চলতি মাসের শেষ দিকে শৈত্য প্রবাহ, সাগরে রয়েছে লঘুচাপ

নিজস্ব প্রতিবেদক

চলতি ডিসেম্বরের শেষ দিকে পড়বে শৈত্য প্রবাহ। দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে মৃদু মাত্রার শৈত্য প্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এ প্রথমার্ধে রাতের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে একটু বেশিই থাকতে পারে। তবে দিনের বেলার তাপমাত্রা স্বাভাবিকই থাকবে।

এদিকে বঙ্গোপসাগরে গত কয়েক দিন ধরে একটি লঘুচাপ বিরাজ করছে। এটা গতকাল রোববার থেকে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। এটা দক্ষিণ আন্দামান সাগর ও সংলগ্ন এলাকায় গতকাল সোমবার সকাল পর্যন্ত অবস্থান করলেও আজ বিকেল থেকে কিছুটা স্থান পরিবর্তন করে দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগর ও দক্ষিণ আন্দামান সাগর অঞ্চলে অবস্থান করছিল।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, চলতি মাসে সাগরে একটি নিম্নচাপের সৃষ্টি হবে। বর্তমান সুস্পষ্ট লঘুচাপটি নিম্নচাপে পরিণত হলে দেশের বিভিন্ন স্থানে কিছুটা বৃষ্টি হতে পারে। বৃষ্টির কারণে তখন হয়তো কিছুটা ঠাণ্ডা অনুভূত হতে পারে। তবে শেষ রাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের উত্তরাঞ্চল ও নদী অববাহিকায় মাঝারী থেকে ঘন ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। অন্যত্র হালকা থেকে মাঝারী মানের কুয়াশা পড়তে পারে। কখনো কখনো কুয়াশা ঘন আকার ধারন করে দৃষ্টি সীমা হ্রাস পেতে পারে। তখন হয়তো রাতে দুর পাল্লার গাড়ি চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হতে পারে।

বাংলাদেশ শীত ও গরমের তারতম্য সৃষ্টি করে দেয় উপমহাদেশীয় উচ্চ চাপ বলয়, বঙ্গোপসাগর থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম মওসুমী বায়ু এবং সাগরে কোনো লঘুচাপ অথবা নিম্নচাপ সৃষ্টি হলে। লঘুচাপ অথবা নিম্নচাপ অথবা ঘুর্ণিঝড় হলে সাময়িকভাবে তাপমাত্রা কমিয়ে দেয় বাতাস প্রবাহের মাধ্যমে এবং বৃষ্টি ঝরিয়ে। আবার মওসুমী বায়ু প্রবেশ করলে এদেশের আবহাওয়া সিক্ত থাকে। অপরদিকে উপমহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয় ভারতের বিহারের দিক থেকে পশ্চিমবঙ্গ পর্যন্ত এসে থাকে। কখনো কখনো এটা বাংলাদেশের উত্তর, পশ্চিম ও মধ্যাঞ্চলে এসে আছড়ে পড়ে। তখন এদেশ মৃদু থেকে তীব্র শৈত্য প্রবাহের কবলে পড়ে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.