অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলাবে না ব্রিটেন
অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলাবে না ব্রিটেন

অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলাবে না ব্রিটেন

নয়া দিগন্ত অনলাইন

ইরানের সাম্প্রতিক বিক্ষোভ সমাবেশ ও বিশৃঙ্খলাসহ দেশটির অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করা ব্রিটেন সরকারের কাজ নয় বলে মন্তব্য করেছেন তেহরানে নিযুক্ত ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত নিকোলাস হপ্টন। একইসঙ্গে তেহরানের যেকোনো অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো থেকে ব্রিটেন ভবিষ্যতে বিরত থাকবে বলেও জানান তিনি।

মঙ্গলবার রাজধানী তেহরানে পররাষ্ট্র সম্পর্ক বিষয়ক স্ট্র্যাটেজিক কাউন্সিলের মাধ্যমে আয়োজিত 'ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্যের ভূরাজনৈতিক হালচাল' শীর্ষক একটি সম্মেলনে রাষ্ট্রদূত হপ্টন এ মন্তব্য করেন।

সম্প্রতি দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদ জানিয়ে রাজধানী তেহরানসহ ইরানের কয়েকটি শহরে কিছু মানুষ বিক্ষোভ দেখান। শান্তিপূর্ণ ওই বিক্ষোভকে কাজে লাগিয়ে কিছু সুযোগসন্ধানী ব্যক্তি নাশকতামূলক তৎপরতা চালায় ও সরকারি সম্পদের ক্ষতি করে। এই অপরাধমূলক তৎপরতার নিন্দা জানিয়ে গত বুধবার থেকে ইরানজুড়ে সরকারের সমর্থনে বিশাল বিশাল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এদিকে ইরানের এসব বিক্ষোভ সম্পর্কে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিতর্কিত এবং হস্তক্ষেপমূলক সংবাদ পরিবেশন করে। তবে এসব খবর পরিবেশনের সঙ্গে ব্রিটেন সরকারের কোনো সম্পর্ক নেই বলে তা দাবি করে রাষ্ট্রদূত বলেন, তার দেশের সংবাদ মাধ্যমগুলো সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে স্বাধীন এবং তাদের ওপর সরকারের সরাসরি কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। তবে কিছু ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম ইরানের সাম্প্রতিক পরিস্থিতিকে যেভাবে তুলে ধরেছে তাতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি।

ব্রিটেন-রাশিয়ার সম্পর্কে টানাপড়েন

২০১৪ সালে ইউক্রেনের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল ক্রিমিয়াকে রুশ ফেডারেশনের অন্তর্ভূক্ত করার পর থেকে ব্রিটেন ও রাশিয়ার সম্পর্কে টানাপড়েন চলছে। সম্প্রতি এই সম্পর্কের আরো অবনতি হয়েছে।

উত্তর সাগরে যুক্তরাজ্যের সমুদ্রসীমার কাছে একটি রুশ যুদ্ধ জাহাজের তৎপরতা পর্যবেক্ষণ করেছে একটি ব্রিটিশ ফ্রিগেট। ব্রিটিশ রয়েল নেভি জানিয়েছে, সোমবার বড়দিনে যুক্তরাজ্যের জাতীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট সমুদ্র এলাকায় রুশ যুদ্ধজাহাজের উপস্থিতি টের পেয়ে এইচএমএস সেন্ট আলবানস নামের ফ্রিগেটটি পাঠানো হয়।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, সাগরের তলদেশ দিয়ে যাওয়া ইন্টারনেট ক্যাবলের জন্য রাশিয়া হুমকিজনক হয়ে উঠতে পারে বলে সম্প্রতি সতর্ক করে ব্রিটেন। সোমবার নিজস্ব সমুদ্র এলাকায় রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজের উপস্থিতি টের পেয়ে এর তৎপরতা পর্যবেক্ষণ করে ব্রিটিশ জাহাজ।

রয়েল নেভির বিবৃতিতে বলা হয়, এইচএমএস সেন্ট আলবানস ফ্রিগেটটিকে ২৩ ডিসেম্বর রওনা করতে বলা হয় এবং যুক্তরাজ্যের পানিসীমার কাছে পৌঁছে যাওয়া রুশ যুদ্ধ জাহাজ এডমিরাল গোরশকভকে পর্যবেক্ষণের নির্দেশ দেওয়া হয়। ব্রিটিশ ফ্রিগেটটি বড়দিনে সাগরে ছিল এবং রুশ জাহাজের তৎপরতা পর্যবেক্ষণ করেছে। বক্সিং ডেতে এটি পোর্টসমাউথে ফিরে আসবে।

রাশিয়াকে সতর্ক করলো ব্রিটেন

ইউরোপকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা বন্ধ করতে মস্কোকে সতর্ক করবেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন। একইসঙ্গে সাইবার হামলার মাধ্যমে মস্কো পশ্চিমা দেশগুলোর কার্যক্রম ব্যহত করা অব্যাহত রাখলে লন্ডন পাল্টা ব্যবস্থা নেবে বলেও রাশিয়াকে বার্তা দেবেন তিনি।

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সঙ্গে বৈঠক করতে বরিস জনসন শুক্রবার মস্কোতে পৌঁছান। গত পাঁচ বছরের মধ্যে এই প্রথম কোনো ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাশিয়া সফরে গেলেন।

আলোচনা শুরুর আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জনসনের দফতর বৃহস্পতিবার তার বিবৃতি প্রকাশ করেছে। সেখানে বলা হয়েছে, "ইউক্রেনসহ ইউরোপের রাষ্ট্রগুলোকে অস্থিতিশীল করার জন্য রাশিয়া যেভাবে চেষ্টা চালাচ্ছে তাতে মস্কোর সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক 'স্বাভাবিক ব্যবসা হিসেবে' বিবেচিত হতে পারে না।

আন্তর্জাতিক নিরাপত্তার স্বার্থে এটা গুরুত্বপূর্ণ যে নিজেদের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি গভীরে পৌছার আগেই পারস্পরিক আলোচনায় মিলিত হওয়া। আমি এমন সময় রাশিয়া সফরে যাচ্ছি যখন জটিল সব বৈশ্বয়িক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য একসঙ্গে কাজ করার প্রয়োজনীয়তা প্রকট হয়ে উঠেছে।"

ইউক্রেন এবং সিরিয়াসহ বিভিন্ন ইস্যুতে রাশিয়া ও ব্রিটেনের মধ্যে সম্পর্কের যখন চরম টানাপড়েন চলছে তখন কোনো শীর্ষস্থানীয় ব্রিটিশ কূটনীতিক মস্কো সফরে গেলেন। এছাড়া, ইরানের সঙ্গে স্বাক্ষরিত আন্তার্জাতিক পরমাণু সমঝোতা এবং উত্তর কোরিয়ার পরমাণু বোমার হুমকি বিষয়ে তিন ল্যভরভের সঙ্গে আলোচনা করবেন বলেও জানান জনসন।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.