তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশনে ৭৯ জন নিয়োগ

তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডে শূন্য পদে লোকবল নিয়োগের নিমিত্তে নিচের শর্তাবলি পূরণসাপেক্ষে অনলাইনে বাংলাদেশের প্রকৃত নাগরিকদের কাছ থেকে দরখাস্ত আহ্বান করা হয়েছে। অনলাইনে আবেদনপত্র পূরণ ও পরীক্ষার ফি জমা দেয়ার শেষ তারিখ : ২১ জানুয়ারি ২০১৮, বিকেল ৫টা পর্যন্ত। লিখেছেন মাহমুদা সুলতানা

পদের নাম : সহকারী ব্যবস্থাপক (সাধারণ)।
পদের সংখ্যা : ৩টি।
আবেদনের যোগ্যতা : প্রথম শ্রেণীতে স্নাতকোত্তর অথবা দ্বিতীয় শ্রেণীতে স্নাতকোত্তরসহ সম্মানে দ্বিতীয় শ্রেণী। অথবা ৪ বছর মেয়াদি দ্বিতীয় শ্রেণীর স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি।
বেতন স্কেল : ২২০০০-৫৩০৬০/-
পদের নাম : সহকারী ব্যবস্থাপক (হিসাব)।
পদের সংখ্যা : ১৭টি।
আবেদনের যোগ্যতা : বাণিজ্যিক বিষয়ে প্রথম শ্রেণীতে স্নাতকোত্তর অথবা দ্বিতীয় শ্রেণীতে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে স্নাতকোত্তরসহ সম্মানে দ্বিতীয় শ্রেণী/সিএ অথবা আইসিএমএ (ইন্টরমিডিয়েট)/এমবিএ। অথবা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ৪ বছর মেয়াদি দ্বিতীয় শ্রেণীর স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি।
বেতন স্কেল : ২২০০০-৫৩০৬০/-
পদের নাম : সহকারী প্রকৌশলী।
পদের সংখ্যা : ১৯টি।
আবেদনের যোগ্যতা : বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অথবা ৫ বছরের অভিজ্ঞতাসহ ডিপ্লোমা ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং।
বেতন স্কেল : ২২০০০-৫৩০৬০/-
পদের নাম : সহকারী কর্মকর্তা (সাধারণ)।
পদের সংখ্যা : ১৩টি।
আবেদনের যোগ্যতা : স্নাতকোত্তর অথবা ৪ বছর মেয়াদি দ্বিতীয় শ্রেণীর স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি অথবা প্রশাসনিক ক্ষেত্রে ৩ বছরের অভিজ্ঞতাসহ স্নাতক ডিগ্রি।
বেতন স্কেল : ১৬০০০-৩৮৬৪০/-
পদের নাম : সহকারী কর্মকর্তা (হিসাব)।
পদের সংখ্যা : ১১টি।
আবেদনের যোগ্যতা : বাণিজ্যিক বিষয়ে স্নাতকোত্তর অথবা বাণিজ্যিক বিষয়ে ৪ বছর মেয়াদি দ্বিতীয় শ্রেণীর স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি অথবা সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে ৩ বছরের অভিজ্ঞতাসহ বিকম পাস।
বেতন স্কেল : ১৬০০০-৩৮৬৪০/-
পদের নাম : উপ-সহকারী প্রকৌশলী।
পদের সংখ্যা : ১৬টি।
আবেদনের যোগ্যতা : ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি।
বেতন স্কেল : ১৬০০০-৩৮৬৪০/-
অনলাইনে আবেদনপত্র পূরণ এবং পরীক্ষার ফি জমা দেয়ার শুরুর তারিখ : ১ জানিয়ারি ২০১৮, সকাল ১০টা থেকে আবেদনপত্র এবং আবেদন ফি জমা দেয়া শুরু হবে।
অনলাইনে আবেদনপত্র পূরণ ও পরীক্ষার ফি জমা দেয়ার শেষ তারিখ : ২১ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখ বিকেল ৫টার মধ্যে আবেদনপত্র জমা দেয়া যাবে। শুধু ইউজার আইডিপ্রাপ্ত প্রার্থীগণ অনলাইনে আবেদনপত্র সাবমিটের সময় থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন ফি জমা দিতে পারবেন।
