সও করেছেন। এরপরও পুরনো এ ক্লাবের সাথে সম্পর্কচ্ছেদ তার। সহকারী কোচ তাজ উদ্দিন তাজু জানান, ‘সকালে আমার হোয়াটসআপে আফুসির ম্যাসেজ, আমার সাথে মতের মিল হচ্ছে না ক্লাব কর্তৃপক্ষের। তাই চলে যাচ্ছি।’ চুন্নুর বক্তব্য, ক্লাব থেকে প্রচুর টাকা অগ্রিমও নিয়েছেন তিনি। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে তার চলে যাওয়াটা বিস্ময়কর।’ এ দিকে দলের আর্জেন্টাইন ট্রেইনার অ্যারিয়েল কোলম্যানও চলে গেছেন। তার বিষয়ে চুন্নুর জবাব, স্ত্রীর অসুস্থাতায় এক সপ্তাহ আগে ছুটি নিয়ে দেশে গেছেন কোলম্যান।
আফুসির বদলে কাল গোলরক্ষক কোচ মোশাররফ বাদল মূল দায়িত্বে। এতে সফল তিনি। শুরুর দিকে মোহামেডান ভালো খেলে গোল মিসের খেসারত দিয়েছে পরে। ৩৯ মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাক থেকে এগিয়ে যায় শেখ জামাল। জাভেদ খানের শট গোলরক্ষক লিটন ঠেকালে ফিরতি বলে গোল করেন সলোমন কিং। ৪৯ মিনিটে জাহেদ পাভেজের কর্নারে রাফায়েলের হেডে ব্যবধান দ্বিগুণ। ৫৩ মিনিটে সলোমনের ক্রসে জাহেদ পারভেজের হেডে পরাস্ত মোহামেডান কিপার। ৮৮ মিনিটে মোহামেডানের অগাস্টিনের শট ক্রসবারে লাগে। হারের জন্য মোহামেডান কোচ ডিফেন্ডার মিন্টু শেখের ব্যর্থতাকে দায়ী করলেন।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.