পু ষ্টি ত থ্য  

শীতের সবজি বাঁধাকপির পুষ্টিগুণ

শীতকালীন শাকসবজির মধ্যে বাঁধাকপি খুবই পুষ্টিসমৃদ্ধ। এতে সব ধরনের পুষ্টি রয়েছে। এটা কোষ্ঠ্যকাঠিন্য দূর করে। এতে প্রচুর ক্যালসিয়াম আছে। ক্যালসিয়ামের পরিমাণ গাজর, মুলা, মুলাশাক, লাউশাক, চালকুমড়া, ওলকপি, বেগুন, পটোল ও মটরশুঁটিসহ বিভিন্ন শাকসবজির চেয়ে বেশি থাকে। আয়রনের পরিমাণও বিভিন্ন শাকসবজির চেয়ে বেশি থাকে। বাঁধাকপিতে দুই-চার মিলিগ্রাম ‘ভিটামিন কে’ থাকে। ‘ভিটামিন কে’ রক্তক্ষরণ প্রতিরোধ করে রক্তজমাট বাঁধতে সাহায্য করে। বাঁধাকপিতে ট্রিপটোফেন নামক মানুষের প্রয়োজনীয় অ্যামাইনো এসিড থাকে।
প্রতি ১০০ গ্রাম আহারোপযোগী বাঁধাকপিতে জলীয় অংশ ৯৩.৩ গ্রাম, আমিষ ১.৩ গ্রাম, শর্করা ৪.৭ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৩১ মিলিগ্রাম, আয়রন ০.৮ মিলিগ্রাম, ভিটামিন ০.০৬ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি২ ০.০৫ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ৩ মিলিগ্রাম, মোটখনিজ পদার্থ ০.৫ গ্রাম ও খাদ্যশক্তি ২৬ কিলোক্যালরি থাকে। তবে এই পুষ্টিমান বাঁধাকপির জাত ও উৎপাদনের পরিবর্তনের জন্য কিছুটা পরিবর্তন হতে পারে।
মটরশুঁটিতে আছে আমিষ ও খাদ্যশক্তি

মটরশুঁটি আমিষসমৃদ্ধ অত্যন্ত পুষ্টিকর শীতকালীন সবজি। সব শাকসবজি ও ফলের চেয়ে বেশি আমিষ আছে। ক্যালসিয়াম ও আয়রনের পরিমাণও অনেক শাকসবজির চেয়ে বেশি আছে। এতে খাদ্যশক্তি সব শাকসবজির চেয়ে বেশি। আমিষের প্রধান উৎস মাছ ও গোশত। কিন্তু এগুলো প্রচুর দাম থাকায় অনায়াসে যে কেউ মটরশুঁটি খেয়ে আমিষের অভাব পূরণ করতে পারে। নি¤েœ প্রতি ১০০ গ্রাম আহারোপযোগী মটরশুঁটিতে বিদ্যমান পুষ্টির পরিমাণ উল্লেখ করা হলো : জলীয় অংশ ৬৭.৫ গ্রাম, আমিষ ৭.৪ গ্রাম, শর্করা ২৩.৭ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ২৬ মিলিগ্রাম, আয়রন ১.৫ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি১ ০.০১ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি২ ০.০১২ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ৫ মিলিগ্রাম। মোট খনিজ পদার্থ ১.২ গ্রাম ও খাদ্যশক্তি ১২৭ কিলোক্যালরি।
কৃষিবিদ ফরহাদ আহাম্মেদ

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.