অনলাইনে আবেদনপত্র পূরণ করার পদ্ধতি : প্রার্থীকে টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের ওয়েবসাইট যঃঃঢ়://ঃমঃফপষ.ঃবষবঃধষশ. পড়স.নফ-এর মাধ্যমে নির্ধারিত চাকরির আবেদনের মডেল ফরম অনুসরণে টিজিটিডিসিএল কর্তৃক নির্ধারিত আবেদনপত্র পূরণ করে অনলাইন রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম এবং ফি জমা দিতে হবে। উল্লিখিত ওয়েবসাইট ওপেন করলে ৬ ক্যাটাগরির পদের জন্য নির্ধারিত আবেদন ফরমের রেডিও বাটন দেখা যাবে। ফরম পূরণের আগে প্রার্থীকে ওহংঃৎঁপঃরড়হ অংশটি ডাউনলোড করে প্রতিটি নির্দেশনা ভালো করে আয়ত্ত করে অঢ়ঢ়ষরপধঃরড়হ ঋড়ৎস-এর প্রতিটি ঋরবষফ-এ প্রদত্ত নির্দেশনা অনুসরণ করে ফরম পূরণ করতে হবে এবং লাল তারকা চিহ্নিত ঋরবষফ সমূহ অবশ্যই পূরণ করতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর/জন্ম নিবন্ধন নম্বর উল্লেখ করতে হবে।
ছবি : অনলাইন আবেদন ফরম সঠিকভাবে পূরণ সম্পন্ন হলে আবেদন ফরমটির প্রিভিউ দেখা যাবে। চৎবারব-িএর নির্ধারত স্থানে প্রার্থীকে নির্দিষ্ট মাপের নিজের রঙিন ছবি স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে। ছবির আকার হবে ৩০০দ্ধ৩০০ চরীবষ, (ঔঢ়ম ঋড়ৎসধঃ) এবং ঋরষব ঝরুব হবে সর্বোচ্চ ১০০ কেবি।
স্বাক্ষর : অঢ়ঢ়ষরপধঃরড়হ চবারব-িতে স্বাক্ষরের জন্য নির্ধারত স্থানে নিজের স্বাক্ষর স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে। স্বাক্ষরের আকার হবে ৩০০দ্ধ৮০ চরীবষ, (ঔঢ়ম ঋড়ৎসধঃ) এবং ঋরষব ঝরুব হবে সর্বোচ্চ ৬০ কেবি।
এসএমএস পাঠানোর নিয়মাবলি ও আবেদন ফি জমা দেয়া : অনলাইনে আবেদনপত্র যথাযথভাবে পূরণ করে নির্দেশনা মতো ছবি ও স্বাক্ষর আপলোড করে আবেদনপত্র সাবমিট করা সম্পন্ন হলে কম্পিউটারে ছবিসহ অঢ়ঢ়ষরপধঃরড়হ চৎবারবি দেখা যাবে। নির্ভুলভাবে আবেদনপত্র সাবমিট করা সম্পন্ন হলে প্রার্থী একটি ইউজার আইডি, ছবি এবং স্বাক্ষরযুক্ত একটি অঢ়ঢ়ষরপধহঃ’ং ঈড়ঢ়ু পাবে। ওই অঢ়ঢ়ষরপধহঃ’ং ঈড়ঢ়ু প্রার্থীকে প্রিন্ট অথবা ডাউনলোড করে সংরক্ষণ করতে হবে। অঢ়ঢ়ষরপধহঃ’ং কপিতে একটি ইউজার আইডি নম্বর দেয়া থাকবে এবং এ ইউজার আইডি ব্যবহার করে টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড কর্তৃক এসএমএসের মাধ্যমে প্রদত্ত নির্দেশনা অনুসরণ করে প্রার্থী যেকোনো টেলিটক প্রি-প্রেইড মোবাইল নম্বরের মাধ্যমে এসএমএস করে আবেদন ফি বাবদ ৩০০ টাকা জমা দিতে পারবেন।
প্রবেশপত্র সংগ্রহ : প্রবেশপত্র প্রাপ্তির বিষয়টি যঃঃঢ়://ঃমঃফপষ.ঃবষবঃধষশ.পড়স.নফ অথবা তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের ওয়েবসাইট িি.িঃরঃধংমধং.ড়ৎম.নফ-এ এবং প্রার্থীর মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে (শুধু যোগ্য প্রার্থীদের) যথাসময়ে জানানো হবে। অনলাইন আবেদনপত্রে প্রার্থীদের প্রদত্ত মোবাইল ফোনে পরীক্ষাসংক্রান্ত যাবতীয় যোগাযোগ সম্পন্ন করা হবে বিধায় ওই নম্বরটি সার্বক্ষণিক সচল রাখতে হবে। এসএমএসে পাঠানো ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে পরে রোল নম্বর, পদের নাম, ছবি, পরীক্ষার তারিখ, সময় ও ভেন্যুর নাম ইত্যাদি তথ্যসংবলিত প্রবেশপত্র প্রার্থী ডাউনলোড পূর্বক প্রিন্ট (সম্ভব হলে রঙিন) করে নেবেন। প্রার্থীরা এই এডমিট কার্ডটি লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সময় এবং উত্তীর্ণ হলে মৌখিক পরীক্ষার সময় অবশ্যই দেখাবেন।
পরীক্ষার তারিখ : লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার তারিখ প্রার্থীর মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে ও টিজিটিডিসিএলের ওয়েবসাইট িি.িঃরঃধংমধং.ড়ৎম.নফ-এর মাধ্যমে জানানো হবে।
