হজে মোয়াল্লিম ফি পরিশোধ করেনি

৫৭ হজ এজেন্সিকে কারণ দশার্নোর নোটিশ

খালিদ সাইফুল্লাহ

বিগত হজে সৌদি আরবে মোয়াল্লিম ফি পরিশোধ না করায় ৫৭ বেসরকারি হজ এজেন্সিকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে ধর্মমন্ত্রণালয়। তাদের বিরুদ্ধে কেন আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে না তা আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে জানানোর আহ্বান জানান হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ধর্মমন্ত্রণালয় এ নোটিশ জারি করে।
জানা যায়, গত বছরের হজে মোয়াল্লিম চুক্তি নিয়ে বেশ জটিলতার সৃষ্টি হয়। সর্বনি¤œ মূল্যের (৭২০ রিয়াল) মুয়াল্লিম সার্ভিসের সঙ্কট দেখা দেয়। এতে বাংলাদেশের ৯১টি এজেন্সির প্রায় ১৪ হাজার হজযাত্রীর জন্য মুয়াল্লিম চুক্তি করা নিয়ে বিপাকে পড়েন এজেন্সি মালিকরা। বিশ্বের অন্যান্য মুসলিম দেশ আগেই সর্বনি¤œ মূল্যের মোয়াল্লিম চুক্তি সম্পন্ন করায় এ সংক্রান্ত কোটা শেষ হয়ে যায়। ফলে দেড় হাজার রিয়ালের দ্বিতীয় ক্যাটাগরির মোয়াল্লিম ফির বিনিময়ে এসব এজেন্সিকে চুক্তি সম্পন্ন করতে হয়। সৌদি আরবস্থ বাংলাদেশ কনসুলেট, বাংলাদেশ হজ অফিস ও হাবের মধ্যস্থতায় কিস্তিতে এ টাকা পরিশোধের ব্যবস্থা করা হয়। প্রাথমিকভাবে এক হাজার রিয়াল দিয়ে সৌদির হজ এজেন্সিগুলোর সাথে চুক্তি করে দেশের বেসরকারি হজ এজেন্সিগুলো। বাকি থাকে ৫০০ রিয়াল, যা বাংলাদেশী প্রায় ১১ হাজার টাকা। এ টাকা ৩০ জিলকদের মধ্যে পরিশোধের সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়। কিন্তু চুক্তিবদ্ধ অধিকাংশ এজেন্সিই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাকি থাকা ৫০০ রিয়াল পরিশোধ করেনি। এতে করে ওই এজেন্সিগুলোর অধীনে যাওয়া হজযাত্রীরা ব্যাপক অসুবিধার সম্মুখীন হন। এ কারণে অনেক হাজী মোয়াল্লিমের অফিসে বিক্ষোভও করেন।
ধর্মমন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব (হজ) এস এম মনিরুজ্জামান জানান, বকেয়া মোয়াল্লিম ফি পরিশোধ না করায় হজযাত্রীরা অবর্ণনীয় দর্ভোগের শিকার হন। তা ছাড়া এতে হজ কার্যক্রমে বিঘœ এবং দেশের ভাবমর্যাদাও ক্ষুণœ হয়। এ জন্য ৫৭টি এজেন্সিকে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করা হয়েছে। এতে তাদের বিরুদ্ধে চারটি অভিযোগ আনা হয়েছে। এগুলো হলোÑ ১.মোয়াচ্ছাছার সাথে চুক্তি ভঙ্গ করা, ২. নিরীহ হজযাত্রীদের অবর্ণনীয় কষ্টে ফেলা, ৩. হজ সম্পাদনে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি করা এবং ৪. বিদেশের মাটিতে দেশের ভাবমর্যাদা ক্ষুণœ করা।
এস এম মনিরুজ্জামান বলেন, আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে তাদের কাছে জবাব চাওয়া হয়েছে। এর মধ্যে জবাব না দিলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
অভিযুক্ত বেসরকারি হজ এজেন্সিগুলো হলোÑ সানফ্লাওয়ার এয়ার লিংকার্স, মক্কা বাবে জান্নাত ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, সুলতানা ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, ইকোনমিক ট্রাভেলস সার্ভিস, লন্ডন এয়ার ট্রাভেলস, আল আমানত ট্রাভেলস, আজমল ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল, জানুস ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, নিলময় ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, আমাতুন এয়ার ট্রাভেলস সার্ভিস, কেবি এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, জুবিলি এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, সিটি নিওন ট্রাভেলস, বিলাস ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, সানস্টার সার্ভিস, শবনম এয়ার ব্রিজ, মক্কা আরাফা মদিনা গ্রুপ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, পেনাং ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, ঢাকা ট্যাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস সুইট, এন ই এয়ার সার্ভিস, আল দুহা এয়ার ট্রাভেলস, মিলেনিয়াম এয়ার সার্ভিস, প্লানেট ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলস, আব্দুল আজিজ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরিজম, এন আল আমিন হজ কাফেলা ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, মদিনা ট্রাভেলস, মাস্টার এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, এম নূর ই মদিনা হজ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, কলম্বিয়া ট্রাভেলস ইন্টারন্যাশনাল, এমআরবি ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, ফাতেমা ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস হজ সার্ভিস, রিলেশন ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, সামিন ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, এফএম ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, সিদ্দিকিয়া ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, এম এ এম ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, বেস্ট ফ্লাই ইন্টারন্যাশনাল, হাবিব এয়ার ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, ফারুক ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, আল হায়াত এভিয়েশন, জামান এন্টারপ্রাইজ, মার্ভেলাস এয়ার ট্রাভেলস, অ্যাবকো ওভারসিস, লিমা ট্রাভেল এজেন্সি, আল জুবায়ের ট্রাভেলস এজেন্সি, আদিল ওভারসিস, আল মানার ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, ইফাজ ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, এমএইচএম ওভারসিস, গ্রিন ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলস, ক্যারাভেল এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, বদরপুর ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, ইকো এভিয়েশন অ্যান্ড ট্যুরিজম, এয়ার টাইমস ইন্টারন্যাশনাল, লাব্বাইক হজ সার্ভিস, কাজী এয়ার ইন্টারন্যাশনাল এবং এমকো ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.