মহাজোটে নানা হিসাব-নিকাশ সুবিধাজনক অবস্থানে বিএনপি

ঠাকুরগাঁও-৩ আসন
মো: মামুনুর রশীদ পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও)

ঠাকুরগাঁও-৩ আসন পীরগঞ্জ-রানীশংকৈল উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভা মিলে ঠাকুরগাঁও-৩ আসন। একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে কে কোন দলের প্রার্থী হচ্ছেন এ নিয়েই এখন সর্বত্র আলোচনা চলছে। গত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য হাফিজউদ্দীনের সঙ্গে লড়াই করে রাশেদ খান মেননের ওয়ার্কার্স পার্টির প্রার্থী ইয়াসিন আলী হাতুড়ি মার্কা প্রতীক নিয়ে এ আসনে বিজয়ী হয়ে এমপি নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এলাকায় তার কোনো উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড পরিলক্ষিত হয়নি বলে মনে করেন এলাকার সাধারণ মানুষ। যেহেতু তিনি দলীয়ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি এবারেও মনোনয়ন পেতে আশাবাদী। তা ছাড়া ১৪ দলীয় জোট বা মহাজোট থেকেও তিনি মনোনয়ন পাবেন বলে আশাবাদী। স্বাধীনতার পর থেকে এ আসনটি আওয়ামী লীগের দখলে থাকলেও মহাজোটের কারণে দলটির সমর্থনে কখনো জাতীয় পার্টির প্রার্থী আবার কখনো ওয়ার্কার্স পার্টির প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও আসনটিতে জোট বা মহাজোটের হিসাব-নিকাশ আসতে পারে। সে ক্ষেত্রে মনোনয়ন দ্বিধা-দ্বন্দ্বে মহাজোটের প্রার্থীরা। অন্য দিকে বিএনপি এ আসনে কোনো দিন জিততে না পারলেও প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহামানের সময় পীরগঞ্জ-বোচাগঞ্জসহ এ আসনে সীমানা থাকায় সে সময় পীরগঞ্জে অনেক ভোটে এগিয়ে ছিল বিএনপি। বর্তমানে পীরগঞ্জ-রানীশংকৈল দু’টি উপজেলা নিয়ে এ আসনের নির্বাচনী এলাকা। দুই উপজেলার চেয়ারম্যান বিএনপি থেকে নির্বাচিত হয়েছেন। এ আসনে বিএনপির প্রার্থীর বিজয় সুনিশ্চিত বলে ধারণা করেন সাধারণ ভোটার ও দলটির নেতারা। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও ওয়ার্কার্স পার্টি থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী রয়েছেন। অন্য দিকে ২০ দলীয় জোটের পক্ষে বিএনপির মো: জাহিদুর রহমান জাহিদ একক প্রার্থী হওয়ায় সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন। স্থানীয় নেতাকর্মীদের কাছে যেমন তার জনপ্রিয়তা রয়েছে, তেমনি সাধারণ মানুষের কাছেও তার গ্রহণ যোগ্যতা রয়েছে। এ আসনে তিনি তিনবার জাতীয় সংসদ নির্বাচন করে হেরে যান। বর্তমানে গ্রামগঞ্জে চাস্টলে সাধারণ মানুষ এবার তাকেই ভোট দিবেন বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। তিন তিনবার হেরে যাওয়ার পরেও মো: জাহিদুর রহমান জাহিদ মাঠ ছাড়েননি। দিন-রাত অবিরাম গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। খুলিবৈঠক, উঠানবৈঠক, হাটেঘাটে, বাজারে, ধর্মীয় সভা-সমাবেশ এমনকি মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়েও ভোটের জন্য গণসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন।
অন্য দিকে মহাজোট বা দলীয়ভাবে নির্বাচন হলে মনোনয়ন পাওয়ার আশাবাদী জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ইমদাদুল হক। সমাজসেবাসহ সব ক্ষেত্রেই তার উপস্থিতি রয়েছে। এ ছাড়া মনোনয়ন লাভের আশায় কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন এবং এলাকায় তিনি গণসংযোগ চালাচ্ছেন। অপর দিকে আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য ও রানীশংকৈল উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা জাহান লিটার নামও শোনা যাচ্ছে। এ দিকে মহাজোটের শরিক দল বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জাতীয় পার্টির প্রার্থী হাফিজ উদ্দিন আহমেদও মহাজোটের প্রার্থিতার দাবিদার হিসেবে ব্যাপক গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। যদিও ৫ জানুয়ারির দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ওয়ার্কার্স পার্টির প্রার্থী মো: ইয়াসিন আলীর কাছে ২৪,৪৪৫ ভোটে হেরে যান। তবে মহাজোটের প্রার্থিতা হিসাব-নিকাশের কারণে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন বিএনপির একক প্রার্থী মো: জাহিদুর রহমান। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট ও বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের নেতারা নিজ নিজ জোটের মনোনয়ন পাওয়ার আশায় কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে যোগাযোগ অব্যাবহত রাখার পাশাপাশি এলাকায় গণসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন। এ আসনে মোট ভোটার ২ লাখ ৯৭ হাজার ২৬৮ জন। তার মধ্যে পীরগঞ্জ উপজেলায় মোট ভোটা ১ লাখ ৮১ হাজার ৫০ জন। পুরুষ ৯১ হাজার ৮৩০ জন, মহিলা ৮৯ হাজার ২২০ জন, রানীশংকৈল উপজেলায় মোট ভোটার ১ লাখ ১৬ হাজার ২১৮ জন। পুরুষ ৫৯ হাজার ৫৬৭ জন, মহিলা ৫৬ হাজার ৬৫১ জন। মনোনয়নপ্রত্যাশীদের শুভেচ্ছা পোস্টার, বেনার, ফেস্টুন শোভা পাচ্ছে শহরের অলিগলি থেকে গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.