পোশাক : ইজি ; মডেল : নাহিদ নিশান ও জেসমিন মৌসুমী ; মেকআপ : বিন্দিয়া ; ছবি : শওকত মোল্লা
পোশাক : ইজি ; মডেল : নাহিদ নিশান ও জেসমিন মৌসুমী ; মেকআপ : বিন্দিয়া ; ছবি : শওকত মোল্লা

আভিজাত্যে ব্লেজার

রঙের ঝলক
এ কে রাসেল

শীতের ফ্যাশন মানেই পোশাকে বৈচিত্র্য। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য স্থানে রয়েছে ব্লেজার। অফিস ও পার্টিসহ বিভিন্ন জমকালো অনুষ্ঠানে শীত ফ্যাশনে চোখে পড়ছে ব্লেজার। ছেলেমেয়ে উভয়েই ব্লেজার ব্যবহার করছে। ছেলেরা শুধু শার্ট-প্যান্টের সাথে ব্লেজার পরলেও মেয়েরা তা পরছে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজসহ বিভিন্ন পোশাকের সাথে। এখন অনেকেই ব্লেজারকে ফরমাল পোশাক মানতে নারাজ। বয়স, অবস্থান ও রুচিভেদে নানা ডিজাইনের ব্লেজার যে কারো গায়ে প্রায়ই চোখে পড়ছে। ব্লেজার শীত ফ্যাশনে যোগ করছে নতুন মাত্রা। অনেকে আবার অফিসিয়াল ড্রেস কোডের গণ্ডি পেরিয়ে শীত নিবারণের ক্যাজুয়াল পোশাক হিসেবে ব্লেজার পরছেন।
তরুণদের চাহিদা মাথায় রেখে ব্লেজারেও এসেছে পরিবর্তন। ব্লেজারের কাপড়, প্যাটার্ন, বোতাম, রঙ ইত্যাদি বিষয়ে বৈচিত্র্যের ছোঁয়াও লেগেছে বেশ। জিন্স, চামড়া, সুতির বাইরে এবার নতুন এসেছে মখমলের কোট। ব্লেজারের ভেতরে আগে একটা সাধারণ কাপড় ব্যবহার করা হতো; কিন্তু এবার সেখানে নকশার অংশ হিসেবেই দেখা যাচ্ছে বৈচিত্র্যময় ও প্রিন্টের কাপড়।
ব্লেজার
বিভিন্ন দোকান ঘুরে দেখা যায়, ক্যাজুয়াল ব্লেজারের চাহিদা বেশি। ডিজাইনে আসছে নতুনত্ব। পোশাকের দোকানে শোভা পাচ্ছে পাঁচ বাটন হ্যান্ডস্টিচ, অ্যামব্রয়ডারি, হাতের কাজ করা, বাটনলেস, এক বাটন, জ্যাকেট টাইপ, টপসিন, বেনকলার, শার্ট কলারসহ অসংখ্য ডিজাইনের ব্লেজার। বেশি চলছে কালো রঙের ছয় বাটন শার্ট কলার ব্লেজার। বিভিন্ন ডিজাইনে মিশ্র ব্লেজারও পাওয়া যাচ্ছে। ব্ল্যাক, মেরুন, অ্যাশসহ বিভিন্ন রঙের ব্লেজার তৈরি করা হয়েছে পলিউল বা উইন্টার ফেব্রিকে। ডিজাইনে ছেলে বা মেয়েদের তেমন পার্থক্য নেই। তবে মেয়েদের কাটিংয়ে স্বাতন্ত্র্য আছে।
যেভাবে বা যেখানেই পরুন না কেন, ব্লেজারের কাটিং ও ফিটিংটা কিন্তু বেশি জরুরি। তাই তৈরি করে বা রেডিমেট যা-ই হোক না কেন, মাপ মতোই কিনতে হবে। কাঁধ ঝুলে যাওয়া যেমন চলবে না, তেমনি আবার হাত যেখানে শেষ এর থেকে আধা ইঞ্চির মতো শার্টের কাফ দেখা যাওয়া চাই।
