বাঙালির উৎসব আর উৎসবের বাঙালি

প্রিয়জন ডেস্ক

বাঙালি সংস্কৃতিতে একটি বিশেষ উৎসবের দিন পৌষসংক্রান্তি বা মকরসংক্রান্তি। পৌষসংক্রান্তি বা মকরসংক্রান্তি মূলত জ্যোতিষশাস্ত্রের একটি ক্ষণ। ভারতীয় জ্যোতিষশাস্ত্র অনুযায়ী ‘সংক্রান্তি’ একটি সংস্কৃত শব্দ। এর মাধ্যমে সূর্যের এক রাশি থেকে অন্য রাশিতে প্রবেশ করাকে বোঝানো হয়ে থাকে। ‘মকরসংক্রান্তি’ শব্দটি দিয়ে নিজ কক্ষপথ থেকে সূর্যের মকররাশিতে প্রবেশকে বোঝানো হয়ে থাকে। বাংলা পৌষ মাসের শেষের দিন এই পৌষসংক্রান্তি বা মকরসংক্রান্তি উৎসব পালন করা হয়। বাংলাদেশের পুরান ঢাকায় পৌষসংক্রান্তি সাকরাইন নামে পরিচিত। এ দিন বাঙালিরা বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন করে থাকে। তার মধ্যে পিঠা খাওয়া, ঘুড়ি উড়ানো অন্যতম। সারা দিন ঘুড়ি উড়ানোর পরে সন্ধ্যায় পটকা ফুটিয়ে ফানুস উড়িয়ে উৎসবের সমাপ্তি করে। এ ছাড়া এ উৎসবকে ঘিরে বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আর বাউল গানের আসর বসে।
রঙবেরঙের ঘুড়ি
ঘুড়ি উৎসব বাংলাদেশের একটি ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন উৎসব। মুঘল আমল থেকে এ উৎসব পালিত হয়ে আসছে। এই উৎসবে প্রচুর লোকের সমাগম ঘটে। পুরান ঢাকার অধিবাসীদের কাছে এটি অত্যন্ত উৎসবের দিন। এ উৎসব সাধারণত শীতকালেই পালিত হয়। পৌষসংক্রান্তির দিন বাঙালিরা সারা দিনব্যাপী রঙবেরঙের ঘুড়ি ওড়ায়। এ দিন ঘুড়ি উড়ানোর জন্য তারা আগে থেকে ঘুড়ি বানিয়ে এর সুতায় মাঞ্জা দিয়ে প্রস্তুতি নেয়। প্রতিযোগিতা হয় কার ঘুড়ি সুন্দর। কে কতটা ঘুড়ি কাটতে পারে। ওই দিন নীল আকাশ ছেয়ে যায় রঙবেরঙের ঘুড়িতে। মনে হয় ঘুড়ির জন্যই যেন এ আকাশ।
হরেক রকম পিঠা
পৌষসংক্রান্তি বা মকরসংক্রান্তি উৎসবটি যেহেতু শীতের মাঝামাঝি সময়ে উদযাপিত হয়, সেহেতু এ উৎসবে এমন ধরনের খাবার তৈরি করা হয় যা শরীরকে উষ্ণ রাখে এবং বেশ শক্তি জোগায়। চিরায়ত গ্রামবাংলায় চাষির গোলা ভরে নতুন ধানে। তৈরি হয় চালের গুঁড়া। সেই চালের গুঁড়া দিয়ে বানানো হয় ভিন্ন স্বাদের বাহারি নামের ঐতিহ্যবাহী পিঠাপুলি, ভাপা, দুধচিতোই, পাটিসাপটা ও পোয়া আরো কত কী। এর জন্য প্রয়োজন হয় নারিকেল, দুধ, খেজুরের গুড় এবং পাটালির। এ ছাড়া গুড় দিয়ে তৈরি নারিকেল আর তিলের লাড্ডু এই উৎসবের অন্যতম উপাদেয় খাবার।
উৎসবের নানা নাম
বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন নামে পৌষসংক্রান্তি বা মকরসংক্রান্তি উৎসব পালন করা হয়। দক্ষিণ এশিয়ায় এই দিবস বা ক্ষণকে ঘিরে উদযাপিত হয় জমকালো উৎসব। নেপালে দিবসটি মাঘি নামে, থাইল্যান্ডে সংক্রান, লাওসে পি মা লাও, মিয়ানমারে থিং ইয়ান এবং কম্বোডিয়ায় মহাসংক্রান নামে উদযাপিত হয়ে থাকে। দেশ ভেদে এর নামের মতোই উৎসবের ধরনেও থাকে বেশ পার্থক্য। তবে বাঙালির উৎসবই সেরা। এ উৎসব উদযাপন দেখে মনে হতেই পারে এটা বাঙালির উৎসব নাকি উৎসবের জন্য বাঙালি।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.