বয়সসীমা : সব পদের জন্য প্রার্থীর বয়স ১ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে, মুক্তিযোদ্ধা/মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যা/প্রতিবন্ধী কোটার ক্ষেত্রে আবেদনকারী প্রার্থীর বয়স ১৮ থেকে ৩২ বছরের মধ্যে হতে হবে। মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যার-পুত্র-কন্যা প্রার্থীর বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক প্রদত্ত জেএসসি/সমমান এবং এসএসসি/সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সার্টিফিকেটে লিপিবদ্ধ জন্ম তারিখ প্রকৃত জন্ম তারিখ হিসেবে গণ্য হবে।
লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ পার্থীদের যেসব কাগজপত্র জমা দিতে হবে : লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার/মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণকালে নির্ধারিত আবেদন ফরমে প্রার্থীর উল্লিখিত তথ্য প্রমাণের জন্য নিচের কাগজপত্র সাক্ষাৎকার/মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণকারী কমিটি/কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দিতে হবে।
১. শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার সব মূল সার্টিফিকেট দেখাতে হবে এবং এর সব সনদের সত্যায়িত কপি (এক সেট) জমা দিতে হবে।
২. সরকারি/স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা কর্তৃক প্রদত্ত চারিত্রিক সার্টিফিকেট।
৩. ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, পৌরসভা/সিটি করপোরেশনের মেয়র বা ওয়ার্ড কাউন্সিলর কর্তৃক প্রার্থীর নিজ জেলা উল্লেখ্যপূর্বক প্রদত্ত নাগরিকত্ব সার্টিফিকেট।
৪. জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্ম নিবন্ধন সনদপত্র (প্রার্থী কর্তৃক চাকরির আবেদন ফরমে যে তথ্য দেবে)।
৫. মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের পুত্র-কন্যা এবং পুত্র-কন্যার পুত্র-কন্যা হিসেবে চাকরি প্রার্থীর পিতা/মাতা এবং পিতা-মাতার পিতা/মাতা মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে বিবেচিত হবেন। এ ক্ষেত্রে প্রমাণ হিসেবে এর মূল সনদ প্রদর্শন এবং এর সত্যায়িত কপিসহ চাকরি প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা বা শহীদ মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যা বা পুত্র-কন্যার পুত্র-কন্যা এ মর্মে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বা পৌরসভা/সিটি করপোরেশনের মেয়র বা ওয়ার্ড কাউন্সিলর কর্তৃক প্রদত্ত প্রত্যয়নপত্র জমা দিতে হবে।
৬. উপজাতীয় প্রার্থীর ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার কর্তৃক প্রদত্ত উপজাতীয় বিষয়ক সার্টিফিকেটের সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে। অন্যান্য কোটার প্রার্থীদের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের যথোপযুক্ত অফিসার কর্তৃক প্রদত্ত সার্টিফিকেটের সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে।
৭। সব সার্টিফিকেট সরকারি/স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা কর্তৃক সত্যায়িত হতে হবে।
৮. বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্জিত ডিগ্রির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দেশী বিশ্ববিদ্যালয়/বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন থেকে ইস্যুকৃত সমমান সার্টিফিকেট মৌখিক পরীক্ষার সময় দেখাতে হবে।
৯. সরকারি/আধা-সরকারি/স্বায়ত্তশাসিত সংস্থায় চাকরিরত প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার সময় অবশ্যই যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতিপত্র দেখাতে হবে।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.