ব্লেজারের ফ্যাশনে এখন চলছে সিøম ফিট ফ্যাশন। দুই বা তিন বাটনের ব্লেজারই চলছে বেশি। তবে এক বাটনের ব্লেজারও পরছেন ফ্যাশনসচেতন অনেকে। নিচে রাউন্ড শেপটাই এখন সবার পছন্দ। ডেনিম কাপড়ের তৈরি নানা ধরনের ব্লেজারও বেশ চলছে। জ্যাকেট ও সেমি-স্যুট ধাঁচের এসব মখমলের পোশাকের সাথে মিলিয়ে বেছে নিতে পারেন উজ্জ্বল রঙের প্যান্ট। একের ভেতর দুই অর্থাৎ অফিসে পরা যায় আবার বাইরে কোনো পার্টিতেও ঠিকমতো মানিয়ে যায়, এমন ব্লেজার কিনছেন অনেকে।
কোথায় পাবেন
ফ্যাশনের কথা মাথায় রেখে ফ্যাশন হাউজ ইজি, প্লাসপয়েন্ট, ইয়েলো, এক্সটাসি, ক্যাটস আই, ওয়েস্টেকস, ইনফিনিটি, এক্সটেসি, মেনজ ক্লাব, রিচম্যানসহ রাজধানীর বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজ নানা ধরনের, নানা রঙের ব্লেজার এনেছে বাজারে। এ ছাড়া বসুন্ধরা সিটি, নিউমার্কেট, বঙ্গবাজারেও পাওয়া যাবে নানা ডিজাইনের ব্লেজার। সাধারণ ফ্যাশনেবল ব্লেজারগুলো ১২ শ’ টাকা থেকে পাঁচ হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যাবে। মখমলের ব্লেজারগুলোর দাম পড়বে সাড়ে চার হাজার থেকে ছয় হাজার টাকা। খাদি কাপড়ের ব্লেজারগুলোর দাম কিছুটা কমÑ এক হাজার টাকা থেকে শুরু।
চাইলে ভালো মানের কাপড় কিনে তৈরি ও করে নিতে পারেন ভালো কোনো টেইলার্স থেকে। যারা একটু কম দামে ব্লেজার কিনতে চান, তাদেরও হতাশ হওয়ার কিছু নেই। তারা ঢুঁ মারতে পারেন বঙ্গবাজার, নিউমার্কেট,
গুলিস্তান ও বদরুদ্দোজা মার্কেটে। এখানে ছয় শ’ টাকা থেকে এক হাজার টাকার মধ্যে ব্লেজার কিনতে পারেন।
শীত ফ্যাশনে ব্লেজারের চাহিদা কেমন জানতে চেয়েছিলাম ইজি ফ্যাশন হাউজে কর্ণধার তৌহিদ চৌধুরীর কাছে। তিনি জানান, ২০১৭ সালে ফরমাল ব্লেজারের চাহিদা খুব একটা নেই। তবে ক্যাজুয়াল ব্লেজারের চাহিদা রয়েছে। আর এ ক্ষেত্রে ছেলেরাই বেশি কিনছে। ফরমাল ব্লেজারের তুলনায় ক্যাজুয়াল ব্লেজারের দামও কিছুটা কম। এক হাজার আট শ’ টাকা থেকে তিন হাজার পাঁচ শ’ টাকার মধ্যে। আর ফরমাল ব্রেজারের দাম কিছুটা বেশি। তিন হাজার টাকা থেকে পাঁচ হাজার টাকা। শীত মওসুম শুরু এখন। সামনে আরো কিছুটা সময় রয়েছে। আশা করা যায়, ক্রেতাদের চাহিদা আরো বাড়বে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.